সর্বশেষ আপডেট : ৩০ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সাংস্কৃতিক আন্দোলনেই সমাধান: জাফর ইকবাল

03_ScienceFictionBookFair_020115_0010নিউজ ডেস্ক: ধর্মীয় চরমপন্থা মোকাবেলায় সাংস্কৃতিক তৎপরতা বাড়ানোর তাগাদা দিয়ে লেখক-অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে এর মাধ্যমেই সত্যিকারের সমাধান মিলতে পারে।

‘জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সাংস্কৃতিক জাগরণ’ শিরোনামে শুক্রবার রাজধানীতে এক আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি বলেন, পরলৌকিক চিন্তায় বিভোর তরুণ প্রজন্মের সেই অংশের মধ্যে ধর্মীয় বিভাজন ভয়াবহ মাত্রায় পৌঁছে গেছে।
‘কম বয়সী ছেলেগুলো যখন নিজেকে নিয়ে, দেশ ও সমাজকে নিয়ে চিন্তা করবে, তখন তারা ভাবছে অন্য ধর্মাবলম্বীদের হত্যা করে তারা পরকালে বড় জায়গায় যাবে। আমার মাথায় এসব চিন্তাধারা ঢোকে না।’
গত মাসে গুলশান ও শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলা চালিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গুলিতে নিহতদের অধিকাংশই ঢাকার উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তানদের স্কুল-বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। পরে কল্যাণপুরে জঙ্গি আস্তানায় পুলিশি অভিযানে নিহতদের মধ্যেও ঢাকার বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের পাওয়া গেছে।
এ প্রেক্ষাপটে সাংস্কৃতিক কর্মকা- বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব আরোপ করে জাফর ইকবাল বলেন, ‘স্কুল-কলেজের ছেলেমেয়েদের আমাদের বোঝাতে হবে- এ দেশের লাখো মানুষ জীবন দিয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ছিল- প্রতিটি ধর্মের মানুষ পাশাপাশি অবস্থান করবে, ধর্মীয় সহিষ্ণুতা বজায় থাকবে প্রতিটি নাগরিকের মধ্যে। তারা একদিন পূর্ণাঙ্গ মানুষ হবে, হাতে হাত রেখে এগিয়ে নিয়ে যাবে বাংলাদেশকে।
‘এ মুহূর্তে সাংস্কৃতিক আন্দোলনই হতে পারে সত্যিকারের সমাধান। সাংস্কৃতিক কর্মকা-ে যুক্ত মানুষ হৃদয়ে শান্তি পায়, চলে যায় অন্য এক জগতে।’
শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত এই সভায় অংশ নিয়ে এ আয়োজনের জন্য সরকারকে সাধুবাদ জানান অধ্যাপক জাফর ইকবাল।
‘আমরা সারা জীবন ধরে যেটা করার জন্য দাবি জানিয়েছিলাম, সরকার আজ তার উদ্যোগ নিয়েছে। আমাদের মধ্যে যে অনুভব ছিল, তা আজ দেশ ও রাষ্ট্র অনুভব করছে।’
দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা শ’খানেক বাউল শিল্পী ছিলেন এই সভায়। তাদের জীবনধারা, ভাববাদের কথা উল্লেখ করে বাউলদের ওপর হামলা-নির্যাতনের তীব্র নিন্দা জানান জাফর ইকবাল।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি কণ্ঠশিল্পী ও সংসদ সদস্য মমতাজ বেগমও বাউলদের ওপর অত্যাচার, নিপীড়নের নিন্দা জানান।
বিভিন্ন সময় বাউলদের ওপর হামলা হলেও তার জোরালো প্রতিবাদ না হওয়ায় জঙ্গিরা আরও মারমুখী হয়ে উঠেছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।
মমতাজ বলেন, ‘আজকের এই জঙ্গিবাদ এক দিনে কিংবা এক মাসে তৈরি হয়নি। ১৫ অগাস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার মধ্য দিয়ে জঙ্গিবাদী শক্তিটি তিলতিল করে গড়ে উঠেছে।’
জঙ্গিবাদবিরোধী কার্যক্রম রাজধানী ছাড়িয়ে গ্রামে-গঞ্জে ও প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে দিতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।
জনপ্রিয় এই কণ্ঠশিল্পী বলেন, ‘গ্রামে গ্রামে গিয়ে আমরা নাটক-গান-কবিতার বড় আসর করে মানুষকে বলব আমাদের কথা। আপনারা আয়োজন করুন, আমি আছি আপনাদের সাথে।’
অনুষ্ঠানে বক্তব্যের পাশাপাশি কবিতা পাঠ করেন কবি নির্মলেন্দু গুণ, কবি মুহম্মদ নুরুল হুদা, সংসদ সদস্য ও কবি কাজী রোজী, কবি মুহাম্মদ সামাদ, শাহজাদী আঞ্জুমান আরাসহ আরও অনেক কবি।
অনুষ্ঠানে সমবেত সংগীত পরিবেশন করেন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা বাউলরা। বৃন্দ পরিবেশনায় অংশ নেয় ঢাকা সাংস্কৃতিক দল।
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শিল্পকলা একাডেমির মাসব্যাপী আয়োজনের অংশ হিসেবে ‘ফকির লালন সাঁইজির ভাবশিষ্যদের ভাবগীত ও পরিবেশনা’ হয় এর পরই।
বিকালে একাডেমির চিত্রশালা মিলনায়তনে প্রদর্শিত হয় তারেক মাসুদ পরিচালিত ‘রানওয়ে’ ও আবু সাঈয়ীদের ‘অপেক্ষা’।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: