সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ১৭ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

অভিজিৎ হত্যায় ৬ সন্দেহভাজন খুনীর ভিডিও প্রকাশ

full_1104660715_1471782231নিউজ ডেস্ক: লেখক ও ব্লগার ড. অভিজিৎ রায় হত্যাকাণ্ডের প্রায় দেড় বছর পর সন্দেহভাজন খুনিদের ৭টি ভিডিও প্রকাশ করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ-ডিএমপি। এসব ভিডিওতে অভিজিতের অনুসরণকারী সন্দেহভাজন খুনিদের শনাক্ত করে তাদের ধরিয়ে দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার (মিডিয়া) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আজ দুপুরে এই ছয়জনের ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিএমপির গণমাধ্যম শাখার উপকমিশনার মাসুদুর রহমান।

মোট সাতটি ভিডিও ফুটেজ থেকে ছয়জনকে সন্দেহভাজন খুনি হিসেবে পুলিশ চিহ্নিত করেছে। তবে এদের নাম–পরিচয় সম্পর্কে এখনো তারা নিশ্চিত হতে পারেনি। ভিডিওর ছবি দেখে কেউ এদের শনাক্ত করতে পারলে তাদের সে সম্পর্কিত তথ্য জানানোর জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে।

অভিজিৎ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক অজয় রায়ের ছেলে। তিনি পেশায় একজন প্রকৌশলী। তিনি বাংলাদেশের মুক্ত চিন্তার আন্দোলনে যুক্ত ছিলেন। এছাড়া তিনি বাংলাদেশে সরকার সেন্সরশিপ এবং ব্লগারদের কারাদণ্ডের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক প্রতিবাদের সমন্বয়কারক ছিলেন।

২০১৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি একুশে বইমেলা থেকে বেরিয়ে আসার পথে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির বিপরীত পাশে খুন হন অভিজিৎ রায়। এ সময় দুর্বৃত্তদের ধারালো চাপাতির আঘাতে অভিজিতের স্ত্রী বন্যা আহমেদও গুরুত্বর আহত হন।

প্রকাশিত ফুটেজে দেখা যায়, অভিজিৎ রায় ও তার স্ত্রী বন্যা আহমেদ বইমেলায় যখন ঘুরছিলেন, তখন তাদের অনুসরণ করছিল কয়েকজন তরুণ। পৃথক সিসিটিভি ফুটেজে আলাদা তরুণদের দেখা গেছে। প্রথম ফুটেজে দেখা যায়, অভিজিৎ ও বন্যার পেছনে এক তরুণ মোবাইল টিপতে টিপতে অনুসরণ করছে। রাত তখন ৮টা ৪৪ মিনিট। পাশে ব্যাগ কাঁধে এক তরুণকে যেতে দেখা যায়। এছাড়া তার পাশে স্বাস্থ্যবান এক তরুণও ছিল। যার চোখে চশমা দেখা গেছে। দ্বিতীয় ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে অভিজিৎ ও বন্যা বইমেলার গেট দিয়ে বের হয়ে আসছেন। তাদের পেছনে-পেছনে ওই তিনজনকেই দেখা যাচ্ছে। সন্দেহভাজন খুনিরা বাইরে বেরিয়ে আসার সময় মোবাইলে কারও সঙ্গে যোগাযোগ করছিল।

আরেক ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, সন্দেহভাজন এক তরুণ বইমেলার মূল ফটকের বাইরে দাঁড়িয়ে রয়েছেন। সময় তখন বিকেল ৪টা ১ মিনিট। তার হাতেও মোবাইল। গায়ে শর্ট পাঞ্জাবি রয়েছে। মুখে হালকা দাঁড়িওয়ালা এই তরুণকে মেলার ফটকের কংক্রিটের চেয়ারে বসে থাকতেও দেখা যায়। অন্য এক ফুটেজে দেখা যায়, আরেক তরুণের সঙ্গে তিনি মেলার ভেতরে প্রবেশ করছেন। প্রায় একই সময়ে এক তরুণ সাইকেল নিয়ে মেলায় প্রবেশ করে। বিকেল ৪ টা ২৪ মিনিটে ওই তরুণকে ভেতর থেকে সাইকেল নিয়ে বেরিয়ে আসতে দেখা যায়। ঘটনার দিন সন্ধ্যা ৭টা ১৭ মিনিটে সাদা শার্ট গায়ে আরেক তরুণকে মেলা থেকে বেড়িয়ে আসতে দেখা যায়। এই যুবকের গালেও হালকা দাঁড়ি রয়েছে।

মামলার তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, অভিজিৎ রায় মেলায় ঢোকার আগে থেকেই সংঘবদ্ধ খুনি চক্র মেলার গেটে গিয়ে অবস্থান করছিল। অভিজিৎ রায় মেলায় ঢোকার পর থেকেই তাকে অনুসরণ করতে থাকে। মেলা থেকে বেরিয়ে আসার পর তাকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানান, ভিডিও ফুটেজে অন্তত ছয় তরুণকে দেখা গেছে। যারা সবাই অভিজিৎকে অনুসরণ করছিল। হত্যাকাণ্ডে অংশ নিয়েছিল দুই তরুণ। অন্যরা আশেপাশেই অবস্থান করছিল বলে তদন্ত কর্মকর্তাদের ধারণা। তদন্ত সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা জানান, ভিডিও ফুটেজে যার কাঁধে ব্যাগ ছিল সে হত্যাকাণ্ডে সরাসরি অংশ নিয়েছিল বলে তাদের ধারণা। কারণ ব্যাগের ভেতর থেকেই চাপাতি বের করে অভিজিতের ওপর আক্রমণ করা হয়। ছয়জনের মধ্যে শরীফ নামের একজন পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: