সর্বশেষ আপডেট : ৫৮ মিনিট ২৮ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ঈদকে সামনে রেখে বাসের টিকিট বিক্রি শুরু

1466425887_01ডেইলি সিলেট ডেস্ক ::
পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষ্যে  মঙ্গলবার সকাল ছয়টা থেকে বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হবে। বাস কাউন্টারের কর্মীরা মনে করছেন, এবার ৮ ও ৯ সেপ্টেম্বরের টিকিটের চাহিদা বেশি থাকবে। এসআর ট্রাভেলসের সহকারী মহাব্যবস্থাপক প্লাবন রহমান বলেন, অনেকে ৮ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার) অফিস করে ওই দিনই বাড়ির উদ্দেশে রওনা হবেন। ওই দিন যাঁরা টিকিট পাবেন না, তাঁরা পরদিন ৯ সেপ্টেম্বরের টিকিট কাটবেন। বিভিন্ন বাসের কাউন্টারে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সবাই ৮ ও ৯ সেপ্টেম্বরের টিকিটের জন্য আগে থেকে কাউন্টারে যোগাযোগ রাখছেন। কাউন্টারের টিকিট বিক্রেতারা বলেন, এই ঈদে কোরবানির পশু কিনতে অনেকে কয়েক দিন আগে থেকেই ঢাকা ছাড়তে শুরু করবেন। বাসের অগ্রিম টিকিট নিয়ে মালিক সমিতির মধ্যে কিছুটা মতবিরোধ ছিল। তাদের একাংশ ২৬ আগস্ট থেকে টিকিট বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয়। আরেক অংশ এর বিরোধিতা করে। পরে ২৩ আগস্ট থেকে টিকিট বিক্রির সিদ্ধান্ত হয়। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও সোহাগ পরিবহনের স্বত্বাধিকারী ফারুক তালুকদার বলেন, তাঁরা বৈঠক করে আগামীকাল থেকে অগ্রিম টিকিট বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সহসভাপতি ও শ্যামলী পরিবহনের স্বত্বাধিকারী রমেশ চন্দ্র ঘোষ বলেন, চেয়েছিলাম শুক্রবার থেকে অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু করতে। কেননা, শুক্রবার অফিস-আদালত বন্ধ থাকে। ওই দিন মানুষ সহজে টিকিট কিনতে পারেন। কিন্তু সমিতি যেহেতু আগামীকাল (আজ মঙ্গলবার) থেকে টিকিট বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তাই তা মানতে আমাদের আপত্তি নেই।’
এদিকে, বাংলাদেশ রেলওয়ে আগামী ৭ সেপ্টেম্বরের যাত্রার টিকেট ২৯ আগস্ট, ৮ সেপ্টেম্বরের যাত্রার টিকেট ৩০ আগস্ট, ৯ সেপ্টেম্বরের যাত্রার টিকেট ৩১ আগস্ট, ১০ সেপ্টেম্বরের যাত্রার টিকেট ১ সেপ্টেম্বর এবং ১১ সেপ্টেম্বরের যাত্রার টিকেট ২ সেপ্টেম্বর বিক্রি করবে। বাংলাদেশ রেলওয়ে ঢাকা ও চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন থেকে কর্মকর্তাদের তত্ত্বাবধানে অগ্রিম টিকেট বিক্রি করবে। টিকেট বিক্রি শুরু হবে প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে। একজন যাত্রীকে সর্বাধিক ৪টি টিকেট দেয়া হবে এবং বিক্রিত টিকেট ফেরত নেয়া হবে না। এছাড়া বাংলাদেশ রেলওয়ে পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে দুই জোড়া সোলাকিয়া স্পেশালসহ মোট ৭ জোড়া বিশেষ ট্রেন পরিচালনা করবে।যে সকল রুটে বিশেষ ট্রেন চলবে সেগুলো হলো- ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ-ঢাকা রুটে দেওয়ানগঞ্জ স্পেশাল, চট্টগ্রাম-চাঁদপুর-চট্টগ্রাম রুটে চাঁদপুর স্পেশাল-১ ও ২, পার্বতীপুর-ঢাকা-পার্বতীপুর রুটে পার্বতীপুর স্পেশাল এবং খুলনা-ঢাকা-খুলনা রুটে খুলনা স্পেশাল। বিশেষ ট্রেনগুলো ঈদের আগে ৯ সেপ্টেম্বর থেকে ১১ সেপ্টেম্বর এবং ঈদের পরে ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে ২০সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলাচল করবে। এছাড়া পবিত্র ঈদুল আজহার দিন ভৈরব-কিশোরগঞ্জ-ভৈরব এবং ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ রুটে সোলাকিয়া স্পেশাল ট্রেন চলাচল করবে।
আগামী ৭ সেপ্টেম্বর থেকে ঈদের আগের দিন পর্যন্ত আন্তঃনগর ট্রেনসমূহের (৭১১ উপকূল এক্সপ্রেস, ৭৮৫ বিজয় এক্সপ্রেস ও ৭২৬ সুন্দরবন এক্সপ্রেস ছাড়া) অফ ডে থাকবে না।পবিত্র ঈদুল আজহা শেষে যাত্রীদের যাতায়াতের সুবিধার্থে বাংলাদেশ রেলওয়ে রাজশাহী, খুলনা, রংপুর, দিনাজপুর ও লালমনিরহাট রেল স্টেশন থেকে বিশেষ ব্যবস্থাপনায় অগ্রিম টিকেট বিক্রি শুরু করবে। ১৪ সেপ্টেম্বরের যাত্রার টিকেট ৫ সেপ্টেম্বর, ১৫ সেপ্টেম্বরের যাত্রার টিকেট ৬ সেপ্টেম্বর, ১৬ সেপ্টেম্বরের যাত্রার টিকেট ৭ সেপ্টেম্বর, ১৭ সেপ্টেম্বরের যাত্রার টিকেট ৮ সেপ্টেম্বর এবং ১৮ সেপ্টেম্বরের যাত্রার টিকেট ৯ সেপ্টেম্বর বিক্রি হবে।
রেলমন্ত্রী জানান, পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে যাত্রীদের যাতায়াতের সুবিধার্থে ১৪০টি রেলওয়ে বগি মেরামত ও সংস্কার করে চলমান ট্রেনগুলোতে সংযোজন করা হবে। ঈদের সময় মোট ১ হাজার ১৪৬টি যাত্রীবাহী বগি সরবরাহ করা হবে। এছাড়া ২২০টি রেলওয়ে লোকোমোটিভ (ইঞ্জিন) সরবরাহ করা হবে।
ঢাকা, ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট, ঢাকা বিমানবন্দর, জয়দেবপুর, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ, সিলেট, রাজশাহী ও খুলনাসহ সকল বড় বড় স্টেশনে জিআরপি, আরএনবি, স্থানীয় পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি’র সহযোগিতায় টিকেট কালোবাজারি রোধে সার্বক্ষণিক প্রহরার ব্যবস্থা করা হবে। এছাড়া জেলা প্রশাসকদের সহায়তায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।মন্ত্রী জানান, চলন্ত ট্রেনে স্টেশনে বা রেললাইনে কোথাও কোন নাশকতামূলক কোন কর্মকা- না ঘটে সে জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। এছাড়া ওয়েম্যান দ্বারা নিবিড় পেট্রোলিংয়ের ব্যবস্থা গ্রহণ এবং ট্রেনগুলোতে জিআরপি টিজি পার্টি মোতায়েনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।মন্ত্রী জানান, পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে আগামী ১১ ও ১২ সেপ্টেম্বর ঢাকা-কলকাতা-ঢাকা রুটে মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেন চলাচল করবে না।
রেলপথ মন্ত্রী মুজিবুল হক সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, এবারের ঈদে প্রতিদিন গড়ে ২ লাখ ৬০ হাজার যাত্রী পরিবহন করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে, যা পবিত্র ঈদুল ফিতরের চেয়ে ১০ হাজার বেশি। তিনি বলেন, যাত্রীদের যাতায়াতের সুবিধার্থে বাংলাদেশ রেলওয়ে সর্বাত্মক সেবা প্রদান করবে। তিনি বলেন, আমদানি করা নতুন রেলওয়ের কোচ ঈদের সময় প্রয়োজনে ট্রেনগুলোতে সংযোজন করা হবে। সংবাদ সম্মেলনে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব ফিরোজ সালাহউদ্দিন, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক মোঃ আমজাদ হোসেন, অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) মোঃ হাবিবুর রহমানসহ রেলপথ মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। মোঃ মুজিবুল হক আশা প্রকাশ করেন, এবারে পবিত্র ঈদুল আজহার সময় যাত্রীদের যাতায়াত নিরাপদ, আরামদায়ক ও নির্বিঘœ হবে। এজন্য রেলওয়ের কর্মকর্তাগণ ও কর্মচারীরা তাদের সেবা প্রদান অব্যাহত রাখবে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: