সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ৩৩ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নিখোঁজ তিন জঙ্গির সঙ্গে পরিবারও লাপাত্তা

full_343497600_1468469506নিউজ ডেস্ক:: নিখোঁজ যে ১০ জঙ্গির তালিকা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে প্রকাশ করা হয়েছে, তাদের মধ্যে তিনজনের পরিবারের খোঁজ মিলছে না। নিখোঁজ দুই সহোদর ইব্রাহীম হাসান খান ও জুনায়েদ খানের বাসা বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায়। অপরদিকে পান্থপথ এলাকায় পরিবারের সঙ্গে থাকতেন আশরাফ মোহাম্মদ ইসলাম।

বুধবার ওই দুই বাসায় গিয়ে পরিবারের সদস্যদের পাওয়া যায়নি। প্রতিবেশীরাও তাদের বর্তমান অবস্থান সম্পর্কে কিছু জানাতে পারেননি। ইতোমধ্যে দুটি পরিবার বিদেশে পাড়ি জমিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশও তাদের নিখোঁজের বিষয়ে কিছু জানে না। পরিবার দুটি কোথায় আছে এ বিষয়ে থানা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করেও কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় ব্লক-ই, রোড নম্বর ৬, ৩০১/বি, অর্কিড গ্যালারি ভবনের এফ-৩ নম্বর ফ্ল্যাটের মালিক নিখোঁজ জঙ্গি ইব্রাহীম হাসান খান ও জুনায়েদ খানের বাবা মুনির হাসান খান। পরিবারের সদস্যরা এক বছর আগে ফ্ল্যাট তালাবদ্ধ করে সৌদি আরবে পাড়ি জমিয়েছেন বলে প্রতিবেশীরা জানান। এরপর থেকে তাদের কোনো খোঁজ নেই।

গতকাল ওই ভবনে গিয়ে এর সত্যতা পাওয়া যায়। তবে পরিবারটি সেখানে কতদিন ধরে বসবাস করছে, সে বিষয়ে কিছু জানাতে পারেননি প্রতিবেশীরা। সন্দেহভাজন দুই জঙ্গির বাবা মুনির হাসানের পেশা কী বা তাদের গ্রামের বাড়ি কোথায় সে বিষয়েও নিশ্চিত করে কিছু জানাতে পারেননি তারা। ফ্ল্যাটটি কতদিন আগে মুনির হাসান কিনেছিলেন সে তথ্যও উদ্ধার করা যায়নি।

অর্কিড গ্যালারির ফ্ল্যাট মালিক সমিতির সহ-সভাপতি শাহাদত হোসেন বাচ্চু জানান, ইব্রাহীম ও জুনায়েদের বাবা সৌদি আরবে থাকতেন বলে তিনি শুনেছেন। এক বছর ধরে পরিবারের সদস্যরা দেশের বাইরে রয়েছেন। পরিবারের সদস্য সংখ্যা কত সে বিষয়েও তিনি কিছু জানাতে পারেননি। তবে তার দুই ছেলে দেশের বাইরে পড়াশোনা করছেন বলে মুনির হাসান খান তাকে জানিয়েছিলেন। তবে তারা বেশিদিন ঢাকায় ছিলেন না।

ওই ভবনের তত্ত্বাবধায়ক আবদুর রহমান জানান, মুনির হাসানের জামাতা পরিচয়ে এক ব্যক্তি গত এপ্রিলে ফ্ল্যাটের সার্ভিস চার্জের টাকা পরিশোধ করেছিলেন। সর্বশেষ দুই মাসের চার্জের টাকা বকেয়া রয়েছে।

অর্কিড গ্যালারির নিরাপত্তারক্ষী মো. তসলিম বলেন, ফ্ল্যাটটিতে মুনির হাসানের স্ত্রী ইয়াসমিন জুনায়েদ অধিকাংশ সময় থাকতেন। এক বছর ধরে তাকেও দেখা যাচ্ছে না। তার পরিবারের অন্য সদস্যদের বিষয়ে তিনি কিছু জানাতে পারেননি। মুনির হাসানের এক ছেলে ও এক মেয়ে অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করছেন বলে তিনি শুনেছেন।

ওই ভবনের এক বাসিন্দা বলেন, পরিবারটি প্রতিবেশীদের সঙ্গে মিশতো না। এ কারণে তাদের বিষয়ে তারা বিস্তারিত কিছু জানেন না।

এ বিষয়ে ভাটারা থানার ওসি নুরুল মোত্তাকীন বলেন, ইব্রাহীম ও জুনায়েদের পরিবার সম্পর্কে তিনি কিছু জানেন না। তাদের পরিবার নিখোঁজ কি না সে বিষয়েও তার কাছে কোনো তথ্য নেই।

এদিকে নিখোঁজ জঙ্গি আশরাফ মোহাম্মদ ইসলাম পরিবারের সঙ্গে পান্থপথের ১৪/এ, কনকর্ড রিজেন্সি ভবনে বসবাস করতেন। তার বাবার নাম আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম। ওই বাসায় আশরাফের বাবা, মা ও বোন থাকতেন। ঈদের আগে তার পরিবারের সদস্যরা দেশের বাইরে চলে গেছেন। আশরাফও এক বছর ধরে ওই বাসায় আসেন না বলে ভবনের একজন নিরাপত্তারক্ষী জানান।

ওই ভবনের ফ্ল্যাট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মিজু আহমেদ জানান, নিখোঁজ ১০ যুবকের মধ্যে আশরাফ রয়েছেন বলে তিনি জেনেছেন। তবে আশরাফের সঙ্গে তার পরিচয় ছিল না। তার বাবা একজন আইনজীবী এবং ফ্ল্যাট মালিকদের সভায় তিনি আসতেন।

আশরাফের পরিবার সম্পর্কে জানতে চাইলে কলাবাগান থানার ওসি মো. ইকবাল বলেন, এ বিষয়ে তার কাছে কোনো তথ্য নেই।

এদিকে নিখোঁজ ১০ সন্দেহভাজন জঙ্গির মধ্যে লক্ষ্মীপুরের এ টি এম তাজউদ্দিন কাউসার অস্ট্রেলিয়ায় থাকতেন বলে তার পরিবার জানিয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরের ধর্মান্তরিত মুসলমান মোহাম্মদ সাইফুল্লাহ ওজাকি জাপান প্রবাসী ছিলেন। নিখোঁজ তালিকায় থাকা নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির সাবেক শিক্ষার্থী মোহাম্মদ বাসারুজ্জামানের গ্রামের বাড়ি রাজশাহীর তানোর উপজেলায়। মালয়েশিয়ায় যাওয়ার কথা বলে ৬/৭ মাস আগে তেজগাঁওয়ের মনিপুরীপাড়ার শ্বশুরবাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফেরেননি তিনি। সূত্র: সমকাল

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: