সর্বশেষ আপডেট : ৬ মিনিট ২৬ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নিজে উপস্থিত থেকে সব তদারকি করতে চেয়েছেন হাসনাত!

full_173340679_1471415781নিউজ ডেস্ক: বর্তমানে পুলিশ রিমান্ডে থাকা হাসনাত করিম হলি আর্টিজানে হামলার ১৬ ঘণ্টা আগেই জঙ্গি নিবরাস ইসলামকে বিশেষ বার্তা পাঠিয়েছিলেন। বিশেষ একটি অ্যাপস ব্যবহার করে ১ জুলাই রাত ৮টায় তার সহযোগীদের নিয়ে হলি আর্টিজানে আসতে নির্দেশনা দেন হাসনাত।

একটি সূত্র জানায়, হামলায় সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে হাসনাত করিমের বিরুদ্ধে প্রাথমিকভাবে এসব তথ্য পাওয়ার পর তাকে এ মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়।

হামলার আগের দিন নিবরাস ইসলামের সঙ্গে তার প্রায় ১০ মিনিট মেসেজ আদান-প্রদান হয়। যেখানে হামলা পরিচালনার আর এক মাস্টারমাইন্ড মারজান প্রসঙ্গও চলে আসে। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন সেট থেকেও হত্যাকাণ্ডের পর নিহতদের ছবি ও ভিডিও পাঠানোর প্রমাণও মিলেছে। তদন্ত সংশ্লিষ্ট নির্ভরযোগ্য সূত্রে গুরুত্বপূর্ণ এসব তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, ৩০ জুন ভোর ৪টা ১০ মিনিট থেকে ৪টা ২০ মিনিট পর্যন্ত হাসনাত করিম জঙ্গি নিবরাস ইসলামের সঙ্গে মেসেজের মাধ্যমে বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য আদান-প্রদান করেন। এজন্য হাসনাত করিম তার ল্যাপটপ থেকে উইকার অ্যাপস ব্যবহার করেন।

কঠোর গোপনীয়তা রক্ষার অংশ হিসেবে অপরিচিত এই অ্যাপটি ব্যবহার করা হয়। সূত্রটি জানায়, তথ্য আদান-প্রদানের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ মেসেজে হাসনাত করিম নিবরাসকে জানান, ‘আগামীকাল রাত ৮টায় তোমরা হলি আর্টিজানে চলে এস। আমি রেস্টুুরেন্টের সামনে গ্রাউন্ডে ছাতার নিচে একটি টেবিলে থাকব।’ ইংরেজিতে লেখা তথ্য আদান-প্রদানের একস্থানে জঙ্গি নেতা মারজানের প্রসঙ্গও আসে। এ মারজানের বিস্তারিত ঠিকানা সোমবার জানা গেলেও এর আগে তার পরিচয়ের বিষয়টি এক রকম অন্ধকারে ছিল। পুরো নাম নুরুল ইসলাম মারজান। গ্রামের বাড়ি পাবনার সদর থানায়। গতকাল তার বাবা নিজাম উদ্দিনকেও আটক করা হয়।

এদিকে গুলশান হামলায় সম্পৃক্ততার বিষয়ে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক হাসনাত করিমের বিরুদ্ধে এ রকম গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বেরিয়ে আসায় তদন্ত সংশ্লিষ্টরা অবাক হলেও তদন্তের অগ্রগতির বিষয়ে অনেকটা আশাবাদী। বিশেষ করে এর শেকড়ের সন্ধান তারা দ্রুত বের করতে পারবেন বলে মনে করছেন।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা বলেন, হাসনাত ও তার পরিবারের পক্ষ থেকে বারবার বলা হচ্ছিল, মেয়ের জন্মদিন পালন করার জন্যই সে রাতে তারা হলি আর্টিজানে হাজির হয়েছিলেন। এ বিষয়টি নিয়ে নানা প্রশ্ন থাকলেও এখন পর্যন্ত একটা বিষয় নিশ্চিত হওয়া গেছে যে, হাসনাত করিম হলি আর্টিজানে হামলার পুরো বিষয়টি নিজে উপস্থিত থেকে তদারকি করতে চেয়েছেন।

সময় সময়ে প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি। একপর্যায়ে অপারেশন থান্ডারবোল্ড শুরু হওয়ার আগ মুহূর্তে সপরিবারে নিরাপদে বেরিয়ে আসেন তিনি। তারা ভেবেছিলেন, মেয়ের জন্মদিনের তারিখের বিষয়টি সামনে রাখবেন। সেক্ষেত্রে তিনি জন্মদিনের অজুহাত দেখাতে কৌশলে এই দিনটিই বেছে নিয়েছিলেন।

সূত্রটি জানায়, অধিকতর তদন্তের অংশ হিসেবে দ্বিতীয় দফায় হাসনাত করিমকে শনিবার ৮ দিনের রিমান্ডে এনেছে তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। আশা করছেন, এই সময়ের মধ্যেই তার কাছ থেকে আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উদ্ধার করতে সক্ষম হবেন।

প্রসঙ্গত ১ জুলাই রাতে গুলশানের ৭৯ নম্বর সড়কের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলা চালায় জঙ্গিরা। তারা ১৭ বিদেশীসহ ২০ জনকে জবাই করে হত্যা করে। জঙ্গিদের প্রতিরোধ করতে গিয়ে প্রথমেই হামলায় নিহত হন দুই পুলিশ কর্মকর্তা। পরদিন সশস্ত্র বাহিনীর নেতৃত্বে পরিচালিত অপারেশন ‘থান্ডারবোল্টে’ সন্দেহভাজন একজনসহ ৬ জন জঙ্গি নিহত হয়। এছাড়া জিম্মি অবস্থা থেকে উদ্ধার করা হয় ৩২ জনকে। সূত্র: যুগান্তর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: