সর্বশেষ আপডেট : ৬ মিনিট ২৬ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আইএস জঙ্গিদের সহায়তা করছেন ‘স্বয়ং’ হিটলার!

Hitlar-Help-ISনিউজ ডেস্ক: পৃথিবীর কাছে এক সময় ত্রাস ছিলেন তৎকালীন জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাডলফ হিটলার। সাত-আট দশক আগের কথা। তাঁর সাম্রাজ্য বিস্তারের নীতি আর যুদ্ধের আঙ্কাখা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অন্যতম প্রধান কারণ হয়ে উঠেছিল। যুদ্ধে শোচনীয় পরাজয়ে পর আত্ম হত্যা করেছিলেন হিটলার। এটি ৭১ বছর আগের কথা। তবে এত দিন পরে দেখা যাচ্ছে হিটলার অতীত নন। বর্তমান পৃথিবীর ত্রাস আইএস-এর অন্যতম বড় ভরসা তিনি। আইএসের অন্যতম অস্ত্র সরবরাহকারী এখন হিটলারই!

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ সাত দশক আগে শেষ হয়ে গেলেও হিটলার বাহিনীর পুঁতে রাখা হাজার হাজার মাইন সাহারা মরু থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়নি। সেই মাইনফিল্ডকে এ বার দু’রকমভাবে কাজে লাগাচ্ছে আইএস। প্রথমত, তারা হিটলারের মাইনকে বিস্ফোরক হিসেবে ব্যবহার করছে। দ্বিতীয়ত, মাইনফিল্ডকে মিশরে নিজেদের নিরাপদ আশ্রয় হিসেবে ব্যবহার করছে।

মিশরের সেনা বাহিনী সূত্র জানায়, মরুভূমির বালি খুঁড়ে হিটলারের মাইন তুলছে আইএস জঙ্গিরা। তার পর সেই মাইনকে বিস্ফোরক হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। মাইন দিয়ে ইমপ্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইজ (আইইডি) তৈরি করা হচ্ছে।

মাইন ফিল্ড পরিষ্কারের দায়িত্বে থাকা সাবেক মিশরীয় কর্মকর্তা একটি মার্কিন পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ওই বিস্ফোরক কত বছরের পুরনো তাতে আইএসের কিছুই যায় আসে না। বিস্ফোরণ ঘটানো গেলেই আইএসের কাছে তার দাম আছে।
তাই সাহারা মরুভূমি খুঁড়ে জঙ্গিরা তুলে আনছে হিটলার বাহিনীর মাইন। সেই মাইন দিয়ে আইইডি বানিয়ে মিশরেই নানা জায়গায় নাশকতা চালাচ্ছে তারা। গত কয়েক মাসেই ওই সব পুরনো মাইন ব্যবহার করে হামলা চালানোর অন্তত ১০টি ঘটনা ঘটেছে। আর গত ১০ বছরে হিটলারের মাইন মিশরে অন্তত ১৫০টি প্রাণ নিয়েছে। মিশরের প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয় সূত্র জানায়, গত মার্চে লোহিত সাগরের কাছে আইএসের মাইন হামলার শিকার হয়েছে সে দেশের সেনা বাহিনীও।

মাদক এবং অস্ত্রশস্ত্রের চোরাকারবার আইএসের আয়ের অন্যতম প্রধান পথ এখন। সাহারা মাইন ফিল্ডের মধ্যে দিয়েই এখন সেই চোরাকারবার চালাচ্ছে জঙ্গিরা। লিবিয়া হয়ে আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে মাদক ও অস্ত্রশস্ত্র ছড়িয়ে দেয় আইএস। তবে লিবিয়া পর্যন্ত পৌঁছানোর জন্য তাদের মিশরে ঢুকতেই হয়।

সেই কাজে বড় বাধা মিশরের সেনাবাহিনী। সেই বাধা এড়াতেই লিবিয়া এবং সুদানের সঙ্গে মিশরের সীমান্ত লাগোয়া অঞ্চল দিয়ে জঙ্গিরা যাতায়াত করে। কারণ ওই সব অংশেই হিটলারের মাইন ফিল্ড রয়েছে। বিস্ফোরণ ঘটার আশঙ্কা থাকায় সেখান সেনা টহল দেয় না। আইএস জঙ্গিরা সেই সুযোগ নিয়ে, স্থানীয় গাইডদের সাহায্যে মাইন ফিল্ডের মধ্যে দিয়ে পথ খুঁজে যাতায়াত করে।
মিশরের সরকার এবং সেনা আইএসের এই গতিবিধি সম্পর্কে অবগত। তবে মৃত্যুর ৭১ বছর পরেও হিটলার যেভাবে আইএস জঙ্গিদের সহায় হয়ে উঠেছেন, তাতে মিশরের সেনা বাহিনী কিছুটা অসহায়। সাহারার বালি খুঁড়ে সব মাইন সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মিশরের সরকার।

সেনা বাহিনীকে তার জন্য তিন বছর সময় দেওয়া হয়েছে। তবে আইএসের গতিবিধি ওই সব এলাকায় যতটা বেড়েছে, তাতে সে কাজ খুব সহজ হবে না বলেই মিশরীয় বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন।সূত্র: আনন্দবাজার

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: