সর্বশেষ আপডেট : ৫ মিনিট ৭ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ঘুরে আসুন মায়ানমারের কয়েকটি দর্শনীয় স্থান থেকে

নিউজ ডেস্ক: ভ্রমণের জন্য চমৎকার হতে পারে বাংলাদেশের পূর্বে বার্মা নামে পরিচিত মায়ানমার। বিভিন্ন রকম প্যাগোডা সমৃদ্ধ বার্মা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যেও সমৃদ্ধ। ইয়াংগুন তো যাবেনই। আসুন জেনে নিই, দেশটি ভ্রমণে গেলে কোন কোন স্থানে যাওয়া আবশ্যক।

১. বাগন
এটি মায়ানমারের প্রথম রাজবংশের রাজধানী। ১০৪৪ সালে রাজা অন্বর্থ নির্মাণ করেন এটি। এটি মান্দালায় থেকে ১৯৩ কিলোমিটার দক্ষিণে। এখানে ৪২ বর্গ কিলোমিটার মরুভূমির মত এলাকা জুড়ে ২ হাজারেরও বেশী মন্দির এবং মঠ আছে। আয়ারওয়াদি নদীর তীরে এর অবস্থান। এখানকার সব লাল ইট, সব ধর্মীয় নিদর্শন ১১ থেকে ১৩ শতকে নির্মিত।

২. মান্দালয়
মায়ানমারের শেষ রাজকীয় রাজধানী হল, মান্দালয়। এটি অবস্থিত ইয়াঙ্গুনের ৭০০ কিলোমিটার উত্তরে, আয়ারওয়াদি নদী এবং সান প্লাটিউ এর মাঝামাঝি। এর রাজ প্রাসাদের জ্যামিতিক গঠন অবাক করবে আপনাকে। ৮ কিলোমিটার লম্বা প্রাসাদ সংলগ্ন রাস্তা সাইকেল আরোহীদের পছন্দের। এছাড়া আছে অনেক প্যাগোডা, আছে মন্দির, মঠ যা তুলে ধরছে সেই সময়ের স্থাপত্য শিল্পকে।

৩. ইনলে লেক
৫ কিলোমিটার লম্বা একটি খাল হঠাৎই আশপাশের গ্রাম প্লাবিত করে পরিণত হয়েছে প্রশস্থ একটি লেকে। লেকের উপর আপনি দেখতে পাবেন ভাসমান বাগান। সেই বাগানে ফুটে আছে ফুল, গাছে ধরেছে টমেটো, মরিচ, কলিফ্লাওয়ার এবং অন্যান্য সবজি।

লেকটি সান স্টেটে অবস্থিত, সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১০০০ মিটার উঁচুতে অবস্থিত। একে ঘিরে বাস ইন্থাসহ অন্যান্য ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর। এদের সাধারণ ছিমছাম জীবনযাপনও মুগ্ধ করবে আপনাকে।

৪. কালাও
শান রাজ্যের একটি অন্যতম চমৎকার জায়গা কালাও। এই প্রচন্ড গরমে বেড়ানোর জন্য একদম উপযুক্ত জায়গাটি। এখানে কিছু ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র গ্রাম আছে আর আছে মজার কেনাকাটার সুযোগ। এখান থেকে চমৎকার সব দৃশ্য দেখতে দেখতে ট্রাকিং করতে পারেন ইনলে লেকের উদ্দেশ্যে বা পিন্ডায়ার দিকে।

৫. ইরাবতী নদী
এশিয়ার চমৎকার একটি নদী ইরাবতী। ক্ষরস্রোতা নদীটি অন্য সব নদী থেকে নিজেকে আলাদা করেছে তার চমৎকার সৌন্দর্য্যের জন্য। এই নদীতে ঘুরে বেড়াতে পারেন নৌকায় করে। নদীর চারপাশের দৃশ্য, সূর্যাস্ত একবার দেখলে স্মরণে থাকবে আজীবন।

৬. এঙ্গয়ে সং বীচ
ইয়াঙ্গুনের কাছে চমৎকার এই বীচটি ঘুরে আসবেন অবশ্যই। মাত্র ৬ ঘন্টায় পৌছে যাবেন ইয়াঙ্গুন থেকে। এই সৈকতটি ৯ মাইল লম্বা। সাউথ ইস্ট এশিয়ার এটি সবচেয়ে লম্বা বীচ। এই এলাকাটি আন্দামান সাগরের সাথে যুক্ত।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: