সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ৩০ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

চা শ্রমিকদের নিয়ে কাজ করার ঘোষনা দিলেন হিরো আলম

unnamed (1)জীবন পাল: চা শ্রমিকদের নিয়ে কাজ করার ঘোষনা দিলেন মিডিয়া জগতের বর্তমানের আলোচিত ও পরিচিত নাম হিরো আলম। এই প্রতিবেদককে দেওয়া একান্ত সাক্ষাতকারে হিরো আলম এই ঘোষনা দেয়। প্রতিবেদককের দেওয়া সাক্ষাতকারে হিরো আলম বলেন, আমি চায়ের রাজধানী শ্রীমঙ্গলে একবার গিয়েছিলাম। তবে ভাল করে শ্রীমঙ্গলটা ঘুরে দেখা হয়নি। চা বাগান দেখার জন্যই মুলত শ্রীমঙ্গল যাওয়া হয়েছিল। তবে প্রায় প্রতি বছরও সিলেট যাওয়া হয়ে থাকে।

তিনি বলেন, ছোটবেলা থেকেই আমি অবহেলার শিকার। অবহেলার মধ্য দিয়েই অসহায় ভাবেই আমারর বেড়ে উঠা। তাই অসহায়, অবহেলি শব্দটা আমার খুবই পরিচিত।

তিনি বলেন, আমি শুনেছি চায়ের রাজধানী শ্রীমঙ্গল চা বাগান অধূষিত এলাকা এবং আমার এই সাক্ষাতকারটি নেওয়া হচ্ছে শ্রীমঙ্গলের বহুল প্রচারিত জনপ্রিয় সাপ্তাহিক পত্রিকা ‘সাপ্তাহিক শ্রীমঙ্গল বার্তা’ পত্রিকায় প্রকাশের জন্য। সেহেতু আমি এই প্রতিবেদকসহ শ্রীমঙ্গল কার্তা পত্রিকার সম্পাদক এবং পত্রিকার সাথে জড়িত সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

unnamed সেই সাথে আপনাদের শ্রীমঙ্গলের বহুল প্রচারিত এই পত্রিকার মাধ্যমে আমি শ্রীমঙ্গলবাসীকে জানাতে চাচ্ছি, চা বাগান অধূষিত এই এলাকার চা বাগানে কর্মরত চা শ্রমিকদের জীবন নিয়ে আমি হিরো আলম নিজ উদ্যোগে কাজ করতে চাচ্ছি। যেভাবে আমি হিরো আলম নিজ উদ্যোগে আমাকে সারা বিশ্বের কাছে তুলে ধরেছি সেভাবে আমি আমাদের অবহেলিত অসহায় এই চা শ্রমিক জনগোষ্ঠীদের বিশ্ব দরবারে তুলে ধরতে চাই। এখন আমাকে দিয়ে কাজ করাতে যেভাবে অনেকে আগ্রহ প্রকাশ করছে, আমি চাই এই সব অবহেলিত চা শ্রমিকদের ন্যায মজুরী আদায়েও যেন আমার ভক্তরা আগ্রহী হয়ে উঠে। এই কথাটা শুনে অনেক অবাক ও কষ্ট পেলাম যে, যেখানে বর্তমানে একজন রিক্সা ড্রাইভার সারাদিনে ৫০০/৭০০ টাকা আয় করে। একজন দিন মজুরের দৈনিক পারশ্রমিক ৩০০-৪০০ টাকা সেখানে নাকি একজন চা শ্রমিকের দৈনিক মজুরী দেওয়া হয় ৮৫ টাকা। এ থেকে বুঝায় যায়, চা শ্রমিকরা আজও বাংলাদেশে কত অবহেলিত, কতটা কষ্টে অতিবাহিত করছে এদের জীবন। যে চা ছাড়া আমাদের প্রতিদিনের অফিস,আদালত, পাড়া,মহল্লার আড্ডা জমে না, যে চা দেশ ছাড়িয়ে চাহিদা মিটাচ্ছে ভীনদেশীদেরও। অর্জন করে চলেছে বৈদিশিক মুদ্রা। সেই চা এর মুল কারিগর তথা যাদের হাতের ছোঁয়ায় চা পাতা তার সার্থকতা খোঁজে পায়, সেই চা শ্রমিকরা আজও বঞ্জিত তাদের ন্যায মজুরী থেকে। আমি জানিনা এর নীতিমালা কি, তবে নীতিমালা জায় হউক, নৈতিক দিক দিয়ে সকলেরই বিবেচনা করা উচিত।

unnamed (2)আমি হিরো আলম কথা দিচ্ছি, এই অবহেলিত, অসহায় জনগোষ্ঠীদের যতটা সম্ভব আমি সহযোগিতা করে যাবো। আর এই সহযোগিতার প্রথম ধাপ হিসেবে আমি ঈদুল আজহার পর পরই শ্রীমঙ্গলে এসে চা শ্রমিকদের নিয়ে একটি কাজ শুরু করার ঘোষনা দিলাম।

হিরো আলম আরো বলেন, আমাকে নিয়ে সিলেটের মানুষদের আগ্রহের পরিপ্রেক্ষিতে সিলেটের জনপ্রিয় পত্রিকা ডেইলি সিলেটের হয়ে সিলেটে আমাকে নিয়ে প্রথম নিউজ কাভার করে সেই পত্রিকার রিপোর্টার জীবন পাল। আমি সাংবাদিক জীবন পালসহ ডেইলি সিলেট পরিবারের সকলের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। সেই সাথে লেখালেখির সাথে জড়িত থাকায় সাংবাদিক জীবন পালকে চা শ্রমিকদের জীবনী নিয়ে একটি স্ক্রিপ্ট লিখার কথা বলেছি, যে স্ক্রিপ্ট অনুযায়ী ঈদের পর আমি আমার প্রথম কাজ হিসেবে বাংলাদেশের চা শ্রমিক জনগোষ্ঠীদের নিয়ে করতে পারি। সেই সাথে শ্রীমঙ্গলবাসীর উদ্দ্যেশে আমি বলবো, আমি হিরো আলম আপনাদের ভালবাসার কাঙ্খিত ফসল। আমি আপনাদের জন্য, আপনাদের এলাকার জন্য একটি কাজ করার আগ্রহ পোষন করেছি। আমার বিশ্বাস আপনারা আমাকে আপনাদের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিবেন। আপনাদেরকে, বাংলাদেশ মিডিয়া জগতকে ভাল কিছু উপহার দেওয়ায় আমার মূল উদ্দ্যেশ।

পরিশেষে আবারও বলতে চাই, শ্রীমঙ্গলবাসীর কাছে আমাকে তুলে ধরার জন্য এবং শ্রীমঙ্গলবাসীদের জন্য আমাকে কাজ করার ক্ষেত্রে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য সাপ্তাহিক শ্রীমঙ্গল বার্তাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। দেখা হচ্ছে ঈদের পর। চায়ের রাজ্যের গল্প নিয়ে আমি হিরো আলম আসছি চায়ের রাজধানীতে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: