সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ডা. জোবায়দা ও শর্মিলাকে নিয়ে নানা ভাবনা

149573_1নিউজ ডেস্ক: বিএনপির নতুন পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার পর থেকে ভিতরে-বাইরে নানা ভাবনা ও গুঞ্জন চলছে। এর মধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম জিয়ার দুই পুত্রবধূ ডা. জোবায়দা রহমান ও শর্মিলা রহমানের বিষয়টি সবচেয়ে বেশি আলোচিত হচ্ছে। এ নিয়ে বিএনপির অভ্যন্তরে যেমন নানা মত রয়েছে, তেমনি দলীয় গণ্ডির বাইরেও নানা ভাবনা লক্ষ্য করা গেছে।

কমিটি গঠনের বিষয়টি একেবারেই বিএনপির অভ্যন্তরীণ বিষয় হলেও তা আর সেখানে সীমাবদ্ধ নেই। জাতীয় রাজনীতিতে বিএনপি একটি বড় দল হওয়ায় এ নিয়ে দেশের সর্বমহলের আগ্রহ লক্ষ্য করা গেছে। এ নিয়ে বিভিন্ন মহল থেকে প্রতিক্রিয়াও পাওয়া গেছে।

এরই মধ্যে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরউল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির দুটি পদ এখনো শূন্য রয়েছে। এ দুটি পদ খালেদা জিয়া হয়তো তার দুই ছেলের বউয়ের জন্য রেখেছেন।
সোমবারের মন্ত্রীসভায়ও এ নিয়ে অনির্ধারিত আলোচনা হয়। সেখানে মন্ত্রীরাও নানা ধরণের মন্তব্য করেন। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিষয়টাকে ইতিবাচকভাবে নিয়ে ডা. জোবায়দা রহমানের প্রশংসা করেন।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘জোবায়দা উচ্চশিক্ষিত ভালো বংশের মেয়ে এবং তিনি যদি রাজনীতিতে আসেন তাহলে ভালো করবেন। অন্তত একজন শিক্ষিত মানুষ বিএনপির রাজনীতিতে আসবে। ওর পরিবারের ঐতিহ্যও ভালো। শিক্ষিত মানুষ রাজনীতিতে এলে রাজনীতির জন্য ভালোই হবে।’

এখানেই শেষ নয়, এ নিয়ে সামাজিক যোগাযাগ মাধ্যমেও প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে।

তবে বিএনপির অভ্যন্তরেও এ নিয়ে ভাবনার অন্ত নেই। দলের কেউ কেউ বলছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম জিয়া এ দুই পদ তার দুই পুত্রবধূ ডা. জোবায়দা রহমান ও শর্মিলা রহমানের জন্য রেখেছেন। বিভিন্ন মামলায় বেগম জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ‘সাজা’ কার্যকর হলে তারা স্থায়ী কমিটিতে থেকে দলের নেতৃত্ব দেবেন।

আরেক পক্ষ বলছেন, দুই পদের বিপরীতে প্রার্থী অন্তত সাতজন। ওই দুই পদ কাকে রেখে কাকে দেবেন, তা নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় বিএনপি-প্রধান। তাই ওই দুটি পদ শূন্য রেখেই কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। অবশ্য সিদ্ধান্তহীনতার কারণে বিএনপির ছাত্রবিষয়ক ও যুববিষয়ক পদও ঘোষণা করা হয়নি।

বিএনপির ১৯ সদস্যের স্থায়ী কমিটির মধ্যে নাম ঘোষণা করা হয়েছে ১৭ জনের। কমিটিতে ১৭ ও ১৮ নম্বর ঘর দুটি ফাঁকা রাখা হয়েছে। এ নিয়ে বিএনপির ভিতরে-বাইরে নানা গুঞ্জন চলছে। কে আসছেন এ দুই পদে, তা নিয়ে প্রশ্নের শেষ নেই। তবে কমিটি ঘোষণার পর সিনিয়র নেতাদের নিয়ে কথা বলছেন খালেদা জিয়া। যে কোনো সময় কমিটিতে কিছু পরিবর্তন আসতে পারে।

তবে বিএনপির নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানায়, আপদকালীন পরিস্থিতির জন্য একটি পদ অন্তত পুত্রবধূ ডা. জোবাইদা রহমানের জন্য রেখে দেওয়া হয়েছে। বেগম জিয়ার মামলার সাজা কার্যকর হলে সেখানে জোবাইদা রহমানকে যুক্ত করা হবে। কারণ, চলমান বৈরী পরিস্থিতিতে তারেক রহমানের দেশে আসার কোনো সুযোগ নেই। তাছাড়া ইতিমধ্যেই অর্থ পাচারের এক মামলায় তার সাত বছরের সাজা হয়েছে।

অন্যদিকে বিএনপি স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য জানান, খালেদা জিয়া কিংবা তারেক রহমান কেউই চান না এ মুহূর্তে জোবাইদা রহমান কিংবা শর্মিলা রহমান রাজনীতিতে আসুন। পরিস্থিতিই ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করবে।

জানা যায়, স্থায়ী কমিটির পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন-বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, সাদেক হোসেন খোকা, শাহ মোয়াজ্জেম, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, মেজর (অব.) হাফিজউদ্দিন আহমদ, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ ও আবদুল আউয়াল মিন্টু। এরই মধ্যে আবদুল্লাহ আল নোমান নতুন পদে না থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

সবাই চান স্থায়ী কমিটিতে যেতে। পদ মাত্র দুটি। এ নিয়ে চরম বেকায়দায় পড়েছেন বেগম জিয়া। সবাইকে বুঝিয়ে শান্ত করেই দুজনের নাম ঘোষণা করতে পারেন বেগম জিয়া। সে ক্ষেত্রে আবদুল্লাহ আল নোমান ও খন্দকার মাহবুব হোসেনের স্থায়ী কমিটিতে স্থান পাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।

আবার কেউ কেউ বলেছেন, সাদেক হোসেন খোকা বা শাহ মোয়াজ্জেমের মধ্য থেকে একজন স্থায়ী কমিটিতে স্থান পেতে পারেন।

এদিকে ক্ষুব্ধ ও হতাশ হয়ে আবদুল্লাহ আল নোমান জানিয়েছেন, ‘আমাকে যথাযথ মূল্যায়ন করা হয়নি। তাই ভাইস চেয়ারম্যান পদে থাকার আমার কোনো ইচ্ছা নেই।’

অন্যরা সরাসরি কোনো মন্তব্য না করলেও ভিতরে ভিতরে তারাও ক্ষুব্ধ। বিএনপির মধ্যে প্রথম সারির এক নেতা জানান, সরকারের কঠোরতায় বিএনপি চেয়ারপারসন ও তারেক রহমান জেলে গেলে জিয়া পরিবারের কাউকে না কাউকে দলের হাল ধরতে হবে। সেজন্য বেগম জিয়ার দুই পুত্রবধূকে আগেই দলীয় রাজনীতিতে সম্পৃক্ত করা জরুরি। এ বিষয়টি হয়তো বিএনপির নীতিনির্ধারকদের মাথায় রাখছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: