সর্বশেষ আপডেট : ১১ মিনিট ৯ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

হাসপাতালে ঈদ কাটালেন এসপি বাবুল

24নিউজ ডেস্ক :: প্রতিবছর পরিবার নিয়ে স্বচ্ছন্দেই ঈদ উদ্‌যাপন করে এসেছেন এসপি বাবুল আক্তার। কখনো ঢাকায় শ্বশুরবাড়ি, কখনো নিজের মা-বাবার সঙ্গে মাগুরায়। আবার কখনো বা কর্মস্থল চট্টগ্রাম অঞ্চলে। কিন্তু স্ত্রী খুন হওয়ার পর ঈদ আনন্দ তো দূরের কথা, স্বাভাবিক জীবন যাপনও তার জন্য কঠিন হয়ে পড়েছে। প্রকৃতির নির্মম পরিহাসের মতো এবার ঈদ কেটেছে তার হাসপাতালে।

তিনি নিজে সুস্থ থাকলেও তার একমাত্র ছেলে আখতার মাহমুদ মাহির মা হারানোর ঘটনায় মুষড়ে পড়েছে। তাকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে রাজধানীর একটি হাসপাতালে। ঈদের দিনও ছেলেকে নিয়ে তিনি ছুটে বেড়িয়েছেন হাসপাতালে।

শ্বশুরবাড়ি সূত্রে জানা যায়, বাবুল আক্তারের আট বছরের ছেলে আখতার মাহমুদ মাহির মায়ের ওপর নৃশংসতা নিজে সামনে থেকে দেখেছে। এরপর থেকে সে অস্বাভাবিক আচরণ শুরু করে। সারাক্ষণ মায়ের কথা জিজ্ঞেস করে। ঘুমাতে চায় না। এ অবস্থায় চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া হয়। তার সঙ্গে কেমন আচরণ করা হবে, কোন কথা বলা যাবে আর কোনটা যাবে না, এমনকি খাওয়া-দাওয়া নিয়েও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এতে কিছুটা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসছে মাহির। তবে বাসায় কোনো আত্মীয় বা বাইরের মানুষ এসে তাকে মায়ের কথা মনে করিয়ে দিলেই সে মাকে খুঁজে অস্থির হয়ে যায়। কারো সঙ্গে কথা বলতে চায় না। বাসার এ রুম ও রুমে খুঁজতে থাকে। এ সময় পরিবারের সদস্যরা তাকে ভুলিয়ে রাখার চেষ্টা করে। তাকে প্রায়ই হাসপাতালে নেওয়া হয় চিকিৎসকের কাছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ঈদুল ফিতরের দুই দিন আগে থেকে মাহির তার মাকে খুব বেশি খোঁজাখুঁজি শুরু করে। মায়ের জন্য অস্বাভাবিক আচরণও করতে থাকে। সেই সঙ্গে খাওয়া-দাওয়াও প্রায় বন্ধ করে দেয়। এর আগে তার শ্বশুরের পরিবারের পক্ষ থেকে মাহিরকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এই ঈদের ছুটিতে বাবুল আক্তার নিজেই তার শিশুসন্তানকে নিয়ে গেছেন হাসপাতালে।

ঈদের দিন ও এর পরও তাকে নিয়ে হাসপাতালে গেছেন বাবুল আক্তার—এমনটিই জানালেন তার শ্বশুর মোশাররফ হোসেন। মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘মাহির এখনো স্বাভাবিক হয়নি। এ কারণে তাকে চিকিৎসা করানো হচ্ছে। দোয়া করবেন যেন শিশুটি তার জীবনের সেই বিভীষিকা ভুলে সম্পূর্ণ স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারে।’

পারিবারিক সূত্র জানায়, ছেলের জন্য তার মা পছন্দ অনুযায়ী নতুন পোশাক কিনে দিতেন প্রতিবারই। এবারই প্রথম মাকে ছাড়া ঈদ করায় তার মধ্যে প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। তবে বাবুল আক্তারের সাড়ে চার বছরের মেয়ে তাবাসসুম তাসনিম টাপুর তেমন কিছু বুঝে না। মাকে খুঁজলেও সে প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে না। তার নানার পরিবার শিশু দুটিকে ভালো রাখার সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছে।

জানা গেছে, সন্তানদের কষ্ট দেখে বাবুল আক্তারও মুষড়ে পড়েছেন। এ বিষয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে বাবুল আক্তারের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ হয়নি।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: