সর্বশেষ আপডেট : ৪৩ মিনিট ৩৮ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সিলেটে ভাস্কর্য উদ্বোধন বাতিল করলেন অর্থমন্ত্রী

Abul mal daily sylhetনিজস্ব প্রতিবেদক::
সিলেট নগরীর টিলাগড় মোড়ের নাম পাল্টে একটি ভাস্কর্য নির্মাণ করা হয়েছে। আজ শুক্রবার সকালে এটির উদ্বোধন করার কথা ছিল অর্থমন্ত্রীর। কিন্তু ভাস্কর্য নির্মাণের ইতিহাস ও এটির নির্মাণকাজ অসম্পন্ন থাকায় শেষ মুহূর্তে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের দুই দিনের সিলেট সফরসূচিতে ‘টিলাগড়ে মেজর এম এ মুত্তালিব চত্বর ও ভাস্কর্য’ উদ্বোধন করার কথা উল্লেখ ছিল।
এ বিষয়ে জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল আহাদ বলেন, ‘আমি নতুন এসেছি। ভাস্কর্য নির্মাণের কাজ শেষ হলেও এটি স্থাপনের ইতিহাস ও চত্বরের নামকরণ সম্পর্কিত স্থাপনার কাজ বাকি থাকায় উদ্বোধন পেছানো হয়েছে। ইতিহাস সংগ্রহে ইতিমধ্যে মেজর মুত্তালিবের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। তাঁদের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করে কাজ সম্পন্নের পর উদ্বোধনের নতুন তারিখ ঘোষণা করা হবে।’

মেজর (অব.) এম এ মুত্তালিব মুক্তিযুদ্ধে সুনামগঞ্জের সাব-সেক্টর কমান্ডার ছিলেন। সিলেটের টিলাগড়ে যে প্রথম প্রতিরোধ যুদ্ধ হয়েছিল, সেখানেও অংশ নেন তিনি। ১৯৯০ সালের ১৯ অক্টোবর তিনি মারা যান। সিলেটের জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক আল-আজাদ অনুলিখিত মুক্তিযুদ্ধে উত্তর পূর্ব রণাঙ্গন বইয়ে এম এ মুত্তালিব নিজেই তাঁর প্রতিরোধ যুদ্ধের বর্ণনা দিয়েছেন।

সাংবাদিক আল-আজাদ জানান, সিলেটে প্রথম প্রতিরোধ যুদ্ধের ঐতিহাসিক ক্ষণ স্মরণ করে টিলাগড় মোড়ের নতুন নামকরণ ও ভাস্কর্যটি নির্মাণ করা হয়। কিন্তু এটি উদ্বোধনের আগে আগে মুত্তালিব পরিবারের কাছে তাঁর সম্পর্কে জেলা পরিষদ তথ্য চাওয়ার বিষয়টি জেনে অর্থমন্ত্রী নিজেই উদ্বোধন বাতিল করেছেন।
নগরীর সেনপাড়ায় বসবাসকারী মেজর মুত্তালিবের মেয়ে রাবেয়া বেগম বলেন, ‘আব্বার (মেজর মুত্তালিব) নামে সিলেটে একটি চত্বরের নামকরণ বিষয়টি আমরা গেজেট প্রকাশের পর জেনেছি। কিন্তু সেখানে একটি ভাস্কর্য যে হচ্ছে, সেটি আমি জেনেছি জেলা পরিষদের মাধ্যমে। তাঁরা আব্বা সম্পর্কে আমাদের কাছে তথ্য চেয়েছেন। আমরা কিছুটা বিস্মিত হই। পরে আবার জেলা পরিষদ থেকে জানানো হয়, উদ্বোধন পেছানো হয়েছে এবং তথ্যগুলো পরে সংগ্রহ করা হবে।’

রাবেয়া বেগম বলেন, তাঁরা দুই ভাই ও তিন বোন। এক ভাই স্থপতি। তিনি যুক্তরাজ্যে থাকেন। ভাস্কর্য নির্মাণের বিষয়টি জেলা পরিষদ আগে জানালে স্থাপত্যকাজে তাঁরা স্বেচ্ছায় সহায়তা করতেন।

সিলেট জেলা পরিষদের প্রকৌশল বিভাগের তত্ত্বাবধানে ২৩ লাখ ৭৫ হাজার টাকা ব্যয়ে ভাস্কর্যটি নির্মাণ করা হয়। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ‘মেসার্স শুভ্র দেব’-এর পরিচালক প্রদীপ কুমার দেবের দাবি, ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে ভাস্কর্যের কাজ শুরু হয়ে শেষ হয় গত এপ্রিলে। প্রকল্পে উল্লিখিত কাজ সম্পন্ন করে তিনি জেলা পরিষদকে বুঝিয়ে দিয়েছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: