সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ১৪ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জঙ্গি তামিম কখনো বিয়ানীবাজারের বাড়িতে আসেননি: কানাডায় জন্ম, সেখানেই বেড়ে ওঠা

13718523_10205264380688046_7487654771298556273_nবিয়ানীবাজার প্রতিনিধি::
জন্মের পর কখনো বাড়ি আসেননি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর খাতায় মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গি তামিম আহমদ চৌধুরী। কানাডায় তার জন্ম, সেখানেই বেড়ে ওঠা। পড়ালেখাও করেছেন সেখানকার নামকরা প্রতিষ্ঠানে। তার পিতা শফিকুর রহমান চৌধুরী একসময় চট্রগ্রামে জাহাজে চাকরি করতেন। সেই সুবাদে পরিবারপরিজন নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে তিনি কানাডায় পাড়ি জমান। তিনি অনেকবার দেশে আসলেও জঙ্গি তামিম কিংবা তার মা, ভাই-বোনদের কেউই একবারের জন্যও গ্রামের বাড়ি আসেননি।

বিয়ানীবাজার উপজেলার দুবাগ ইউনিয়নের বড়গ্রামে তামিমদের পৈতৃক নিবাস। একদম ভারত সীমান্ত ঘেঁষা হওয়ায় পরিবারের সদস্যরা বাড়ি ফিরতে অনীহা দেখাতেন। গত ২০০১ সালে তারা সপরিবারে বাংলাদেশে আসলেও গ্রামের বাড়িতে একবারের জন্যও আসেননি। সিলেট নগরীতে বাসা ভাড়া করে প্রায় ৩ মাস থাকার পর তারা আবার ফিরে যান কানাডায়। ব্যক্তিগত জীবনে তামিম বিবাহিত এবং ৩ সন্তানের জনক। তারা ৩ ভাই ও ১ বোন। গ্রামের বাড়ির কারো সাথে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই।

মূলত ফেঞ্চুগঞ্জের নানা বাড়ির লোকজনের সাথে তাদের ভালো সম্পর্ক রয়েছে। জঙ্গি তামিমের আপন চাচাতো ভাই তাজিম আহমদ চৌধুরী (২৩), প্রতিবেশী জাকারিয়া আহমদ চৌধুরী (২৯), স্থানীয় চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম এবং এলাকার লোকজনের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

এদিকে, র‌্যাবের তথ্যানুযায়ী, তামিম আহমদ চৌধুরী দীর্ঘদিন থেকে নিখোঁজ। তার পাসপোর্ট নম্বর এ এফ ২৮৩৭০৭৬, ইস্যুর তারিখ ০৪-০৮- ২০১৩, মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ ০৩-০৮- ২০১৬, পুরাতন পাসপোর্ট নম্বর এল ০৬৩৩৪৭৮, জন্ম নিবন্ধন নম্বর ১৯৮৬০০৯১২৪১০০১৩৪২।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই জানান, বাড়ির লোকজন ভালো বংশের এবং ধর্মীয় আবহে তারা বসবাস করেন। সাধারণত এলাকায় তাদের পরিবারের তেমন কোনো খারাপ সমালোচনা নেই। তামিম যে জঙ্গি কর্মকান্ডের সাথে জড়িত, তাও জানেন না বেশিরভাগ লোক। তবে বিভিন্ন মাধ্যমে তার জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার তথ্য প্রকাশ পেলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা প্রায় প্রতিদিন এলাকায় এসে খোঁজখবর নিচ্ছেন। গোয়েন্দারা দফায়-দফায় গ্রামের বাড়ি ঘুরে তামিমদের আদ্যপান্ত জানার চেষ্টা করছেন।

প্রতিবেশী জাকারিয়া আহমদ চৌধুরী জানান, তামিমদের গ্রামের বাড়ির বসতঘরে প্রাচীন বনেদি পরিবারের ছাপ রয়েছে। তবে গ্রামে তাদের তেমন কোনো সহায় সম্পত্তি নেই। জমিজমা যা ছিল, তাও বিক্রি করে দিয়েছেন তামিমের পিতা।

দুবাগ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম জানান, জঙ্গি তামিমের গ্রামের বাড়ির অনেক সদস্যই জামায়াত-শিবিরের রাজনীতির সাথে জড়িত। তার দাদা মৃত আব্দুল মজিদ চৌধুরী মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তৎকালীন শান্তি কমিটির সদস্যদের নানাভাবে সহায়তা করতেন। যুদ্ধ পরবর্তী সময়ে এলাকার লোকজনকে তিনি কৌশলে আপন করে নেন।

বিয়ানীবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জুবের আহমদ বলেন, জঙ্গি তামিমের বিষয়টি আমাদের নজরে আসার পর থেকে আমরা নিয়মিত খোঁজখবর নিচ্ছি। পুলিশ কয়েকবার তার বাড়িতে গিয়ে অবস্থান জানার চেষ্টা করছে। তবে তারা কানাডায় স্থায়ীভাবে বসবাস করে বলে জানান তিনি।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: