সর্বশেষ আপডেট : ৫ মিনিট ৩৬ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

‘অনবরত গুলি, মনে হচ্ছিল মারা যাব!’

148146_1নিউজ ডেস্ক: ‘অনবরত গুলি, মনে হচ্ছিল মারা যাব!’ রাজধানী ঢাকার কল্যাণপুরে মঙ্গলবার যৌথ বাহিনীর অভিযান চলাকালে প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে এভাবেই ঘটনার বর্ণনা দেন তরুণ আবু সায়েম আশরাফ। ওই ভবনের ছয়তলার বাসিন্দা তিনি।

যৌথ বাহিনীর অভিযান শেষ হলেও তারা বাড়ি থেকে বেরোনোর অনুমতি পাননি। মঙ্গলবার বেলা দুইটা পর্যন্ত আটকা পড়ে ছিলেন সায়েমসহ ওই ভবনের অন্য বাসিন্দারা।

আবু সায়েম বলছিলেন, ‘তারা নয়জন ভবনটির ছয়তলার একটি ফ্ল্যাটে থাকেন। এর নিচে পঞ্চম তলায় যৌথ বাহিনী অভিযান চালায়। ওই রাতে তারা নয়জনের মধ্যে সাতজন বাড়িতে ছিলেন। বাকি দুজন সেদিন বাড়িতে আসেননি। আত্মীয়ের বাসায় ছিলেন।’

সায়েম বলেন, ‘সোমবার দিবাগত রাতে তারা ঘুমিয়ে ছিলেন। হঠাৎ গোলাগুলির শব্দে তার ঘুম ভেঙে যায়। ঘটনার আকস্মিকতায় তিনি হতবাক হয়ে পড়েন। বুঝে উঠতে পারছিলেন না কী ঘটেছে।’

আশরাফ বলেন, ‘প্রথমে ভেবেছিলাম, পাশের ভবনে মারামারি বা অন্য কিছু হতে পারে। প্রথমে তিনটা গুলির শব্দ পাই। এরপর অনবরত গোলাগুলির শব্দ পাই। গোলাগুলির সময় মনে হচ্ছিল আমরা মারা যাব। আর বাঁচব না।’

আশরাফের চাচাতো ভাই মতিউর রহমান বলেন, ‘তার ভাই আশরাফসহ অন্যরা ভবন থেকে বেরোতে পারছেন না। পুলিশ তাদের বেরোতে নিষেধ করেছে।’

তিনি বলেন, ‘আজ বেলা ১টা ৪০ মিনিটে আশরাফ আমাকে মুঠো ফোনে খুদে বার্তা পাঠায়। তাতে লেখা ছিল, তাদের ভবন থেকে পুলিশ বা গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হবে।

মতিউর রহমান বলেন, ‘আশরাফ কয়েক বছর ধরে এ ভবনে ভাড়া থাকেন। শ্যামলী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়ছেন তিনি।’

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: