সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ছাতকে উজান থেকে নেমে আসা ঢলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

13502-300x180জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী, ছাতক::
টানা বর্ষণ ও পাহাড়ী ঢলে ছাতক উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। উজান থেকে নেমে আসা ঘোলা পানিতে তলিয়ে গেছে বীজতলা ও শাক-সবজীর বাগান। ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে কৃষকের রোপা-আমন ক্ষেত, সবজি বাগান ও হালিচারা । আকষ্মিক বন্যায় উপজেলার ইসলামপুর ও নোয়ারাই ইউনিয়নের কৃষকরা সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন বলে জানা গেছে। এ ছাড়া চরমহল্লা, ভাতগাঁও, সিংচাপইড়, জাউয়া, দোলারবাজার, উওর খুরমা, গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও, ছৈলা-আফজলাবাদ, কালারুকা ও দক্ষিন খুরমা ইউনিয়নের সহশ্রাধিক মানুষ পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে।

সুরমা, চেলা ও পিয়াইন নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। বর্তমানে সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার প্রায় ৪৫সেন্টিমিটার, পাহাড়ি নদী চেলা ও পিয়াইন নদীর পানি বিপদসীমার প্রায় ৫০সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অবিরাম বর্ষনে ব্যাহত হচ্ছে মানুষের স্বাভাবিক জীবন যাত্রা। প্রবল স্রোতের কারনে সুরমা, চেলা ও পিয়াইন নদীতে পাথরবাহী বার্জ, কার্গো ও ভলগেট নৌকায় পাথর-বালু লোডিং-আনলোডিংয়ে বাধাগ্রস্থ হওয়ায় সংশ্লিষ্ট কয়েক হাজার পাথর শ্রমিক পড়েছে বিপাকে।

আকষ্মিক পানি বৃদ্ধিতে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে গ্রামীণ রাস্তা-ঘাট, কাঁচা ঘর-বাড়ি। উপজেলা সদরের সাথে শতাধিক গ্রাম-গঞ্জের যোগাযোগ হয়ে পড়েছে বিচ্ছিন্ন। নোয়ারাই ও ইসলামপুর ইউনিয়নের দু’শতাধিক পরিবার বর্তমানে পানিবন্ধি অবস্থায় রয়েছে। পাহাড়ি ঢলের প্রবল স্রোতে ইসলামপুর ইউনিয়নের রতনপুর-মনিপুরীবস্তির বেড়িবাধ ভেঙ্গে প্রবল বেগে প্রবাহিত হচ্ছে পানি। নদীপাড় সংলগ্ন ছনবাড়ি-রতনপুর সড়ক, ছনবাড়ি-গাংপাড়-নোয়াকোট সড়কের বিভিন্ন স্থান পানিতে তলিয়ে গেছে।

এ ছাড়া আন্ধারীগাঁও-জাউয়া সড়কের বিভিন্ন স্থানও পানিতে আংশিক তলিয়ে গেছে। নদী ভাঙ্গনের হুমকির মুখে পড়েছে ছাতক-দেয়ারা সড়কসহ বেশ কয়েকটি গ্রাম। জামুরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, চানপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়, শেওতরপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়, বৈশাকান্দি এফআইভিডিবি স্কুল, নোয়ারাই ইউনিয়নের চরভাড়া মাদ্রাসা, লামাপাড়া ব্র্যাক স্কুলেসহ ২০-২৫টি বিদ্যালয়ের আঙ্গিনায় পানি প্রবেশ করায় অঘোষিতভাবে বিদ্যালয়গুলো বন্ধ হয়ে পড়েছে বলে জানা গেছে।

ইসলামপুর ইউনিয়নের রতনপুর, নিজগাঁও, গাংপাড়, নোয়াকোট, বৈশাকান্দি, বাহাদুরপুর, ছৈদাবাদ, রহমতপুর, দারোগাখালী, পৌরসভার হাসপাতাল রোড, শাহজালাল আবাসিক এলাকা, শ্যামপাড়া, মোগলপাড়া তাতিকোনা, বৌলা, লেবারপাড়া, নোয়ারাই ইউনিয়নের বারকাহন, বাতিরকান্দি, চরভাড়া, কাড়–লগাঁও, লক্ষীভাউর, চানপুর, মানিকপুর, গোদাবাড়ী, কচুদাইড়, রংপুর, ছাতক সদর ইউনিয়নের বড়বাড়ী, আন্ধারীগাঁও, বাউসা, মাছুখালী, তিররাই, মুক্তিরগাও, উত্তর খুরমা ইউনিয়নের আমেরতল, ঘাটপার, গদালমহল, রুক্কা, ছোটবিহাই, এলঙ্গি, রসুলপুর, শৌলা, চরমহল্লা ইউনিয়নের ভলবপুর, চুনারুচর, চরচৌলাই, হাসারুচর, প্রথমাচর, সিদ্ধারচর, চরভাড়ুকা, দক্ষিণ খুরমা ইউনিয়নের হরিশরণ, হাতধনালী, রাউতপুর, পুরাকাটি, ধনপুর, চৌকা, রামচন্দ্রপুর, হলদিউরা কালারুকা ইউনিয়নের রামপুর, মালিপুর, দিঘলবন, আরতানপুর, রংপুর, মুক্তিরগাও, ভাতগাঁও ইউনিয়নের জালিয়া, গাঘলাজুর, হায়দরপুর, বাদেঝিগলী, সিংচাপইড় ইউনিয়নের গহরপুর, মহদী, খাসগাঁও, গোবিন্দগঞ্জ পুরান বাজারসহ বিভিন্ন এলাকার সহস্রাধিক পরিবার পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে। প্রায় অর্ধ শতাধিক মৎস্য খামার ও পোলট্রি ফার্ম রয়েছে হুমকির মুখে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জগলুল হায়দার জানিয়েছেন, ইতিমধ্যে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ১হাজার ৩শ’ হেক্টর জমিতে আমন বোনা হয়ে গেছে।

এর মধ্যে প্রায় ৩শ’ হেক্টর জমির রোপা-আমন পানিতে তলিয়ে গেছে। অনেক বীজতলাও তলিয়ে গেছে ঢলের পানিতে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুজ্জামান সরকারী-বেসরকারী সংস্থা, জনপ্রতিনিধি ও বিভিন্ন সামাজিক সংস্থাকেকে পানিবন্দি মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সাধ্যমত সহায়তা প্রদানের আহবান জানিয়েছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: