সর্বশেষ আপডেট : ১২ মিনিট ৮ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নিখোঁজ বিমানের সন্ধানে যুক্তরাষ্ট্রের সাহায্য চেয়েছে ভারত

photo-1469874317নিউজ ডেস্ক: নিখোঁজ এএন-৩২ বিমানের সন্ধান পেতে এবার যুক্তরাষ্ট্রের সাহায্য চেয়েছে ভারত।

ভারতের কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী মনোহর পরিকার গতকাল শুক্রবার রাজ্যসভায় এ কথা জানিয়েছেন।

গত ২২ জুলাই চেন্নাই থেকে আন্দামানের উদ্দেশে যাত্রা করার পর থেকে দেশটির বিমানবাহিনীর ওই বিমানটির আর খোঁজ মেলেনি। নিখোঁজ বিমানের সন্ধানে এখনো কোনো সূত্র উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

রাজ্যসভায় মনোহর পরিকার বলেন, হারিয়ে যাওয়ার আগে বিমানটি থেকে এসওএস বা কোনো বার্তা আসেনি। এটি ভাবাচ্ছে আমাদের। হারিয়ে যাওয়া বিমানটি থেকে কোনোভাবে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়নি। এ কারণে যুক্তরাষ্ট্রের সাহায্য চাওয়া হয়েছে। তাদের কাছ থেকে জানার চেষ্টা চলছে তাদের উপগ্রহে নিখোঁজ বিমানটির কোনো সংকেত ধরা পড়েছিল কি না। অন্যান্য দেশের কাছেও এ বিষয়ে সাহায্য চাওয়া হয়েছে।

নিখোঁজ এএন-৩২ বিমানটি কোনো নাশকতার শিকার হয়নি বলে মনে করছেন ভারতের কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী।

কীভাবে বিমানটি কোনো সংকেত ছাড়াই মধ্য আকাশ থেকে উধাও হয়ে গেল তা নিয়ে দেশটির বিমানবাহিনীর প্রধান ও বিশেষজ্ঞদের সঙ্গেও এরই মধ্যে কথা বলেছেন মনোহর পরিকার। তিনি জানান, ভারতের নৌবাহিনীর ১০টি জাহাজ ও সিন্ধুধ্বজ সাবমেরিন দিয়ে বঙ্গোপসাগরের সম্ভাব্য এলাকায় যথেষ্ট খোঁজ করা হয়েছে। মরিশাস থেকে বঙ্গোপসাগরে নিখোঁজ বিমানটির সন্ধানে জলযান সাগরনিধিকে নিয়ে আসা হচ্ছে। এই জলযান সমুদ্রের ছয় হাজার মিটার নিচে নেমে তল্লাশি চালাতে পারে। তবে নির্দিষ্টভাবে তথ্য বা সূত্র ছাড়া গভীর সমুদ্রে খোঁজাখুঁজি সম্ভব নয়।

এরই মধ্যে নিখোঁজ বিমান ঘিরে রহস্যের পারদ চড়তে আরম্ভ করেছে।

নিখোঁজ বিমানের এয়ারম্যান রঘুবীর বর্মার পরিবার দাবি করেছেন, গত দুদিন ধরে রঘুবীরের মোবাইলে ফোন করা হলে রিং হচ্ছে। তবে অন্য প্রান্ত থেকে কোনো সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না।

রঘুবীরের পরিবারের তথ্যমতে, রঘুবীরের মোবাইলের মেসেঞ্জার অ্যাপ থেকে গত ২৬ জুলাই সকাল ৭টা ৫৬ মিনিটে হোয়াটস অ্যাপ করা হয়েছে। তবে ২৯ জন যাত্রী নিয়ে বিমানটি নিখোঁজ হয় ২২ জুলাই। এ বিষয়টিও তদন্ত শুরু করেছে ভারতের বিমানবাহিনী কর্তৃপক্ষ।

ভারতের বিমানবাহিনীর ওই বিমানে রাজস্থানে কর্মরত রঘুবীর ওই দিন আন্দামানের পোর্ট ব্লেয়ারের বাড়িতে ফিরছিলেন। চেন্নাইয়ের তাম্বারাম থেকে রওনা হওয়ার আগে তিনি ওই মোবাইলে পরিবারের সঙ্গে শেষবার কথা বলেছিলেন।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: