সর্বশেষ আপডেট : ৯ মিনিট ৫৪ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জামায়াতের প্রতি খালেদা জিয়ার পরামর্শ

150974_1নিউজ ডেস্ক:: বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গন সবসময়ই প্রায় সরব থাকে জামায়াতে ইসলামী প্রসঙ্গ নিয়ে। ভোটের রাজনীতিতে বলা হয়ে থাকে তৃতীয়স্থানে দেশের সবচেয়ে বড় ইসলামপন্থী এই দলটি।

এক সময় বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারও ১৯৯৫-৯৬ সালে বিএনপি বিরোধী আন্দোলনে রাজপথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে একতাবদ্ধ ছিল জামায়াতের সাথে।

আর বর্তমানে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটে জামায়াতে ইসলামী থাকায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রধান টার্গেটে পরিণত হয়েছে দলটি। এমনটি রাজনীতির মাঠের পুরনো সঙ্গী জামায়াতের ইসলামীর শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ এনে তাদের বিচারের মুখোমুখি করেছে। ইতোমধ্যে, দলটির সিনিয়র ৪ নেতার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছে।
জামায়াতে ইসলামী একে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বিচার বলছে। জাতিসংঘ এবং আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলোও বিচারের স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে।

সম্প্রতি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া জঙ্গিবাদ এবং দেশের সামগ্রিক পরিস্থিতিতে জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়েছেন। আর এই ঐক্যের প্রস্তাবে আওয়ামী লীগ নেতারা শর্ত জুড়ে দিয়েছেন, জামায়াতের সাথে তাদের সম্পর্ক ত্যাগ করতে হবে।

এসব বিষয় নিয়ে রবিবার বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে জোটের শীর্ষ পর্যায়ের বৈঠকে জামায়াতে ইসলামীকে কিছু পরামর্শ দিয়েছেন বেগম খালেদা জিয়া।

বিএনপির সঙ্গে জামায়াতের সখ্য নিয়ে ক্ষমতাসীনদের ধারাবাহিক অভিযোগে জামায়াত নেতারা কেন সোচ্চার হচ্ছেন না-সে বিষয়ে প্রশ্ন তুলেছেন খালেদা জিয়া।

রবিবার রাতে ২০ দলীয় জোটের শরিকদের সঙ্গে বৈঠকে উপস্থিত জামায়াতের প্রতিনিধির কাছে এই প্রশ্ন তোলেন তিনি।

প্রায় এক মাসেরও বেশি সময় পরে রাজধানীর গুলশানে বিএনপির নেত্রীর কার্যালয়ে ওই বৈঠক হয়। এতে জোটের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলার এক পর্যায়ে জোটের ঐক্যের বিষয়টিও সামনে আসে। তখন জামায়াতে ইসলামীর প্রতিনিধি দলটির কর্মপরিষদ সদস্য আবদুল হালিমের কাছে খালেদা জিয়া জানতে চান, বিএনপির সঙ্গে জামায়াতের মিত্রতা নিয়ে আওয়ামী লীগ যেভাবে ধারাবাহিক অভিযোগ আর ‘বিদ্রুপ’ করে যাচ্ছে, এ বিষয়ে জামায়াত নেতারা কথা বলছেন না কেন? তাছাড়া অন্য দলগুলো জামায়াত ছাড়ার যে শর্ত তুলছেন তাতে জামায়াত নীরব কেন?

তিনি বলেন, ‘আপনারা তো বলতে পারেন যে, ৮৬-তে, ৯০-তে, ৯৬-তে আপনারা আওয়ামী লীগের সঙ্গে থেকে, পাশে থেকে আন্দোলন করেছেন। এটা বলছেন না কেন?’ এ সময় আবদুল হালিম চুপ করে তার কথা শোনেন।

এ সময় জোটের অনেক নেতা ২০ দলকে যে কোনো মুল্যে ঐক্যবদ্ধ করার পরামর্শ দেন।

জামায়াতকে জোট থেকে বের করলে লেবার পার্টিও বেরিয়ে যাবে-এই সংক্রান্ত একটি খবরের বিষয়ে দলটির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরানের কাছে জানতে চান খালেদা জিয়া। এ সময় ইরান খবরটিকে উড়িয়ে দিয়ে বলেন, ‘ম্যাডাম এই ধরনের তথ্য সত্য নয়। এগুলো বানানো হয়। ২০ দলীয় জোটের ঐক্য নিয়ে আমার সবকিছু। এই জোটেই আছি, থাকবো।’

বৈঠক সূত্র জানায়, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া নিয়েও আলোচনা হয়েছে। এ সময় জামায়াতের পক্ষ থেকে আবদুল হালিম বলেন, ‘জাতীয় ঐক্যে ডান-বাম যেই আসতে চায় আসুক, এতে জামায়াতের কোনো অসুবিধা নেই।’ শেষ পর্যন্ত ২০ দলের আয়োজনে জাতীয় ঐক্য হতে পারে বলে এক জোট নেতা ইঙ্গিত দিয়েছেন।

রবিবার রাত পৌনে ৯ টায় বৈঠক শুরু হয়ে চলে রাত ১১টা পর্যন্ত। খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে বৈঠকে জোট নেতাদের মধ্যে লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সভাপতি কর্ণেল অলি আহামদ, জামায়াতের কর্মপরিষদ সদস্য মাওলানা আব্দুল হালিম, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি-বিজেপির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থ, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহম্মদ ইবরাহিম, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, বাংলাদেশ ন্যাপের চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গাণি, এনপিপির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাঈদ আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: