সর্বশেষ আপডেট : ১৩ মিনিট ৫ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জঙ্গি নেতা মারজানকে নিয়ে অন্ধকারে পুলিশ

1471109884-550x333নিউজ ডেস্ক : গুলশানের হলি আর্টিজানে হামলার পর জঙ্গিরা সেখান থেকে ছবি পাঠিয়েছিল মারজানের কাছে। এমন তথ্য পুলিশ ও গোয়েন্দারা নিশ্চিত হলেও মারজানের ব্যাপারে আর তথ্যই খুঁজে পাচ্ছেন না পুলিশ কর্মকর্তারা। তবে তার অবস্থান এখনও ঢাকাতেই বলে ধারণা করছেন তারা। পাশাপাশি মেজর (চাকরিচ্যুত) জিয়াউল হক ও তামিম চৌধুরীও ঢাকাতেই আত্মগোপন করে আছে। এই দুজনের ব্যাপারে অনেক তথ্যই গোয়েন্দাদের হাতে। কিন্তু মারজানের পরিচয় ও কর্মকাণ্ড সম্পর্কে এখনও স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যায়নি বলে স্বীকার করেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার ও কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম।

মনিরুল ইসলাম বলেন, সাম্প্রতিক জঙ্গি হামলার পরিকল্পনাকারীদের মধ্যে তিন জঙ্গি নেতা মাস্টারমাইন্ড হিসেবে কাজ করছে। এদের মধ্যে তামিম চৌধরী ও মারজান নতুন জেএমবির নেতৃত্ব দিচ্ছে। আর মেজর জিয়া আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্যদের সংগঠিত করছে। এরা ওয়ান্টেড। এদের মধ্যে জিয়া ও তামিমকে ধরতে ৪০ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে। মারজানও ওয়ান্টেড। যদিও তাকে ধরতে এখনও পুরস্কার ঘোষণা হয়নি।

গতকাল শনিবার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, জেএমবির নতুন ইউনিটের সদস্য আতিকুর রহমান ওরফে আইটি আতিক, আবদুল করিম বুলবুল ওরফে ডা. বুলবুল, আবুল কালাম আজাদ, মতিউর রহমান ও শাহিনুর রহমান হিমেল ওরফে তারেককে রিমান্ডে নিয়ে তিন শীর্ষ জঙ্গি নেতা সম্পর্কে তথ্য জানার চেষ্টা চলছে। গত বৃহস্পতিবার রাজধানীর মিরপুর টেকনিক্যাল মোড় থেকে গ্রেফতার করার পর তাদের ৬ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। তারা রিমান্ডে বলেছে, দেশের উত্তরাঞ্চলে জেএমবির একাধিক ঘাঁটি রয়েছে। তাদের উত্তরাঞ্চল থেকে ঢাকায় এনেছে মারজান। তারা মূলত জেমবির নতুন ইউনিটের সদস্য।

মারজানের নেতৃত্বে তারা ঢাকার কোনো একটি এলাকায় হামলার পরিকল্পনা করেছিলেন। তবে মারজানের নামটি ছাড়া মাঠ পর্যায়ের এই জঙ্গি সদস্যদের কাছে স্পষ্ট কোনো তথ্য না থাকায় তাকে ধরতে কিছুটা বিপাকে রয়েছে গোয়েন্দারা। তদন্ত সংশ্লিষ্টদের তথ্য মতে, তামিম চৌধুরীর মতো মারজানও গুলশান হামলার অন্যতম মাস্টারমাইন্ড। মারজান তার সাংগঠনিক নাম। হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার আগে মারজান বিশেষ ভূমিকা রেখেছে।

ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলেন, হলি আর্টিজানে হামলার শুরু থেকেই তামিম ও মারজান ওই পাঁচ জঙ্গির সঙ্গে গোপন অ্যাপসের মাধ্যমে যোগাযোগ রাখে। হলি আর্টিজানে হামলার পর জঙ্গিরা যে গোপন অ্যাপসের মাধ্যমে নিজেদের ছবি বাইরে ছড়িয়ে দিয়েছিল সেই ছবি মারজানের কাছেও এসেছিল বলে তথ্য পাওয়া গেছে। মূলত তামিম ও মারজান কল্যাণপুরের জঙ্গিদের মেসে অবস্থান করেছিল গুলশান হামলা মনিটরিং করার জন্য। তবে কল্যাণপুরে তারা এক রাতের বেশি ছিলেন না। মারজান সম্পর্কে এখন পর্যন্ত গোয়েন্দাদের কাছে তথ্য রয়েছে, মারজান উচ্চ শিক্ষিত তবে কোথায় লেখাপড়া করেছেন তা জানার পাশাপাশি চেষ্টা চলছে। ইত্তেফাক

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: