সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ৬ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ২১ অগাস্ট, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৬ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গ্রামটির কেউ বেকার নন

gramনিউজ ডেস্ক: কেউ করছেন মাছ চাষ; কারো ব্যস্ততা হাঁস-মুরগি পালনে। সেলাই মেশিনে আগামীর স্বপ্ন বুনছেন কেউ কেউ। সবজি আবাদও চলছে সমানতালে।
খুলনার রূপসা উপজেলার সবচেয়ে ছোট গ্রাম মাছুয়াডাঙ্গা গ্রামের নারী-পুরুষ সবাই ব্যস্ত কোনো না কোনো কাজে। এই গ্রামে এখন আর কেউ বেকার নন। এমন সফলতার পর, আরও ২০টি গ্রামকে বেকারমুক্ত করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
মাছুয়াডাঙ্গা, খুলনা শহর থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে সবুজে মোড়ানো একটি গ্রাম।
এই গ্রামের বাসিন্দা গুলশানারা সুমি। বছর খানেক আগে বাবা অসুস্থ হয়ে পড়লে, সংসারের দায়িত্ব পড়ে তার কাঁধে। কিছুটা দিশেহারা হয়ে পড়লেও হাল ছাড়েননি। একপর্যায়ে প্রশিক্ষণ ও ক্ষুদ্র ঋণ নিয়ে কিনেন সেলাই মেশিন। শুরু করেন কবুতর ও হাঁসমুরগি পালনের পাশাপাশি নকশিকাঁথা সেলাই। এখন সুমির আয়েই হাসি ফুটেছে পরিবারে।
প্রশিক্ষণ নিয়ে গবাদি পশু পালন করে স্বাবলম্বী হয়েছেন এই গ্রামেরই কামরুল ইসলাম কাজল।
শুধু সুমি বা কাজল নয়; আরও অনেকেই প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজেরাই করেছেন কর্মসংস্থান। মাছ চাষ, ক্ষুদ্র ব্যবসা, হাঁস-মুরগি ও গবাদি পশু পালন, দর্জির কাজ, ফ্যাশন ডিজাইন কিংবা বিষমুক্ত সবজি আবাদ করে সচল রাখছেন সংসারের চাকা।
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এ টু আই প্রকল্পের অধীনে বেকারমুক্ত গ্রাম সৃজন পাইলট প্রকল্প হাতে নেয় যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর। প্রশিক্ষণ দেয়া হয় দেড় শতাধিক তরুণ-তরুণীকে। আত্মকর্মসংস্থানের জন্য ৮ লাখ টাকা ঋণ দেয়া হয় ৬০ জনকে। আরও ৪০ জনকে দেয়া হবে ৫ লাখ টাকা।
মাছুড়াডাঙ্গার মতো আরও ২০ গ্রামকে বেকারমুক্ত করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলেও জানান, এক কর্মকর্তা। সূত্র: চ্যানেল টোয়েন্টিফোর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: