সর্বশেষ আপডেট : ৭ মিনিট ৩৬ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

মোদির বক্তব্য পাকিস্তানকে বিভেদের দিকে ঠেলে দিবে : সারতাজ আজিজ

aziz-550x413নিউজ ডেস্ক: পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক পরামর্শদাতা সারতাজ আজিজ বেলুচিস্তান নিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা করে বলেছেন, এধরনের মন্তব্য পররাষ্ট্রনীতির শিষ্টাচার বিরোধী। তিনি বলেন, মোদি’র এধরনের ‘বিষাক্ত’ বক্তব্য পাকিস্তানকে বিভেদের দিকে ঠেলে দিবে এবং সন্ত্রাসবাদ সৃষ্টি করবে।

তিনি আরো বলেন, ২০১৬ সালে পাকিস্তান গোয়েন্দা সংস্থা ভারতের র’এর একজন সদস্যকে ইরান থেকে বেলুচিস্তান আসার সময় আটক করেছে। ভারতের নৌ-বাহিনীর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা কূলভূষণ যাদব তার এক ভিডিওতে বলেছেন, র’পাকিস্তানকে অস্থিতিশীল করে তুলছে, বিশেষ করে কাশ্মীর এবং বেলুচিস্তানে। পাকিস্তানের অবিচ্ছেদ্য অংশ বেলুচিস্তান সম্পর্কে মোদির মন্তব্য র’ এর বেলুচিস্তানে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করার পেছনে পাকিস্তানের যুক্তি সত্যি বলে প্রমাণ করে। তাছাড়া এটি নৌ-কর্মকর্তা কূলভূষণ যাদবের মন্তব্য থেকে জনগণের কাছে সুষ্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয়েছে।

আজিজ আরো বলেন, মোদি এখন গত ৫ সপ্তাহে ভারত অধ্যুষিত কাশ্মীরের নির্মম ইতিহাস বিশ্বের কাছে আড়াল করতে চাইছে। এতে বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠীর নেতা জনপ্রিয় তরুণ বুরহান ওয়ানিকে হত্যা করা হয়। বিক্ষোভ বন্ধের জন্য ভারতীয় বাহিনী উপত্যকায় কারফিউ জারি করেছে ও পাশবিকভাবে অত্যাচার চালিয়ে হত্যাকা-ের ঘটনা ঘটিয়েছে। এক হাজারেরও বেশি আহত হয়েছে। গত ৩৭ দিনে কাশ্মীরে কারফিউ জারি এবং গণমাধ্যমের প্রবেশ বন্ধ রাখা হয়েছে। কাশ্মীরে তরুণরা তাদের অধিকার আদায়ের জন্য আন্দোলন করে। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে ও নির্যাতনে ৭০ জন অসহায় কাশ্মীরী নাগরিক নিহত এবং ৬ হাজারেরও বেশি আহত হয়েছে।
আজিজ বলেন, এই ঘটনা কোন সন্ত্রাসবাদ নয়। এটি আত্মসচেতনতায় উদ্বুদ্ধ হয়ে ওঠা কাশ্মীরি জনগণের আন্দেলন। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে কাশ্মীরিদের অধিকারের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হতে হবে। ভারত অধিকৃত কাশ্মীরের পরিস্থিতি কখনোই আজাদী কাশ্মীরের সাথে তুলনা করা যাবে না।

আজিজ বলেন, ভারত সারা বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ কিন্তু বৃহত্তম হয়েও এটি বিশ্বে সেরা দেশ হতে পারল না। বিশেষ করে যখন এটি নিরাপরাধ নাগরিকদের বিরুদ্ধে পাশবিক অত্যাচার চালায় এবং তাদের অধিকার দমন করে। যখন এটি ১০০’রও বেশি তরুণ কাশ্মীরিদের দৃষ্টিশক্তি চিরতরে মুছে দেয়ার জন্য প্যালেট বন্দুক ব্যবহৃার করে।
তিনি বলেন, ভারত কখনোই এটি বুঝতে পারে না যে কাশ্মীর ইস্যুকে বন্দুক দিয়ে সমাধান করা যাবে না। এর জন্য রাজনৈতিক সমাধান প্রয়োজন। এবং ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণভাবে আলোচনার প্রয়োজন। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের রেজ্যুলেশন অনুযায়ী জম্মু-কাশ্মীরের সংঘাত ভারত-পাকিস্তানের উভয় দেশেরই আন্তর্জাতিক বাধ্যবাধকতা তুলে ধরে । কিন্তু পাকিস্তান আলোচনার আহ্ববান জানিয়েও ভারতের কাছ থেকে কোন ইতিবাচক সাড়া পায় নি। ভারত ইসলামবাদে সন্ত্রাসী উদ্বেগ ছাড়া আর কোন বিষয়ে আলোচনার জন্য আগ্রহী না। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: