সর্বশেষ আপডেট : ৩৮ মিনিট ৩৬ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সহপাঠী ড. ছদরুদ্দিন চৌধুরীর স্মৃতিচারণে যা বললেন অর্থমন্ত্রী

Untitled-2 copyনিজস্ব প্রতিবেদক ::

শনিবার (২৩ জুলাই ২০১৬) ইন্তেকাল করেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা উপাচার্য, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ড. ছদরুদ্দিন আহমদ চৌধুরী। প্রায় সাড়ে ৮৬ বছর বয়সে পদার্থ বিজ্ঞান, ভাষা সৈনিক, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক এই দেশপ্রেমিক ইহকাল ত্যাগ করেছেন। তারই সহপাঠী বর্তমানে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে নিয়োজিত। তিনি অর্থমন্ত্রী ও জাতীয় সংসদ সদস্য আবুল মাল আবদুল মুহিত।

স্কুল জীবন থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত একসাথে পড়াশোনা করেছেন দু’জনে। দেশের গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন সময়েও দু’জনের ভূমিকা প্রায় সমানে সমান। ছিলেন অর্থমন্ত্রীর স্ত্রীর স্কুল জীবনের গৃহ শিক্ষকও।

শনিবার বিকেলে ড. ছদরুদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুর খবর পেয়ে রাতে ঢাকার লালমাটিয়ায় অবস্থিত ছদরুদ্দিনের মেয়ের বাসায় সহপাঠীকে শেষবারের মতো দেখতে যান অর্থমন্ত্রী। সেখানে লাশের পাশে দাঁড়িয়ে ফাতেহা পাঠ করেন। এসময় অর্থমন্ত্রীর আরো দুই ভাই জাতিসংঘ বাংলাদেশ মিশনের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত ড. মোমেন ও ন্যাশনাল টি কোম্পানীর চেয়ারম্যান সাবেক সচিব ড. মুবিন তার সাথে ছিলেন।

এদিকে, এক শোক বার্তায় ড. ছদরুদ্দিন আহমদ চৌধুরীর স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘ড. ছদরুদ্দিন একাধারে স্কুল থেকে কলেজ, কলেজ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে আমার সহপাঠী ও বন্ধু ছিলেন। পঞ্চম শ্রেণি থেকে সিলেট সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এবং পরবর্তীতে এমসি কলেজ ও সর্বশেষ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আমরা একত্রে ছিলাম। তিনি স্কুল জীবন থেকে অত্যন্ত মেধাবি ছিলেন। তিনি স্কুলে আমাদের ক্লাস ক্যাপ্টেনও ছিলেন। সেক্ষেত্রে তিনি খুবই দক্ষ নেতৃত্বের পরিচয় দিয়েছেন।’

‘তিনির চরিত্র ছিলো- স্কুল পর্যায় থেকে সহপাঠী ও ক্লাসের অন্যান্য দুর্বল ছাত্রদের সামান্য সম্মানীর বিনিময়ে পড়াতে পারদর্শী ছিলেন। তখনই তিনি আমার স্কুলযাত্রী-স্ত্রীর শিক্ষকও ছিলেন।’- বলেন অর্থমন্ত্রী।

কর্মজীবনের স্মৃতিচারণ করেন অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘কর্মজীবনে এসে আমরা স্ব স্ব কর্মে ব্যস্ত থাকায় কিছুদিন কম দেখা-সাক্ষাৎ হতো। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি যখন আবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন তখনই আমাদের যোগাযোগ আরো বেড়ে যায়।’

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা ও ড. ছদরুদ্দিন চৌধুরীর অবদানের কথা উল্লেখ করে এই সহপাঠী বলেন, ‘সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে ভিসি হিসেবে তিনি দায়িত্ব গ্রহণের পর আমি তাঁর প্রশাসিক নেতৃত্বের দক্ষতা দেখেছি। এ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে ছদরুদ্দিন চৌধুরীর অবদান ছিলো অনন্য। বিশ্ববিদ্যালয় নির্মাণ কাজে তিনি ছিলেন একজন অতন্ত্র প্রহরী। বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক ও কর্মকর্তা তিনিই নিযুক্ত করেন। এ প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা ও শিক্ষার মান বৃদ্ধি করতে অনুনয়-বিনয় করে তিনি দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ভাল মানের শিক্ষক শাবিতে নিয়ে আসেন।’
তিনি বলেন, ‘ড. ছদরুদ্দিন চৌধুরীর দায়িত্বকালীন সময় শাবিপ্রবির ইতিহাসে ছিলো উজ্জল যুগ। তিনি অবসরে যাওয়ার পরও শিক্ষার উন্নয়নে সকল সময়ই ছিলেন তৎপর। অবসরকালীন সময়ে তিনি সিলেটের একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যের দায়িত্ব নেন তিনি। এসময়ই তাঁর আমন্ত্রণে আমি এক সমাবর্তন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করি।’

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘ড. ছদরুদ্দিন চৌধুরী সারাজীবনই শিক্ষাবিস্তারে নিবেদিত প্রাণ ব্যক্তি ছিলেন। তিনির মৃত্যুতে সিলেটসহ সমগ্র জাতি একজন খাটি দেশপ্রেমিক ব্যক্তি ও বিশেষ করে শিক্ষাজগতের একজন উজ্জল নক্ষত্রকে হারিয়েছে।’
অর্থমন্ত্রী ড. ছদরুদ্দিন চৌধুরীর কর্মময় জীবনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মহান আল্লাহ পাকের কাছে মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন। একই সঙ্গে শোকসন্তপ্ত পরিবার পরিজন, শুভাকাঙ্খি ও শোভানুধ্যায়ী সকলের প্রতি আন্তরিক সহমর্মিতা জানান তিনি।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: