সর্বশেষ আপডেট : ৫ মিনিট ৩৮ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

কেন বাংলাদেশ পুলিশ আমাকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে? প্রশ্ন জঙ্গি মুসার

musa-550x367নিউজ ডেস্ক : গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলা ও এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার মিতু হত্যার ‘মূলহোতা’ হিসেবে মুহাম্মদ মসিউদ্দিন ওরফে আবু আল মুসাকে দুইদিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছেন কলকাতার একটি আদালত।
মঙ্গলবার কলকাতার নগর দায়রা আদালত এ আদেশ দেন। ভারতের জাতীয় তদন্ত সংস্থার (এনআইএ) পক্ষ থেকে মুসাকে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করা হয়।

এদিকে এনআইএ রিমান্ডের প্রতিবাদ জানিয়ে অনশনে বসার হুমকি দিয়েছে সন্দেহভাজন আইএস জঙ্গি মুসা। মঙ্গলবার কলকাতার নগর দায়রা আদালতের বিচারকের কাছে মুসার অভিযোগ করেন, অত্যাচার করার জন্যই তাকে রিমান্ডে চাইছে এনআইএ। বাংলাদেশ পুলিশ কেন তাকে জেরা করবে এ নিয়েও প্রশ্ন তুলেছে ওই  জঙ্গি। এরপরই আদালতে দাঁড়িয়ে আইএস জঙ্গি সন্দেহে ধৃত মুসা হুমকি দেয়, এখনই ফাঁসি না দিলে অনশন শুরু করবে সে।

এদিন মুসাকে নিজেদের হেফাজতে চেয়ে আদালতে আবেদন জানায় ভারতের জাতীয় তদন্ত সংস্থা এনআইএ। একথা শুনেই আদালত কক্ষে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে মুসা। চিৎকার করে বিচারককে বলে, ‘আমায় অত্যাচার করার জন্য হেফাজতে চাইছে এনআইএ। কেন বাংলাদেশ পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করবে?

একইসঙ্গে এনআইএ হেফাজতে যাওয়া থেকে বাঁচতে কখনও মুসা অনশনে বসার হুমকি দেয়, আবার কখনও ফাঁসির আর্জি জানায়। আদালতে কক্ষে মুসার মন্তব্য, ‘এখনই আমায় ফাঁসি দিন নয়তো আমি অনশনে বসব।’
এদিকে, বাংলাদেশ থেকে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল কলকাতায় পৌঁছেছে। তারা মুসাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এনআইএর আইনজীবী শ্যামল ঘোষ জানান, আবেদনে সাড়া দিয়ে মুসাকে দুইদিনের রিমান্ডে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক ।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এনআইএর রিমান্ডে থাকার সময়েই বাংলাদেশের র‌্যাবের প্রতিনিধিদল মুসাকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে।
আইনজীবী শ্যামল ঘোষ বলেন, ‘আমরা এনআইএর পক্ষ থেকে আদালতে মুসাকে দুইদিনের হেফাজতে নেওয়ার জন্য আবেদন করেছিলাম। আমাদের সেই আবেদন মঞ্জুর করেছেন বিচারক।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ থেকে আসা প্রতিনিধিদল মুসাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চাইলে করবে।’
গত ৬ জুলাই পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান রেলস্টেশন থেকে  মুসাকে আটক করে রেল পুলিশ। তাঁর কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র, তিনটি গুলি, একটি ধারালো অস্ত্র এবং আফগানিস্তান ও সিরিয়ার মুদ্রা উদ্ধারের কথা জানায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক খবরে বলা হয়, মুসাকে জেরা করে ভারতীয় গোয়েন্দারা জানতে পারে, ভারত-বাংলাদেশের দায়িত্বপ্রাপ্ত জেএমবি (জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ) নেতা মুহাম্মদ সুলেইমানের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল মুসার। মুসা মূলত পশ্চিমবঙ্গে কোনো অমুসলিম ব্যক্তিকে খুন করে এবং তার সঙ্গিনীকে ধর্ষণ করে ভিডিওচিত্র ইন্টারনেটে ছড়িয়ে ভারতে আইএসের উপস্থিতি জানাতে চেয়েছিলেন। আর ভিডিওটা সুলেইমানের হাতে তুলে দেওয়ার কথা ছিল তাঁর। এক পর্যায়ে বিষয়টি ভারতের পক্ষ থেকে বাংলাদেশকে জানানো হয়। এ কারণে বাংলাদেশ থেকে র‌্যাবের প্রতিনিধিদল ভারতে যায়। সূত্র : জিনিউজ, সাময়িক প্রসঙ্গ,টাইমস অব ইন্ডিয়া ও এবিপি নিউজ।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: