সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শ্রীমঙ্গলে উপবৃত্তির টাকা আত্মসাতের অভিযোগের তদন্ত নিয়ে গড়িমসি

14নিজস্ব সংবাদদাতা: শ্রীমঙ্গলের জাম্বুরা ছড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষককের বিরুদ্ধে ছাত্রছাত্রীদের উপবৃত্তির টাকা আত্মসাত, খেলার মাঠ দখলসহ বিভিন্ন অভিযোগের দুই সপ্তাহ পেড়িয়ে গেলেও এর কিছুই হয়নি। এখন পর্যন্ত উপজেলা শিক্ষা অফিস এব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া এমনকি তদন্তের দিনক্ষণ ঠিক করতে পারেনি।

এদিকে অভিযোগকারী অভিভাবকরা তাদের অভিযোগের দুই সপ্তাহ পেড়িয়ে গেলেও শিক্ষা অফিসের কোন তদন্ত বা প্রয়োজনীয় কোন ব্যবস্থা না নেওয়া ক্ষোভ প্রকাশ করছেন।

লিখিত অভিযোগে জানা যায়, ২৮ জুলাই ২০১৬ প্রায় শতাধিক অভিভাবক স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ শ্রীমঙ্গল উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর সরেজমিন তদন্ত পুর্বক ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন।

এতে বলা হয়, উপজেলার সিন্দুর খান ইউনিয়নের জাম্বুরা ছড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুর রশিদ সভাপতির দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে বিভিন্ন অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন। স্কুলের গরীব ছাত্র/ছাত্রীদের উপবৃত্তির টাকা, বিভিন্ন অনুদানের টাকা প্রধান শিক্ষকের যোগসাজসে একের পর এক আত্মসাৎ করে যাচ্ছেন।

আব্দুর রসিদ স্কুলের জায়গা দখলসহ এমনকি স্কুলের কোমমলমতি শিশুদের একমাত্র খেলাধুলার মাঠটি পর্যন্ত তিনি দখল করে নিয়ে গেছেন। আব্দুর রশিদ ও তার সহযোগীদের এসব অন্যায় ও অনিয়মের বিরোদ্ধে অনেকেই আবার মুখ খুলতে সাহস পাননি। তবে কিছু অভিভাবক তাদের এসব অপকর্ম ও অন্যায়ের বিরোদ্ধে মুখ খুলতে শুরু করছেন এবং শ্রীমঙ্গল উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবরে সরেজমিন তদন্ত পুর্বক ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন।

এ অভিযোগের ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোশারফ হোসেন জানান, তিনি অভিভাবকদের একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন। এ সপ্তাহে সরেজমিন তদন্ত পুর্বক ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান।
ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুর রশিদ তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা বানোয়াট বলে পাল্টা অভিযোগ তুলেন। তিনি বলেন একটি মহলতার ও স্কুলের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে এসব মানহানিকর অভিযোগ তুলছে। প্রধান শিক্ষক রঞ্জিত সোমও তারঁ বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যার বেসাতি বলে আখ্যায়িত করেন।
শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোশারফ হোসেন জানান, তিনি অভিভাবকদের একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন। পরীক্ষাসহ বিভিন্ন কারনে তদন্ত করতে একটু দেরী হচ্ছে। তবে এ সপ্তাহের মধ্যে সরেজমিন তদন্ত পুর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান তিনি।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: