সর্বশেষ আপডেট : ৮ মিনিট ৫১ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

‘নিখোঁজ’ ছিলেন মেয়ে, তালিকায় বাবা

unti_120703_0নিউজ ডেস্ক : র‍্যাবের প্রকাশিত নিখোঁজের তালিকার ৫৬ নম্বরে থাকা মো. জাহাঙ্গীর আলম কখনো নিখোঁজ ছিলেন না বলে দাবি করেছেন তিনি। তবে তার স্কুলপড়ুয়া মেয়ের এক দিন খোঁজ না পেয়ে তিনি বিষয়টি স্থানীয় থানা ও র‌্যাবকে জানিয়েছিলেন। সাধারণ ডায়েরিও করেছিলেন এ ব্যাপারে। পরে মেয়ে ঘরে ফেরার খবরটিও তিনি স্থানীয় থানাকে জানান।
মঙ্গলবার রাতে র‌্যাবের প্রকাশিত নিখোঁজ ব্যক্তিদের তালিকায় নিজের নাম দেখে বিস্মিত জাহাঙ্গীরের বাসা মগবাজারের ৩৫/১ টিঅ্যান্ডটি কলোনিতে।
জাহাঙ্গীর আলম বলেন, “আমার মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস মগবাজারের ইস্পাহানী স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ে। গত ১৩ ফেব্রুয়ারি সকালে স্কুলে গিয়ে সে নিখোঁজ হয়। পরে আমি ওই দিন দুপুরে রমনা মডেল থানায় একটি জিডি করি, যার নম্বর-৮৮২। এর তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় মধুবাগ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) জামিনুল ইসলামকে। এরপর বিকালে আমার মেয়ে তার বান্ধবীর বাসা থেকে ফিরে এলে আমি তার ফিরে আসার বিষয়টি স্থানীয় থানা, পুলিশ ফাঁড়ি, র‌্যাব কর্মকর্তাকে জানাই। পরে তারা আমার কাছ থেকে একটি লিখিতও নেয়। কিন্তু এখন আমার নাম র‌্যাবের তালিকায় কেন এল বুঝতে পারছি না।”
নাম প্রকাশ না করার শর্তে র‌্যাবের একটি সূত্র জানায়, এটা ভুল-বোঝাবুঝি হয়ে থাকতে পারে। জান্নাতুল ফেরদৌসের নিখোঁজ হওয়ার ব্যাপারে যে কর্মকর্তা তদন্ত করেছেন তিনিও র‌্যাবের সদর দপ্তরে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন বলে জানা গেছে।
বাসা খুঁজে পাওয়া যায়নি
র‌্যাবের নিখোঁজ তালিকার মধ্যে ৫৫ নম্বর তালিকায় রয়েছে মো. সিদ্দিক আলীর নাম। তিনি নিখোঁজ হন এ বছরের ১১ জানুয়ারি। তার নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় রমনা থানায় একটি জিডি হয়। জিডি নম্বর-৭৩৯। তার বর্তমান ঠিকানা লেখা রয়েছে-২৮৬/এ আমবাগান, মগবাজার, রমনা, ঢাকা। কিন্তু বুধবার দুপুরে আমবাগার এলাকায় ২৮৬/খ নম্বর বাড়ি পাওয়া গেলেও ২৮৬/এ নম্বর বাড়ির অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি।
২৮৬-খ নম্বর বাড়ির সামনে একটি চায়ের দোকানি বলেন, “আমি এখানে প্রায় ১০-১২ বছর ধরে ব্যবসা করছি। কিন্তু ২৮৬/এ নম্বর বাড়ির কথা শুনিনি। কয়েক দিন আগে একজন এসেছিলেন নিখোঁজ সিদ্দিক আলীর সন্ধানে। কিন্তু তিনিও সন্ধান না পেয়ে চলে গেছেন।”
জানতে চাইলে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান বলেন, “কিছু এদিক-ওদিক হতে পারে। আমরা তালিকা প্রকাশ করেছি। কারো কাছে তথ্য থাকলে আমাদের জানাবেন।”
গুলশান ও শোলাকিয়া জঙ্গি হামলায় জড়িতরা পরিবারের কাছে নিখোঁজ ছিলেন জানার পর দেশজুড়ে নিখোঁজ তরুণ-তরুণীদের ব্যাপারে অনুসন্ধানে নামে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার র‌্যাবের ফেসবুকে ২৬১ জনের একটি তালিকা প্রকাশ করেন।-ঢাকাটাইমস

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: