সর্বশেষ আপডেট : ১৩ মিনিট ৫০ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ২৫ মার্চ, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১১ চৈত্র ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে ইসলাম

jongiনিউজ ডেস্ক : ইসলাম শান্তির ধর্ম। কথাটি চির সত্য হলেও আজ বিশ্বব্যাপী ইসলামকে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদি ধর্ম হিসেবে পরিচয় করিয়ে দিতে তৎপর এক অশুভ শক্তি। জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের ত্রাসে বিশ্ব আজ আতঙ্কিত। এমনকি সম্প্রতি প্রিয় মাতৃভূমি পর্যন্ত আজ সন্ত্রাসবাদের আতঙ্কে কাঁপছে। সর্বত্র ভয়, হামলার শঙ্কা। শান্তিপ্রিয় দেশটি অশান্ত হয়ে উঠেছে। গুলশান ও শোলাকিয়ায় সন্ত্রাসী হামলার পর এ ভয় আরও প্রকট হয়ে দাঁড়িয়েছে। এসব হামলা ইসলামের নামে করা হলেও প্রকৃতপক্ষে ইসলামের সঙ্গে এসব জঙ্গি কর্মকান্ডের কোন সম্পর্ক নেই।

ইসলাম যে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদকে সমর্থন করে না তা বলার অপেক্ষা রাখে না। যে ধর্মের নামেই রয়েছে শান্তি সুবাস, যে ধর্মের নবীকেই প্রেরণ করা হয়েছে জগতবাসীর জন্য শান্তি ও রহমত স্বরূপ, সে ধর্মের নামে এমন অপকাজ ইসলামবিরোধী অমানবিক।

ইসলাম যেহেতু মানুষকে দুনিয়া ও আখিরাতের ব্যাপক শান্তি কিংবা অন্তত নানা ধর্মের মানুষের মধ্যে শুধু দুনিয়ার শান্তির প্রতি আহ্বান জানায়, তাই এ ধর্ম অন্যের ওপর অত্যাচার বা সীমালঙ্ঘনমূলক আচরণকে কঠোরভাবে হারাম ঘোষণা করে। তীব্রভাবে একে প্রত্যাখান করে এবং সীমালঙ্ঘন বা উৎপীড়নমূলক কাজ এর জন্য দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করে। হাদীসে কুদসীতে আল্লাহ তা‘আলা বলেন, ‘হে আমার বান্দা, আমি নিজের ওপর জুলুম হারাম করেছি এবং তোমাদের জন্যও একে হারাম করেছি। অতএব তোমরা একে অপরের ওপর জুলুম করো না।’

জুলুম অত্যাচার আল্লাহর জন্যও হারাম। অতএব যারা নিরাপরাধ মানুষের ওপর জুলুম অত্যাচার করে তাদের কর্মকা-ও কতটা হারাম অনুমেয়। সম্প্রতি ফরিদ উদ্দীন মাসউদের এক লক্ষ আলেমের সমন্বয়ে জঙ্গিবাদবিরোধী ফতোয়াটি এসব কর্মকান্ডের ব্যাপারে ইসলামের অবস্থান তুলে ধরে। কোন ধ্বংসযজ্ঞ কর্মকা-ের নামও জেহাদ নয়, যুদ্ধের ময়দানে নারী শিশু হত্যা করা সম্পূর্ণ হারাম। আর সন্ত্রাসবাদীরা নারী শিশুদের হত্যা করে কোন জেহাদের পরিচয় তুলে ধরছে?

ইসলামে আত্মরক্ষার জন্য জিহাদের কথা বলা হয়েছে। তবে এ জিহাদ মানে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ নয়। জিহাদ হচ্ছে নীপিড়িত অত্যাচারিত জাতিকে মুক্তির জন্য। অন্যায়ের প্রতিরোধের জন্য। এ বিষয়ে কুরআনে বলা হয়েছে,

‘হে মুমিনগণ, তোমরা আল্লাহর জন্য ন্যায়ের সাথে সাক্ষদানকারী হিসেবে সদা দন্ডায়মান হও। কোন কওমের প্রতি শত্রুতা যেন তোমাদের কোনভাবে প্ররোচিত না করে যে, তোমরা ইনসাফ করবে না। তোমরা ইনসাফ কর, তা তাকওয়ার নিকটতর এবং আল্লাহকে ভয় কর। নিশ্চয় তোমরা যা কর, আল্লাহ সে বিষয়ে সবিশেষ অবহিত।’

তবে ইসলামের এসব সুস্পষ্ট নীতিমালা থাকার পরও মুসলিম নামধারী অনেকে ইসলামের মহান আদর্শকে উপেক্ষা করে। আল্লাহ তা‘আলার নির্দেশ অমান্য করে তারা সন্ত্রাস ও আগ্রাসনের পথ বেছে নেয়। এর মূলত ইসলামের নামে ইসলামেরই চিরশত্রু।-আমাদের সময়.কম

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: