সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ৪৫ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

কৃষ্ণসার হত্যা মামলার সাক্ষীকে হুমকি দিয়েছিলেন সালমান!

473906-salman-khan-iifa-2016-afpনিউজ ডেস্ক :: গত ২৫ জুলাই ১৮ বছর ধরে চলে আসা কৃষ্ণসার হত্যা মামলা থেকে নির্দোষ প্রমাণিত হয়ে মুক্তি পেয়েছেন বলিউড সুপারস্টার সালমান খান। কিন্তু এই মামলার বিতর্ক কিছুতেই পিছু ছাড়ছে না তার। কারণ তার গাড়িচালক হরিশ দুলানি দাবি করেছেন, সত্যিই বিরল প্রজাতির হরিণ শিকার করেছিলেন সালমান।

১৯৯৮ সালে কৃষ্ণসার হত্যার প্রধান সাক্ষী দুলানি ঘটনার দিন সালমানের গাড়ি চালাচ্ছিলেন বলে দাবি করেন। তার বয়ানের ওপর ভিত্তি করেই গড়ে ওঠে গোটা মামলা। বয়ানে দুলানি জানান, সালমানই শিকার করেন সেই হরিন। কিন্তু তারপর আদালত থেকে তাকে বারবার সমন পাঠালেও তিনি অনুপস্থিত থাকেন। কিন্তু বুধবার আবার প্রকাশ্যে আসেন হরিশ। জানান, ’৯৮ সালের অক্টোবরে ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে তিনি যে বয়ান দেন, তা থেকে অনড় ছিলেন তিনি। তার দাবি, তাকে বারবার হুমকি দেওয়া হচ্ছিল, ফলে প্রাণভয়ে প্রকাশ্যে আসতে পারেননি হরিশ।

কৃষ্ণসার মামলার প্রধান সাক্ষীর অভিযোগ, সালমানের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেওয়ায় তাকে ও তার পরিবারকে প্রচুর সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়েছে। নিয়মিত ফোনে হুমকি দেয়া হয়েছে তাদের। এমনকি চাকরি, বাবা মা, মানসিক শান্তি- সবই খুইয়েছেন তিনি।

যেই গাড়িতে চড়ে সালমান এবং তার বন্ধুরা কৃষ্ণসার শিকার করতে গিয়েছিলেন তার ড্রাইভার ছিলেন হরিশ। কিন্তু ঘটনার পর ২০০২ থেকে নিখোঁজ হয়ে যান তিনি। নিখোঁজের কারণে দুর্বল হয়ে যায় কৃষ্ণসার হত্যা মামলার ঘটনা।

নিখোঁজ হলেও ১৯৯৮ সালে যে বয়ান দিয়েছিলেন, ১৮ বছর পরেও সেই একই কথা বললেন হরিশ। কোর্টে যাওয়ার আগে প্রত্যেকবার হুমকি দেওয়া হত বলে অভিযোগ করছেন তিনি। জানান, তিনি আত্মগোপনকারী নন। তার বাবাকে হুমকি দেওয়া হয়েছিল, তার জন্যই ভয় পেয়ে যোধপুরের কাছে একটা শহরে চলে যান। যদি তিনি পুলিশি নিরাপত্তা পেতেন, তাহলে অবশ্যই সাক্ষী দেওয়ার জন্য কোর্টে যেতেন।

তিনি জানান, বিচারকের কাছে প্রথম বয়ান দেওয়ার পর ড্রাইভারের চাকরি থেকে বের করে দেওয়া হয় হরিশকে। ১৯৯৮ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে ১ অক্টোবর পর্যন্ত ‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’ ছবির শুটিং চলাকালীন সালমানের গাড়ি চালিয়েছিলেন তিনি। জানান যে দিন ঘটনাটি ঘটে, সেদিন গাড়ি চালানোর পাশাপাশি হরিণটিকে হত্যা করেন সালমান। গাড়ি থেকে নেমে হরিণ হত্যা করেন, এরপর কোনও রকম অনুতপ্ত না হয়ে আবার গাড়ি চালাতে শুরু করেন।

ওদিকে সালমানের আইনজীবীর দাবি, মামলার শুনানি চলাকালীনও আদালতে দেখা যায়নি হরিশকে। শেষে মূলত তার অনুপস্থিতির কথা বিবেচনা করেই রাজস্থান হাইকোর্ট সালমানকে এই মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়। আদালতের পক্ষ থেকে জানা যায়, হরিশ দুলানি দীর্ঘদিন ধরে আদালতে না আসায় সালমানের আইনজীবী তাকে জেরা করতে পারেননি। ফলে তার এসব বয়ান গ্রাহ্য হবে না।

উল্লেখ্য, কৃষ্ণসার হত্যা মামলায় ২০০৭ সালে সালমানকে পাঁচ বছর কারাদণ্ডের আদেশ শোনায় রাজস্থান হাইকোর্ট। ছ’দিন তিনি যোধপুর সেন্ট্রাল জেলে কাটান। পরবর্তীতে জামিনে ছাড়া পান তিনি। সম্প্রতি উপযুক্ত সাক্ষ্য প্রমাণ না পাওয়ায় তাকে বেকসুর খালাস করে দেওয়ার নির্দেশ দেয় রাজস্থান হাইকোর্ট। এমনকি সালমানের উকিলের সঙ্গে একমত হয়ে কোর্ট জানিয়েছে ড্রাইভার হরিশ দুলানি মামলার সাক্ষী হিসেবে বিশ্বস্ত নন।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: