সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গোলাপগঞ্জের রফিপুর-ইলাইগঞ্জ, সড়ক নয় যেন চাষাবাদের জমি

bcc4801e-3d4b-41d7-bcd7-4d1d046ac531জাহিদ উদ্দিন, গোলাপগঞ্জ:
গোলাপগঞ্জ উপজেলার ফুলবাড়ি ইউনিয়নের রফিপুর-ইলাইগঞ্জ (আরএইচডি) রোড, সড়ক নয় যেন চাষাবাদের জমি! প্রায় ৩ কিলোমিটার সড়কে রয়েছে কয়েকশ গর্ত ফলে প্রতিদিন যান চলাচলে ছোটখাটো দুর্ঘটনা লেগেই আছে। গত ৫ বছরের বেশি সময় ধরে সড়কটি মেরামত না করায় নাজুক অবস্থা তৈরী হয়েছে।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, রাস্তার কারপেটিং, পিচ ডালায় উঠে পাশের ভূমির সাথে মিশে যায়। রাস্তাটি কাচা রাস্তা নাকি পাকা রাস্তা দেখে বুঝার কোন উপায় নেই। পুরো রাস্তায় গর্তে পরিনত হয়ে গেছে দেখলে মনে হবে কোন আবাদি জমি। বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে ময়লা আবর্জনা পানিসহ খাল-খন্দে ভরে থাকে এতে করে এলাকার সাধারন মানুষসহ স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছাত্র ছাত্রীদের চলাচলে চরম বিঘ্ন ঘটে। এই বর্ষা মৌসুমে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে পথচারীদের। দড়া গ্রাম থেকে ইলাইগঞ্জ পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটার রাস্তা এখনো কাচা রয়েছে। অল্প বৃষ্টিতেই কাদামাটির রাস্তাটি হয়ে পড়ে চলাচলের অনুপযোগী ।

স্থানীয় লোকজন জানান, উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের লোকের যাতায়াতের একমাত্র সড়কের বেহাল দশায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে প্রায় ৫০ হাজার নাগরিককে। স্থানীয় সবুজকুড়ি ,প্রভাতি,আবেয়া খানম শিশু বিদ্যালয় , আতহারিয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ ,ইছরাব আলী , এম সি একাডেমী, সহ বিভিন্ন স্কুল কলেজের শত শত ছাত্র ছাত্রী এ রাস্তা দিয়েই চলাচল করে।এছাড়াও উপজেলার পার্শ্ববর্তী লক্ষণাবন্দ ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষেরও যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম এই সড়ক। কিন্তু এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোনো নজর নেই।

এই সড়কপথের নিয়মিত সিএনজি চালান ফয়জুর রহমান। তিনি বলেন, রাস্তার যা অবস্থা তাতে যেকোনো সময় গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে। গর্তের কারণে গাড়ির চাকা আটকে যায়। আধঘণ্টার পথ অতিক্রম করতে লাগছে দুই ঘণ্টা।

মালিকের কাছ থেকে ৪০০ টাকা রোজে গাড়ি নিয়ে যা আয় হয়, তা দিয়ে মালিককে দেওয়া ও সংসার চালাতে খুবই কষ্টকর।

দড়া গ্রামের কৃষক সফিক মিয়া বলেন, ভাঙাচোরা রাস্তার কারণে উৎপাদিত ফসল বিক্রি করার জন্য সিলেট সদরে নিতে হলে দ্বিগুণ পরিবহন খরচ দিতে হচ্ছে। তার ওপর চাকা বসে যাওয়ার ভয়ে ভ্যানচালকেরা বেশি টাকা দিলেও মালামাল পরিবহন করতে রাজি হন না।

এ বিষয়ে জানতে ফুলবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান ফয়ছলের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এ (আরএইচডি) সড়কটি এল, জি ই ডি’র আওতাধীন সুতরাং মেরামত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে করতে হবে। তিনি আরো বলেন ফুলবাড়ি ইউনিয়নের তিনটি ওয়ার্ড ও লক্ষণাবন্দ ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামের যাতায়াতের একমাত্র রাস্তা এটি।রাস্তার এই বেহাল দশায় কারণে দুটি ইউনিয়নের জনসাধারণের চলাচলে খুবই কষ্ট হচ্ছে । জানি না এ কষ্ট কখন শেষ হবে।

দড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা লিপি ভট্টাচার্য বলেন, রাস্তার বেহাল দশার কারণে শিক্ষক শিক্ষার্থীরা স্কুলে সময়মত আসতে অনেক বিঘ্ন ঘটে।এ রাস্তাটি সংস্কারে স্থানীয় জনসাধারণ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

এ ব্যাপারে গোলাপগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী হাবিবুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, এ রাস্তাটি আমাদের আওতায়, বর্তমানে রাস্তা সংস্কারের কোন বরাদ্দ নেই।যদি বরাদ্দ আসে, তাহলে দ্রুত বেগে কাজ হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: