সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ৫০ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

তুরস্কে ব্যর্থ অভ্যুত্থান: রাজপথে নারীদের ‘বিরল দৃষ্টান্ত’

147566_1আন্তর্জাতিক ডেস্ক : তুরস্কে রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করার লক্ষ্যে সেনাবাহিনীর ক্ষুদ্র একটি অংশ যে অভ্যুত্থানের চেষ্টা করেছিল তা জনপ্রতিরোধে ব্যর্থ হয়েছে। গত শুক্রবার রাতে এরদোগানে আহবানে সাড়া দিয়ে লাখ লাখ জনতা রাস্তায় নেমে আসে। এতে অংশ নেয় দলমত নির্বিশেষে নারী-পুরুষ, শিশু-কিশোর, আবাল-বৃদ্ধ বণিতাসহ সর্বস্তরের জনতা। এমন কি বৌদ্ধ-খৃস্টানসহ ভিন্ন ধর্মাবলম্বীরাও।

এই আন্দোলনে জনতার বিজয় হয়েছে। তুরস্ক রক্ষা পেয়েছে বড় ধরনের বিপদ থেকে। মিশরের পরিণতি ভোগ করতে হয়নি তুরস্কে।এই আন্দোলনের অনেক বিষয়ই প্রকাশিত হয়েছে স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক মিডিয়ায়।

এক্ষেত্রে নারী ও শিশুদের ভূমিকা অনেকটাই অন্তরালে থেকে গেছে। যেভাবে তাদের বিষয়টি উঠে আসার কথা ছিল তা হয়নি বলে মনে করেন দীর্ঘদিন থেক তুরস্কে অবস্থানরত বাংলাদেশি রাশেদ হাসান।

তিনি বলেন, এই অভ্যুত্থান প্রতিরোধে নারী-শিশুদের ভূমিকা এক ‘বিরল দৃষ্টান্ত’। এটা ক্ষমতাসীন সরকারের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান এবং প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদিরিমের দৃষ্টি কেড়েছে। সোমবার এক অনুষ্ঠানে প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান নারী-শিশুদের সাহসী ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করেন।

গত শুক্রবার রাতের কথা। তুরস্কের সেনাবাহিনীর ক্ষুদ্র একটি অংশ অভ্যুত্থানের চেষ্টাকালে দেশের ক্ষমতা গ্রহণের কথা ঘোষণা দেয়। সেই সঙ্গে তারা দেশে কারফিউ জারি করার কথা জানায়। ইস্তাম্বুল ও আঙ্কারার গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা দখলে নেয় তারা। বিপদগামী সেনা সদস্যদের হঠাৎ এমন ঘোষণায় হতভম্ব গোটা তুরস্কবাসী। তারা তখন বুঝে উঠতে পারছিলেন না তাদের কী করা উচিত।

এর কিছুক্ষণ পরই সিএনএন তুর্কি টেলিভিশনের পর্দায় ভেসে উঠে প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগানের চেহারা। যেখানে তিনি রাজধানী থেকে অনেক দূর দক্ষিণাঞ্চলের পর্যটন স্থান মারমারিসের অজ্ঞাত স্থান থেকে মোবাইল ফোনে ভিডিও বার্তায় জনগণকে রাস্তায় নেমে আসার আহবান জানান।

তিনি জনতার উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা যে যেভাবে আছেন রাস্তায় বেরিয়ে আসেন। যড়যন্ত্রকারীরা ব্যর্থ হবে। দেশের জনগণ যাকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করেছিল, তিনিই দায়িত্বে আছেন। আমরা যতক্ষণ সবকিছু বিসর্জন দিয়ে তাদের বিরুদ্ধে একতাবদ্ধ হয়ে দাঁড়াব, ততক্ষণ তারা সফল হতে পারবে না।’

এরদোগানের এই আহবান শোনার পরপরই লাখ লাখ জনতা রাস্তায় নেমে আসে। মুহূর্তের মধ্যেই পাল্টে যেতে শুরু করে তুরস্কের পরিস্থিতি। ওই রাতে ইস্তাম্বুলের তাসকিম স্কয়ারসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে যেসব বিশাল জমায়েত হয়েছিল তাদের নারী-শিশুদের অবস্থান ছিল লক্ষ্যনীয়। এমন কি বিপদগামী সেনাদের কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা উদ্ধারেও নারীরা অগ্রনী ভূমিকা পালন করেন।সেখানে বেশ কিছু সংখ্যক নারী গুরুতর আহতও হয়েছেন। ওই সব আহত নারীদেরকে দীর্ঘসময় রাজপথে পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: