সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

স্বপ্ন ভঙ্গের একটি চেয়ার

yyyyyyyyyyyyyyyyনিউজ ডেস্ক : এটি স্বপ্ন ভঙ্গের একটি চেয়ার। বিশেষ মর্যাদা না পাওয়া ‘অতৃপ্ততা’ লেগে থাকার চেয়ার। শত আবেগ আর ভালোবাসায় তৈরি চেয়ার।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি করে একটি চেয়ার। যে চেয়ারে বসে স্বাধীন বাংলাদেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সমাবর্তনের আয়োজন দেখার কথা ছিল বঙ্গবন্ধুর। সমাবর্তনে বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য হিসেবে প্রথম কোনো রাষ্ট্রপতির বসার কথা ছিল এই চেয়ারে। কিন্তু শত আবেগ ও ভালোবাসা চূর্ণ হয় ১৫ আগস্ট ভোর বেলায়। ঘাতকের বুলেটে ক্ষত বিক্ষত হয় বঙ্গবন্ধুর দেহ। রাষ্ট্রপতি হিসেবে আসা হয়নি প্রিয় ক্যাম্পাসে। বসা হয়নি শত আবেগের সংমিশ্রণে তৈরি চেয়ারে। বিশেষ মর্যাদা পায়নি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।
শতাব্দীর চার দশক পেরিয়ে আজও চেয়ারটি সে দিনটির সাক্ষী হয়ে রয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের (টিএসসি) তৃতীয় তলায় সংরক্ষিত রয়েছে চেয়ারটি। দীর্ঘদিন যাবৎ অযতেœ অবহেলায় পড়ে থাকা চেয়ারটিতে এবার সংস্কার করা হয়েছে। টিএসসির পরিচালক মহিউজ্জামান চৌধুরীর তত্ত্বাবধানে চেয়ারটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়। তবে সংস্কারে কিছুটা পরিবর্তন এসেছে এতে। নতুনভাবে লাগানো হয়েছে কাভার। করা হয়েছে বাইন্ডিং। এছাড়াও চেয়ারটিকে একটি গ্লাস বক্সে সংরক্ষিত করা হয়েছে।
সদ্য এলপিআর এ যাওয়া টিএসসির তৎকালীন কর্মচারী আবু জাফর বলেন, ১৪ আগস্ট বঙ্গবন্ধু আসবেন বলে আমরা সব ধরণের প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিলাম। পুরো টিএসসি জুড়ে ছিল সাজ সাজ রব। টিএসসি অডিটোরিয়াম ছাড়াও বাহিরের মাঠ ও সুইমিং পুলেও বসার ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

তিনি বলেন, ১৫ আগস্ট এই চেয়ারটিতে বসার কথা ছিল বঙ্গবন্ধুর। চেয়ারটির কাজ শেষ হয় আগের দিন। আমরা সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করে রাতে বাসায় ফিরি। পরের দিন সকালে দেখি টিএসসি এলাকায় শুধু ট্যাংক আর ট্যাংক। ভীতিকর এক পরিবেশ। বঙ্গবন্ধুকে নাকি হত্যা করা হয়েছে। তিনি আর আসলেন না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে যে আলাদা মর্যাদা দেয়ার কথা ছিল তাও আর হলো না।
এদিকে, দীর্ঘদিন অযতেœ পড়ে থাকা চেয়ারটিতে এ যাবৎ কেউ আর বসেননি। বঙ্গবন্ধুর শ্রদ্ধায় চেয়ারটিতে কাউকে বসতে দেয়নি টিএসসি কর্তৃপক্ষ। চারদশক পর চেয়ারটি সংরক্ষণের ব্যবস্থা করেছে টিএসসি কর্তৃপক্ষ। সোমবার টিএসসি অডিটোরিয়ামে সংস্কারকৃত চেয়ারটির উদ্বোধন করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক।
এ বিষয়ে টিএসসি পরিচালক মহিউজ্জামান চৌধুরী বলেন, এ চেয়ারটির সঙ্গে ইতিহাস জড়িত। আমরা তাই এটি সংরক্ষণের ব্যবস্থা করেছি। এটি তৃতীয় তলায় ডিসপ্লে করা হবে। যাতে করে নতুন প্রজন্ম চেয়ারটি সম্পর্কে জানতে পারে। এতে ফুটে উঠবে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্পর্কের ইতিহাস।

তিনি আরো বলেন, আমরা চেয়ারটি বঙ্গবন্ধু জাদুঘরেও দিয়ে দিতে পারতাম। তবে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর যে সম্পর্ক সেটি ঐভাবে ফুটে উঠবে না, তাই এখানে ডিসপ্লে করা হচ্ছে। টিএসসি কর্তৃপক্ষ চাইলে এ চেয়ার অতিথিদের বসার জন্য ব্যবহার করতে পারতো। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর শ্রদ্ধায় তা করা হয়নি।
উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর সম্পর্ক ছিন্ন হবার নয়। তিনি এ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন। ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট এখানে উনার আগমণের কথা ছিল। এসে তিনি বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো ঢাবিকেও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা দিতে চেয়েছিলেন।

তিনি বলেন, যদি সে (বঙ্গবন্ধু) মর্যাদা দিতে পারতেন তাহলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বিশ্ব দরবারে আরো ভালো অবস্থানে চলে যেত। কিন্তু তিনি সে সুযোগ পাননি। ঘাতকরা তাকে সপরিবারে হত্যা করে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: