সর্বশেষ আপডেট : ৭ মিনিট ৪৫ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

লাকী আখন্দের কেন টাকা চাইতে হবে?

28বিনোদন ডেস্ক : মরণব্যাধী ক্যান্সারের চিকিৎসা নিতে গত বছরে সরকারি সহায়তায় থাইল্যান্ড গিয়েছিলেন দেশের কিংবদন্তিতুল্য শিল্পী লাকী আখন্দ। কিছুটা সুস্থ হয়ে ফিরেছেন চলতি বছরের মার্চে। কিন্তু আবারও তার অবস্থার অবনতি। ফুসফুসে ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে বর্তমানে তিনি ভর্তি আছেন রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে। চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়ার জন্য সরকার ও ভক্তদের কাছে অর্থ সহায়তাও চেয়েছেন তিনি। কিন্তু একজন শিল্পী হিসেবে তার অর্থ সহায়তা চাওয়ার বিষয়টি মেনে নিতে পারছেন না সতীর্থরা।

বাংলা সঙ্গীতে লাকী আখন্দের যে অবদান তা স্মরণ করে সতীর্থরা বলছেন, যদি লাকী আখন্দকে সঙ্গীত ইন্ডাস্ট্রি তার প্রাপ্য যথাযথভাবে প্রদান করতেন তাহলে অন্তত তার চিকিৎসার জন্য আজকে সরকার কিংবা ভক্ত অনুরাগীদের কাছে হাত পাততে হতো না।

ব্যক্তিগতভাবে লাকী আখন্দও বহুবার বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে চিকিৎসার জন্য অর্থ সহায়তাকে একজন শিল্পীর জন্য আত্মসম্মানের বলে মনে করলেও দুর্ভাগ্যক্রমে নিজের চিকিৎসার জন্যই উপায়ন্তর না দেখে যখন সহায়তা চাইতেই হলো তখন গুণী শিল্পী আব্দুল হাদীর মুখেও শোনা গেল সেই আত্মমর্যাদার সুর।

আত্মমর্যাদাসম্পন্ন একজিন শিল্পীর জন্য অর্থসহায়তা চাওয়া লজ্জার ব্যাপার জানিয়ে সৈয়দ আব্দুল হাদী বলেন, ফের লাকী আখন্দ অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তির বিষয়টি আজকেই একটু আগে শুনলাম। এখনো তার সাথে কথা বা যোগাযোগ হয়নি। তবে সরকার বা ভক্ত অনুরাগীদের কাছে সহায়তা চাওয়ার বিষয়টা আমি ব্যক্তিগতভাবে মেনে নিতে পারি না। আত্মমর্যাদাসম্পন্ন মানুষের জন্য এটা লজ্জার। আর লাকী আখন্দের মতো শিল্পীর এমন অবস্থায় আসতে হলো এটা একজন শিল্পী হিসেবে আমাদের জন্য বেদনার। আর্থিক সহায়তার বিষয়টা শিল্পীদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকা উচিত ছিল। একজন শিল্পীর এই সংকটাপন্ন অবস্থায় প্রথমে শিল্পীদেরই এগিয়ে যাওয়া উচিত ছিল। অতীতে আমরা এভাবেই এগিয়ে গেছি। কিন্তু এটা সত্য যে, ব্যক্তিগতভাবে শিল্পী হিসেবে আমি হয়তো কারো কাছে এভাবে সহায়তা চাইতাম না, কারণ একজন শিল্পীর জন্য এটা আত্মমর্যাদার প্রশ্ন।

লাকী আখন্দের চেয়ে বয়সে বড় বাংলাদেশের আরেক জনপ্রিয় শিল্পী খুরশিদ আলম। আর সে কথা জানিয়েই লাকীর অবদান স্মরণ করে তিনি বলেন, বাংলা সঙ্গীতে লাকীর অবদান অনেক। তার প্রচুর গান আছে, সবই হিট। ও আমার চেয়ে বয়সে ছোট। ওর শরীরের অবস্থা এত খারাপ, দেখে খারাপ লাগে তার বর্তমান অবস্থা দেখে। তার অসুস্থতায় অর্থাভাব আমাদের জন্য লজ্জার ব্যাপার। সাবিনার মত শিল্পীর চিকিৎসার জন্য হাত পাততে হইতেছে, বিশ্বাস করতে পারেন। এটা শিল্পী হেসেবে সত্যিই খুব লজ্জার।

শিল্পীদের প্রতি সরকার ও সাধারণ মানুষের যে অবজ্ঞার সৃষ্টি হয়েছে সে বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে খুরশিদ আলম বলেন, আগের বার প্রধানমন্ত্রী লাকী আখন্দের চিকিৎসায় অর্থ দিয়েছেন সত্য কিন্তু এটাও দেখতে হবে যে দেশের একজন মন্ত্রী অসুস্থ হলে তাকে দ্রুত গতিতে লন্ডন, আমেরিকা নিয়ে যাওয়া হয়, কিন্তু একজন শিল্পীর অসুস্থতায় সামান্য কিছু অর্থ সহযোগিতায় দায় সারা হয়ে যায়! মন্ত্রীরা একটু অসুস্থ হলেই উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ চলে যাবে, আমরা কি তাহলে শুধু সাড়া জীবন অ্যাপোলো, বারডেমেই পড়ে থাকবো? এটারও দায় দেই না, ভাবি দরিদ্র দেশ। আর কিই বা করার আছে?

খুরশিদ আলম আরো বলেন, ভারতের দিকে তাকালে দেখবেন, অমিতাভ কিংবা কোনো শিল্পী যদি অসুস্থ হয়ে যায় তাহলে সাড়া ভারতজুড়ে খবর হয়ে যায়। সাড়া পড়ে যায়। অথচ আমাদের এখানে দেখেন কি অবস্থা! একজন প্রতিষ্ঠিত শিল্পী মৃত্যু সজ্জায়, অথচ সে সময়ও তাকে মানুষের কাছে সরকার কাছে হাত পাততে হয়। এটা আসলে আমাদের দুর্ভাগ্য।

লাকী আখন্দ যে পরিমাণ হিট গান উপহার দিয়েছেন সেগুলোর যদি যথাযথ রয়ালিটি দেয়া হতো তাহলে আজকে সরকার বা মানুষের কাছে সহায়তা চাইতে হতো না জানিয়ে ‘রেনেসাঁ’ ব্যান্ড প্রধান নকিব খান বলেন, আসলে বাংলাদেশে প্রত্যেক শিল্পীরই একই অবস্থা। লাকী আখন্দ যে গানগুলো গেয়েছেন তার রয়ালিটি এবং পরবর্তীতে যারা তার গান গাইছেন সেসবের রয়ালিটি যদি তাকে দেয়া হতো তাহলে শুধু লাকী আখন্দ নয়, যেকোনো শিল্পীরই এই অবস্থায় কারো কাছে হাত পাততে হতো না। শিল্পীর এই রয়ালিটি নিয়ে আমরাও অনেক আন্দোলন করেছি। আইনও হয়েছে, কিন্তু কার্যকর হয়নি। আসলে রয়ালিটি’র সংস্কৃতি বাংলাদেশে গড়েই উঠেনি। যদি হতো তাহলে কোনো শিল্পী অন্তত অর্থাভাবে কষ্ট পেত না।

মূল কথা হচ্ছে লাকী আখন্দের মত শিল্পীদের বেঁচে থাকার জন্য মানুষের কাছে সহায়তা চাইতে হয় এটা শুধু একজন কিংবা দুই তিনজন শিল্পীর জন্য কষ্টদায়ক ব্যাপার নয় বরং গোটা বাঙালি জাতির জন্য লজ্জার। এবং ভবিষ্যত শিল্পীদের জন্যও বড় হুমকি। যে মানুষটি শুধু গানই করেননি বরং বাংলাদেশের অভ্যুদ্বয়ে সরাসরি অস্ত্রহাতে রণাঙ্গণে যুদ্ধ করেছেন সেই আত্মমর্যাসম্পন্ন এই মানুষটির এমন অবস্থা মেনে নিতে পারছেন না সতীর্থসহ গোটা জাতি।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: