সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ৩৬ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

এইচএসসি’র ফলাফলে গুণগত মানে এগিয়ে নারী শিক্ষা ও সুজানগর পাথারিয়া, বিপর্যয় ডিগ্রি কলেজে

unnamedজালাল আহমদ::
সিলেট শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এবারের এইচএসসি পরীক্ষায় মৌলভীবাজারের বড়লেখার একমাত্র নারী বিদ্যাপীঠ নারী শিক্ষা একাডেমী ডিগ্রি কলেজ থেকে ৩জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়ে গুণগত মানে এগিয়ে রয়েছে। এইচএসসিতে উপজেলার ৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১৭৮৮ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাশ করেছে ১০২৩ জন।

উপজেলায় গড় পাশের হার ৫৭%। উপজেলায় পাশের দিক থেকে এগিয়ে রয়েছে সুজানগর পাথারিয়া কলেজ। এছাড়া কারিগরিতে শতভাগ ফলাফল অর্জনসহ সর্বোচ্চ ৫টি জিপিএ-৫ পেয়েছে এবাদুর রহমান চৌধুরী টেকনিক্যাল এ- বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজের শিক্ষার্থীরা।
এইচএসসি সাধারণ, কারিগরি ও আলিমে মোট ৯ শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। নারী শিক্ষা ডিগ্রি কলেজ থেকে জিপিএ-৫ প্রাপ্ত তিন শিক্ষার্থী হচ্ছে-আবিরা আজাদ চৌধুরী, প্রজ্ঞা লাবণী দলপতি ও তামান্না আক্তার।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্র জানায়, প্রকাশিত ফলাফলে বড়লেখা ডিগ্রি কলেজ থেকে ৬১৯ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাশ করেছে ৩৪০ জন। পাশের হার ৫৫%। নারী শিক্ষা একাডেমী ডিগ্রি কলেজ থেকে ৫২৮ জনের মধ্যে ৩১০ জন। এ প্রতিষ্ঠান থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩জন শিক্ষার্থী। পাশের হার ৫৯%। শাহবাজপুর উচ্চ বিদ্যালয় এ- কলেজ থেকে ১৫১ জনের মধ্যে ৮৫ জন। পাশের হার ৫৬%। দাসেরবাজার আদর্শ কলেজ থেকে ২০০ জনের মধ্যে ১০২ জন। পাশের হার ৫১%। বর্ণি এম. মুন্তাজিম আলী মহাবিদ্যালয় থেকে ১৯১ জনের মধ্যে ১১১ জন। পাশের হার ৫৮%। সুজানগর পাথারিয়া কলেজ থেকে ৯৯ জনের মধ্যে ৭৫ জন। পাশের হার ৭৬%। বিভিন্ন সামীবদ্ধতার মধ্যেও নতুনভাবে স্থাপিত হওয়া এ প্রতিষ্ঠানটি ফলাফলের ধারাবাহিকতা রক্ষা করে চলেছে।

এদিকে কারিগরিতে এবাদুর রহমান চৌধুরী টেকনিক্যাল এ- বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজ থেকে ৫২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে সবাই পাশ করেছে। এ প্রতিষ্ঠান থেকে জিপিএ-৫ অর্জন করেছে ৫ জন শিক্ষার্থী। এ প্রতিষ্ঠানটি গতবারও শতভাগ ফলাফল অর্জন করে।

অপরদিকে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে উপজেলার ৬টি প্রতিষ্ঠান থেকে ২৪৮ জন শিক্ষার্থী আলিম পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাশ করেছে ২৩২ জন। উপজেলায় গড় পাশের হার ৯৪%। মাত্র ১জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে সুজাউল সিনিয়র ফাযিল (ডিগ্রি) মাদ্রাসা থেকে।

উপজেলার সার্বিক ফলাফল পর্যালোচনা করে হতাশই হয়েছেন স্থানীয় শিক্ষানুরাগী, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীমহল। বড়লেখা ডিগ্রি কলেজের বিগত ও বর্তমান ফলাফল দেখে স্থানীয় শিক্ষানুরাগীরা বলছেন, সরকারিকরণের প্রাথমিক চিঠি পেয়েই পাশের হার এতো কম হয়েছে। অনেকেই মনে করেন, সরকারিকরণের ঘোষণার সাথে সাথেই শিক্ষকরা অমনোযোগী থাকায় উপজেলার মধ্যে বড়লেখা ডিগ্রি কলেজে এমন ফল বিপর্যয় ঘটেছে।

বিগত ফলাফল পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ২০১৫ সালে এ উপজেলায় ১৭৫২ জন পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছিলো ১২৯১ জন। পাশের হার ছিলো ৭৩.৬৯%। শহরের ঐতিহ্যবাহী ২টি কলেজ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছিলো ২৭ জন শিক্ষার্থী। তন্মধ্যে নারী শিক্ষা ডিগ্রি কলেজ থেকে ১০ জন ছাত্রী জিপিএ-৫ অর্জন করে। ১৭টি জিপিএ-৫ পেয়ে উপজেলায় শীর্ষে ছিলো সদ্য জাতীয়করণের তালিকা অন্তর্ভুক্ত হওয়া বড়লেখা ডিগ্রি কলেজ।

পরীক্ষার্থী ও অভিভাবক সূত্র জানায়, নারী শিক্ষা ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে এবার বড়লেখা ডিগ্রি কলেজের পরীক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে কড়াকড়ির কারণে তাদের এমন ফলাফল বিপর্যয় ঘটেছে বলে পরীক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের বিশ্বাস। উপজেলায় ইংরেজি ও তথ্য প্রযুক্তি শিক্ষায়ও দারুণ ফলাফল বিপর্যয় ঘটেছে। কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, সংশ্লিষ্ট শিক্ষকরা পাঠদানের ক্ষেত্রে তেমন আন্তরিক নয়।

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সমীর কান্তি দেব জানান, বিগত সময়ের চেয়ে এবারের ফলাফল হতাশাজনক।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: