সর্বশেষ আপডেট : ২১ মিনিট ৩২ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শত বছর পর সরকারী হলো নবীগঞ্জের জে.কে হাই স্কুল

7d2e05c4-c34e-4999-887d-b2480ca231daমতিউর রহমান মুন্না, নবীগঞ্জ ::
নবীগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী জে.কে মডেল উচ্চ বিদ্যালয়কে শত বছর পর সরকারীকরণ করা হয়েছে। ১৯১৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এই বিদ্যালয়টি চলতি ২০১৬ সালে শত বছর পূর্ন হয়। নবীগঞ্জ শহরের রাজাবাদ পয়েন্ট এবং থানার মধ্যবর্তী স্থানে অবস্থিত এই বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার পর থেকেই অত্যান্ত সুনামের সাথে পরিচালিত হয়ে আসছে। ৬ একর ৫৪ শতক জমির উপর প্রতিষ্ঠিত এই বিদ্যালয়ে বর্তমানে ১ হাজারেরও অধিক ছাত্র-ছাত্রী ও স্থায়ী ১২জনসহ ২০ শিক্ষক রয়েছেন। বিদ্যালয়ের ২টি দ্বিতল ভবনসহ ৬টি ভবন রয়েছে। বিদ্যালয়ের পাশেই রয়েছে সবার জন্য উন্মুক্ত একটি বিশাল খেলার মাঠ। রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানাদি পালনসহ শহর এলাকার বিনোদনের চাহিদা পূরণ করছে ওই বিদ্যালয়ের মাঠ। মাঠের পাশেই জীর্ণশীর্ণ দাঁড়িয়ে রয়েছে অসম্পন্ন একটি ছাত্রাবাস ভবন। এই বিদ্যায়টি সরকারী করণের জন্য দীর্ঘদিন ধরেই মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছিল বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ও বর্তমান ছাত্র-ছাত্রীরা। স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ অনেকের প্রচেষ্টার পর শত বছরে এসে সরকারী ঘোষনা করা হলো জে.কে মডেল উচ্চ বিদ্যালয়কে।

বিভিন্ন সূত্রে প্রকাশ, ১৯৭১ সালের স্বাধীনতাযুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্রয়স্থল হিসেবেও ব্যবহৃত হয় এই বিদ্যালয়টি। অতঃপর ২০০৯ আদর্শ মডেল স্কুল হিসেবে স্বীকৃতি পায়। নবীগঞ্জ উপজেলায় প্রথম প্রতিষ্ঠিত প্রাচীন ওই বিদ্যালয়ে লেখা পড়া করে নবীগঞ্জের এসএসসি উত্তীর্ণ অনেক মেধাবী শিক্ষার্থী উচ্চতর ডিগ্রি নিয়ে দেশ ও প্রবাসে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন। এই বিদ্যালয়েরই প্রাক্তন শিক্ষার্থী মো. আব্দুস সালাম বর্তমানে প্রধান শিক্ষক হিসেবে কমর্রত আছেন। ১৯১৬ সালে প্রতিষ্ঠার পর ১৯৮৪ সালের ১লা জানুয়ারি এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠান হিসেবে স্বীকৃতি পায় এই বিদ্যালয়।

6e2e399c-736f-4343-9df5-ff87b5b338f0শিক্ষার আলো ছড়াতে বর্তমান সদর ইউপির আদিত্যপুর গ্রামের দুই সহোদর মোগল ও কিশোরের উদ্যোগে ৬ একর ৫৪ শতাংশ ভূমিতে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করা হয়। ২০১৬ সালে নির্বাচিত হয়ে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্বপালন করছেন নবীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী। ১৯২০ সাল থেকেই এসএসসি চালু রয়েছে। বিদ্যালয়ে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আর বৃক্ষ পরিবেষ্টিত পরিচ্ছন্ন পরিবেশ ছাড়াও রয়েছে বড় একটি খেলার মাঠ থাকলেও নেই খেলার সামগ্রী। দুটি ভবনের ১৪ টি কক্ষে ক্লাস চালু। তবে নামে মাত্র একটি পাঠাগার বিদ্যমান থাকলেও নেই কোন কক্ষ বা উপকরণ। পাঠাগারে প্রয়োজনীয় বই সরবরাহের ব্যবস্থা নেই।

এদিকে, ১৯১৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এই বিদ্যালয়টি চলতি ২০১৬ সালে শত বছরে পা রাখে। এমনকি অনাড়ম্ভর আয়োজনে শত বছর পূর্তি উদযাপনের জন্য প্রায় ১ বছর আগেই শত বছর পূর্তি উদযাপন কমিটিও গঠন করা হয়। গন গন মিটিং করেন কমিটির সদস্যরা। যদিও কয়েক মাস ধরে এ কমিটির কোন কার্যক্রম লক্ষ করা যাচ্ছে না। তবে আগামী অক্টেবর বা নভেম্বর মাসেই শত বছর পূর্তি উদযাপন করা হবে বলে জানালেন ওই কমিটির এক সদস্য। জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে শত বছর পূর্তি উদযাপন করার জন্য নানা প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি। বিদ্যালয়টি সরকারীকরণে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শিক্ষা মন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে অভিনন্দন জানিয়েছে নবীগঞ্জের সর্ব প্রথম অনলাইন সংবাদ মাধ্যম নবীগঞ্জ নিউজ ডট কম। এর বার্তা সম্পাদক মতিউর রহমান মুন্না স্বাক্ষরিত এক পত্রে এ অভিনন্দন জানানো হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: