সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ৫১ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আনন্দে মাতল ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ

cantonmentpablicschoolcallegeবিশেষ প্রতিবেদক ::
নিজেদের সেরা অবস্থান ধরে রাখতে সবসময়ই মরিয়া জালালাবাদ ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ। এবারের উচ্চমাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষায়ও তার ব্যত্যয় ঘটেনি। এবার এইচএসসি পরীক্ষায় ফলাফল বিপর্যয় ঘটলেও এ প্রতিষ্ঠানটি শতভাগ ফলাফল অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১টায় অনুষ্ঠানিক ফলাফল প্রকাশ করেন প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ লে. কর্নেল মোহাম্মদ ইকবাল-উর-রহমান। শতভাগ ফলাফল অর্জনের ঘোষণার সাথে সাথে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকরা মেতে ওঠেন আনন্দ-উচ্ছ্বাসে। খোদ অধ্যক্ষ লে. কর্নেল মোহাম্মদ ইকবাল-উর রহমানও ছিলেন প্রফুল্ল। তিনিও আনন্দে শিক্ষার্থীদের সাথে কুশল বিনিময় করেন। শিক্ষার্থীদের আবদার মেটাতে মোবাইলফোনে হন সেলফিবন্দি।
জালালাবাদ ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এবারের এইচএসসি পরীক্ষায় ৪৬৮ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে সকলেই উত্তীর্ণ হয়েছে। এ প্লাস পেয়েছে ৩৭৩ জন, এ গ্রেডে পাস করেছে ৯৪ জন এবং এ মাইনাস পেয়েছে একজন। এরমধ্যে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে ২২৬ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে ২২৫ জনই এ প্লাস পেয়েছে এবং একজন পরীক্ষার্থী এ গ্রেডে উত্তীর্ণ হয়। মানবিক বিভাগ থেকে ৯০ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে ৫১ জন এ প্লাস এবং ৩৯ জন এ গ্রেডে পাস করে। বাণিজ্যিক বিভাগ থেকে ১৫২ জন অংশ নিয়ে ৯৭ জন এ প্লাস, ৫৪ জন এ গ্রেড এবং একজন এ মাইনাস পেয়েছে।
মাইকে ফলাফল ঘোষণার সময় জালালাবাদ ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ লে. কর্নেল মোহাম্মদ ইকবাল-উর-রহমান বলেন, ‘এবারও আমাদের শিক্ষার্থীরা শতভাগ ফলাফল অর্জন করেছে। তোমাদেরকে বলতে চাই, যে যেমনই ফলাফল অর্জন করোনা কেন, পরবর্তী সময়ে যেন তোমরা আরো ভালো ফলাফল অর্জন করতে পারো। আমরা আরো ভালো ফলাফল আশা করেছিলাম। এরপরও এবার সিলেট শিক্ষাবোর্ডের ফলাফলে আমরাই ভালো করেছি। তিনি বলেন, আমার মনে হয় আমরাই শীর্ষে আছি। আর বিজ্ঞানে আমরা অনেক ভালো করেছি। যা দেশের অন্যান্য প্রতিষ্ঠান থেকেও উপরে। তবে বাণিজ্যিকে আরো ভালো করলে ভালো হতো। ফলাফল প্রকাশের পর এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি সবুজ সিলেটকে বলেন, অন্যবছরের চেয়ে এবার এ প্লাস কম এসেছে। তবুও আমরা ভালো করেছি। আমাদের শতভাগ শিক্ষার্থীই উত্তীর্ণ হয়েছে। শিক্ষার্থী, প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও অভিভাবকদের সমন্নয়ে এ ফলাফল অর্জনে ভূমিকা রেখেছে। বিশেষ করে যেসকল শিক্ষার্থী কিছুটা দুর্বল তাদের বাড়িতে গিয়েও শিক্ষককেরা উৎসাহিত করে ভালো ফলাফল অর্জনে ভূমিকা রেখেছেন। সার্বিক বিবেচনায় অনেক ভালো ফলাফল অর্জিত হয়েছে। বিজ্ঞানে সবচেয়ে ভালো করেছে পরীক্ষার্থীরা।
বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এ প্লাস পাওয়া তানিয়া আফরুজ তিশা বলে, ‘আমার জন্য সবচেয়ে বেশি কষ্ট করেছেন বাবা পাসাপাশি মা এবং শিক্ষককেরাও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। বিশেষ করে রসায়ন বিজ্ঞানের শিক্ষক আনোয়ার স্যারের কাছে আমি চিরকৃতজ্ঞ। স্যার আমার জন্য অনেক কষ্ট করেছেন। সবার দোয়া আর পরিশ্রমে আমি ভালো ফলাফল অর্জন করেছি। তিশা বলে, ভবিষ্যতে সে ড. ডিগ্রি অর্জন করতে চায়।’
বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এ প্লাস পাওয়া তারিন বলে, ‘মা-বাবা আর শিক্ষকদের কষ্টে আমি ভালো ফলাফল অর্জন করেছি। আমি শাবিতে পড়তে চাই।’
মানবিক বিভাগ থেকে এ প্লাস পাওয়া সুমি রিতা বলে, মানবসেবার জন্য ভবিষ্যতে শিক্ষকতার পেশায় নিজেকে জড়াতে চাই। ভালো ফলাফল অর্জনের জন্য মা-বাবা ও শিক্ষকদের অবদানই সবচেয়ে বেশি।
বাণিজ্যিক বিভাগ থেকে এ প্লাস পাওয়া মোস্তাফিজুর রহমান বলে, ভবিষ্যতে একজন চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট (সিএ) হতে চাই। সে বলে ভালো ফলাফলের জন্য শুধু বাবা-মা আর শিক্ষকই নন; বন্ধুরাও সহযোগিতা করেছে।
বাণিজ্যিক বিভাগ থেকে এ প্লাস পাওয়া মারুফ হাসান ভবিষ্যতে ফাইন্যান্স চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট (এফসিআই) হতে চায়। তাঁর বন্ধু রেদওয়ান আহমদ হতে চায় চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট (সিএ)। তারা ভালো ফলাফলের জন্য বাবা-মা এবং শিক্ষকের অবদানের কথা জানিয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: