সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ৩১ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শ্রমিক অসন্তোষের মধ্যে ব্যক্তি মালিকানাধীন মাধবপুরের বৈকন্ঠপুর চা বাগানে উৎপাদন শুরু

Habiganj Tea news daily sylhetহবিগঞ্জ প্রতিনিধি:
শ্রমিক অসন্তোষের মধ্য দিয়ে হবিগঞ্জের মাধবপুরের ব্যক্তি মালিকানাধীন বৈকন্ঠপুর চা বাগানে উৎপাদন শুরু হয়েছে। বুধবার শ্রমিকরা কাজে যোগ দিলেও বৃহস্পতিবার থেকে উৎপাদন শুরু হয়।

বৈকন্ঠপুর চা বাগানের শ্রমিকরা জানান, গত ১৭ মে থেকে হঠাৎ করে মালিক পক্ষ শ্রমিকদের মজুরি বন্ধ করে দেয়। এছাড়া বিদ্যুৎ বিল বকেয়া থাকায় বিচ্ছিন্ন করা হয় কারখানা ও বাসাবাড়ির সংযোগ। এ অবস্থায় চা বাগানের নিয়মিত ৪০০ শ্রমিকসহ প্রায় ২ হাজার বাসিন্দা অবর্ণনীয় দুর্ভোগের মধ্যে পড়েন। দেখা দেয় খাদ্যাভাব। বন্ধ হয়ে পড়ে চিকিৎসাসেবা। এ নিয়ে শ্রমিকদের মধ্যে চরম অসন্তোষ দেখা দেয়।

এ সমস্যা উত্তোরণের জন্য শ্রমিকরা বাগানে বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধনসহ নানা কর্মর্সূচি পালন করে। সমস্যা সমাধানের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, শ্রম অধিদফতরের লোক ও শ্রমিক প্রতিনিধিরা একাধিকবার বৈঠকে বসেন। কিন্তু কোনো সুরাহা হয়নি।

প্রায় দেড় মাস বন্ধ থাকার পর শ্রম অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো.মনিরুজ্জামানের সভাপতিত্বে চা বাগানের পরিচালক পিকে মুখার্জী, বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক রাম ভজন কৈরী, লস্করপুর ভ্যালির শ্রমিক নেতৃবৃন্দ ও বৈকন্ঠপুর চা বাগানের শ্রমিক নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে ১০ জুলাই শ্রীমঙ্গলে ত্রি-পক্ষীয় বৈঠক করেন। বৈঠকে ২৫ জুলাইয়ের মধ্যে সকল বকেয়া পাওনা পরিশোধ ও সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেয়া হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে শ্রমিকরা ১৩ জুলাই কাজে যোগ দেয়।

বৈকন্ঠপুর চা বাগানের শ্রমিক নেতা খোকন ব্যানার্জী জানান, আর্থিক দৈন্যদশার মধ্যে চা বাগানটি বন্ধ হয়ে পড়ে। এতে প্রায় ২ হাজার চা বাগান বাসিন্দা মারাত্মক অসুবিধার মধ্যে পড়েন।

এ ব্যাপারে বাগানের পরিচালক পিকে মুখার্জী জানান, ২০১৩ সালের হরতাল, অবরোধের সময় বৈকন্ঠপুর চা বাগানের উৎপাদিত চা পাতা বিক্রি করা যায়নি। তখন বাগানটি বিরাট আর্থিক লোকসানের মধ্যে পড়ে।

তিনি আরো বলেন, গত বছরের অক্টোবর মাস থেকে কৃষি ব্যাংক ঋণ বন্ধ রয়েছে। এসব আর্থিক সংকটের মধ্যেও ধারদেনা করে শ্রমিকদের রেশন, মজুরি ও অন্যান্য বকেয়া পরিশোধ করা হয়। বাগানটি চালু রাখার স্বার্থে সরকারি আর্থিক প্রণোদনা ও ব্যাংক ঋণ মঞ্জুর জরুরি।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: