সর্বশেষ আপডেট : ৭ মিনিট ১০ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সেই ‘ভাল ছেলে’ রোকন জঙ্গিদের আশ্রয়দাতা

27নিউজ ডেস্ক :: যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার শংকরপুর ইউনিয়নের নাইড়া গ্রামের মৃত আইনুদ্দিনের ছোট ছেলে রোকনুজ্জামান রোকনকে স্থানীয়রা ‘ভাল ছেলে’ হিসেবেই জানেন। তাই তার জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার খবরে তারা হতবাকই হয়েছেন।

রোকন ঝিনাইদহে অবস্থানকালে একটি মেসে ৮ জঙ্গিকে আশ্রয় দিয়েছিলেন। এর মধ্যে গুলশান হামলায় জড়িত অন্যতম জঙ্গি নিবরাস ইসলামও রয়েছেন।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র রোকন ঝিনাইদহ শহরের সোনালী পাড়ার দারুস সালাম মসজিদের ইমাম। সেই সূত্র ধরেই তিনি ওই এলাকার মেসে জঙ্গিদের আশ্রয় দিয়েছিলেন।

স্থানীয়রা জানান, পড়াশুনার সুবাদে বেশ কয়েক বছর ধরে রোকন বাড়িতে ছিলেন না। বাড়ি থেকে লেখাপড়ার খরচ নিতেন না, যাতায়াতও কম ছিল। এজন্য এলাকাবাসীর সঙ্গে যোগাযোগ ছিল কম।

ঝিনাইদহ শহরের সোনালী পাড়ার সাবেক সেনা সার্জেন্ট কাউসার আলীর স্ত্রী বিলকিস সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, বাড়ির পাশের দারুস সালাম মসজিদের ইমাম ও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র রোকনুজ্জামান আনুমানিক চার মাস আগে তার বাড়িতে ভাড়াটিয়া নিয়ে আসনে। ইমাম তখন বলেছিলেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা থাকবেন। প্রথমে দুইজন ওঠে। পরে আরও ছয়জন আসেন। এরপর তাদের কাছে বাসা ভাড়া দেয়া হয়।

রোকনুজ্জামানের ভাবি রাবেয়া খাতুন বলেন, আমার শ্বশুর বেঁচে নেই। তাই রোকন বাড়ি থেকে লেখাপড়ার খরচ নিতো না। নিজের উপার্জনের টাকায় চলতো। মাঝে মাঝে বাড়িতে বেড়াতে আসতো। রোকন ভাল ছেলে। অনেক কষ্ট করে লেখাপড়া করেছে।

রাবেয়া খাতুন আরও বলেন, নিজের টাকায় স্থানীয় বাগআচঁড়া মাদরাসা থেকে আলিম পাস করার পর সে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দেয়। কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পায়। এরপর ঝিনাইদহ শহরে থেকে পড়াশুনার পাশাপাশি একটি মসজিদে ইমামতি করতো। ঈদের আগে থেকে আর বাড়িতে আসেনি সে।

প্রতিবেশি ইসরাইল হোসেন, বাবু মিয়াসহ অনেকেই জানান, রোকনুজ্জামান রোকনকে গ্রামে খুব কম দেখা যায়। এলাকায় তার বিরুদ্ধে কোনো অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগ নেই। এলাকার মানুষের কাছে রোকন ভাল ছেলে হিসেবে পরিচিত।

ঝিকরগাছার শংকরপুর ইউনিয়নের নাইড়া এলাকার মেম্বর হাসমত আলী জানান, সাবেক সরকারি কর্মচারী মৃত আইনুদ্দিনের দুই স্ত্রী। দ্বিতীয় স্ত্রীর ছোট ছেলে রোকনুজ্জামান। প্রথম স্ত্রীর সন্তানরা আওয়ামী লীগের সমর্থক। রোকনুজ্জামানরা বিএনপির সমর্থক। তবে তাদের পরিবারের কেউ দলীয় কোনো পদে নেই। রোকনের জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি সাংবাদিকদের মাধ্যমে জানতে পেরেছি। তবে এলাকার মানুষ তাকে ভাল ছেলে হিসেবে চেনে।

জঙ্গিদের আশ্রয়দাতা ইমাম রোকনুজ্জামানের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ঝিকরগাছা উপজেলার শংকরপুর ইউনিয়নের নাইড়া গ্রামের মৃত আইনুদ্দিনের দুই স্ত্রী। প্রথম স্ত্রীর ৩ ছেলে ১ মেয়ে। আর দ্বিতীয় স্ত্রীর ২ ছেলে ১ মেয়ে। দ্বিতীয় স্ত্রীর ছোট ছেলে রোকনুজ্জামান রোকন। আর বড় ছেলে হাদিউজ্জামান বাগেরহাটে একটি বেসরকারি সংস্থায় চাকরি করেন। মেয়েটি মারা গেছে কয়েক বছর আগে।

রোকনুজ্জামান নাইড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পঞ্চম শ্রেণি পাস করার পর স্থানীয় উড়াকোল মাদরাসা ও যশোর শহরের দড়াটানা মাদরাসা থেকে হাফেজি পাস করেন। এরপর স্থানীয় বাগআঁচড়া মাদরাসা থেকে দাখিল ও আলিম পাস করেন। এরপর বাড়ি থেকে চলে যান ঝিনাইদহে। সেখান থেকে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির প্রস্তুতি নেন। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়ে পড়াশুনা করতেন। পাশাপাশি একটি মসজিদে ইমামতিও করতেন।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: