সর্বশেষ আপডেট : ৫ মিনিট ৪৮ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

পাশের ফ্ল্যাটের এক তরুণ দিলেন ভয়াবহ সেই রাতের বর্ণনা

full_55929755_1469598465নিউজ ডেস্ক: রাজধানীর কল্যাণপুরে জাহাজ বিল্ডিংয়ে জঙ্গি আস্তানায় পুলিশের অভিযান শুরু হওয়ার আগে বাড়িটি পুলিশ ঘিরে ফেললে স্লোগানে স্লোগানে ভরে ওঠে এলাকা। ‘নারায়ে তাকবির, আল্লাহু আকবার’ ছাড়াও জঙ্গিরা ‘ আমরা শহীদ হবো,’ ‘ মৃত্যুকে ভয় করি না’ জাতীয় শ্লোগান দেয়। জঙ্গি আস্তানার আশেপাশের বাড়ির সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার রাতে জাহাজ বিল্ডিংয়ে অভিযান চালানোর আগে পুলিশ আশেপাশের বেশ কয়েকটি মেসে তল্লাশি অভিযান চালায়। ৫ নম্বর সড়কের তাজ বিল্ডিংটির সামনে পুলিশ গেলে সেখানে দুজন ছেলেকে দেখা যায়। তাদের কাঁধে ব্যাগ ছিল। পুলিশ দেখে তারা দৌড় দিলে পুলিশ ফাঁকা গুলি করে। গুলির আওয়াজ শুরু হলে ভবনটির ৫তলা থেকে ছেলেরা স্লোগান দিতে শুরু করে। স্থানীয়রা জানান, ওদের স্লোগান শুনে মনে হচ্ছিল তারা ভাষণ দিচ্ছে।

পুলিশি অভিযানের সময় পাশের লাগোয়া ভবনের একই তলায় ছিলেন শামসুল আলম নামের এক তরুণ। ঘটনা চলাকালে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে তিনি সাতটি স্ট্যাটাস দেন। এতে তার অবরুদ্ধ অবস্থার অসহায়ত্ব যেমন ফুটে উঠেছে, তেমনি তা থেকে ঘটনার তাৎক্ষণিক একটি বর্ণনাও পাওয়া গেছে।

শামসুল আলম একটি অনলাইন পোর্টালে কাজ করেন। রাত সোয়া একটায় শামসুল আলম প্রথম স্ট্যাটাসটি দেন। সেখানে তিনি লেখেন, ‘ইয়া আল্লাহ, আমাদের রক্ষা করুন। আমরা খুব বিপদে আছি। কল্যাণপুর ৩ নম্বর রোডে। চারপাশে শুধু জঙ্গিদের স্লোগান আর মুহুর্মুহু গুলি।’

এর ৭ মিনিট পর ১টা ২২ মিনিটে শামসুল আলম লেখেন, ‘আমরা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। আমরা খুব বিপদে আছি। শুধু গুলি আর গুলি, জঙ্গিদের স্লোগান। কল্যাণপুর ৩ নম্বর রোড (জাহাজবাড়ি ৫ নম্বর রোডে)। জানি না বাইরে কী হচ্ছে।’ এই স্ট্যাটাস তিনি দুবার পোস্ট করেন।

রাত ১টা ৫৪ মিনিটে শামসুল লিখেছেন, ‘আল্লাহ আমাদের রক্ষা কর। আমরা প্রশাসনকে একাধিকবার জানাচ্ছি, তারা শুধু বলছে তারাও নাকি অপারেশনে আছে। কিন্তু আমরা শুধু জঙ্গিদেরই আওয়াজ শুনছি।’

রাত ৪টা ১৮ মিনিটে শামসুল লিখেছেন, ‘সর্বশেষ ৩টা ১৭ মিনিটে জঙ্গিদের স্লোগান আর গুলির শব্দ শুনেছি। এখন নিঃশব্দ। প্রশাসন বা জঙ্গি, কোনো পক্ষেই আওয়াজ নেই। সম্ভবত আমাদের বাসার গেট ভেঙে ফেলা হয়েছে। আমাদের বাসায় সম্ভবত প্রশাসন অবস্থান করছে। তবে ১০০% নিশ্চিত বলতে পারছি না। কিছু সূত্রে জানতে পারলাম সকালে প্রশাসনের অভিযান চলবে। জানি না কী হয়। সবার কাছে দোয়া চাই। আমাদের জন্য দোয়া করুন।’

অভিযানের পরে শামসুল আলম জানান, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তারা সবাই বাসা থেকে বেরোতে সক্ষম হন। তিনি বলেন, ‘সকাল আটটার দিকে টের পাই, আমাদের বাসার দরজা বাইরে থেকে তালা দেওয়া। সম্ভবত পুলিশ তালা মেরে দিয়েছিল।’

শামসুল জানান, গত মাসের ১ তারিখ তারা জাহাজবাড়ির পাশের ওই বাসায় ওঠেন। তিনি বলেন, ‘রাতে একপর্যায়ে আমরা আমাদের ভবনের নিচের কেঁচি গেট ধরে টানাটানির শব্দ শুনতে পাই। ভয়ে আমাদের ফ্ল্যাটের সব লাইট বন্ধ করে দিই, এমনকি ফ্যানও। অন্য দুই রুমের দরজা বন্ধ করে দিয়ে আমরা ছয়জন রান্নাঘরে অবস্থান নিই।’

সকাল ৭টা ৫৩ মিনিটে শামসুলের স্ট্যাটাস, ‘অভিযান সমাপ্তি ঘোষণার পরও মুহুর্মুহু গুলির শব্দ শুনছি। আতঙ্ক কাটছেই না।’
৮টা ১৫ মিনিটে ঘটনার একটি সারবস্তু তুলে ধরেছেন শামসুল আলম তার ফেসবুকে। সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘ঘটনার শুরু রাত সাড়ে ১২টার দিকে। আমাদের বিল্ডিংয়ের তিনতলা থেকে এক মহিলা চোর চোর বলে চিৎকার করতে থাকে। এরপর আমরা এবং আশপাশের বিল্ডিং থেকেও চোর চোর বলে চিৎকার করতে থাকি। কিছু সময় হইহল্লা চলল। হঠাৎ স্লোগান, “নারায়ে তাকবির আল্লাহু আকবার”। ভাবলাম, চোর ধরা পড়েছে। চোর দেখতে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। এ সময় কয়েকবার বিকট শব্দ হলো। একজনের বক্তৃতার আওয়াজ পেলাম। “দুনিয়া যার, আইন চলবে তার”। “ইসলামের শত্রুরা নিপাত যাক”। “তোমরা কাফের-মুসরিক, তোমরা জাহান্নামি”’ ইত্যাদি।

এরপর আরও লিখেছেন, ‘আমরা ৪র্থ তলায় থাকি, জঙ্গিরাও ৪র্থ তলায়। স্বাভাবিকভাবেই জঙ্গিদের রুম থেকে আমাদের রুমের ব্যবধান ৫-১০ হাত। এ সময় হঠাৎ পাশের রুম থেকে বড় ভাইয়েরা এসে বলল জঙ্গি হামলা। এরপর সব নিস্তব্ধ। শুধু জঙ্গিদের স্লোগান আর গুলির শব্দ। ১০-১৫ মিনিট পরপর জঙ্গিদের স্লোগান আর গুলির শব্দে রাত পেরিয়ে ভোর ৬টা। এরপর শুরু হলো মুহুর্মুহু গুলির শব্দ। জানতে পারলাম, ৯ জন জঙ্গিই মারা গেছে। অভিযান সমাপ্ত। কিন্তু অভিযান সমাপ্তির আধা ঘণ্টা পরও প্রায় ১০-১৫ রাউন্ড গুলির শব্দ পেলাম। কী যে আতঙ্ক আর উদ্বেগের মধ্যে রাতটা গেল আল্লাহ তায়ালাই ভালো জানে। আল্লাহর অশেষ রহমতে আমরা সুস্থ আছি। তবে এ ঘটনা এখানেই শেষ না। আমাদের বিল্ডিংয়ের সব ফ্ল্যাটেই বাহির থেকে তালা দেওয়া। রুম থেকে বের হতে পারছি না। পরবর্তী পরিস্থিতির জন্য আপনাদের দোয়া প্রার্থনা করছি।’

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: