সর্বশেষ আপডেট : ১১ মিনিট ৫২ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জীবিত উদ্ধার ব্যক্তিদের কয়েকজনকে স্বাক্ষী করা হবে

777777777777777777777নিউজ ডেস্ক : গুলশানে স্প্যানিশ রেস্টুরেন্টে হামলার ঘটনায় জীবিত উদ্ধার ব্যক্তিদের কযেকজনকে মামলায় স্বাক্ষী করা হবে। আর জীবিতদের কারো ওই ঘটনায় সম্পৃক্ততা থাকলে তাদেরকে আসামি করা হবে। এই ব্যাপারে জীবিতদের সকলকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। আর যাদেরকে সন্তেহজনকভাবে আটক করা হয়েছে তাদের মধ্যে যারা জড়িত তাদেরকেও আসামি করা হবে। জড়িত নন এমনটি নিশ্চিত হওয়া ব্যক্তিদের স্বাক্ষী করা হতে পারে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা দফায় দফায় তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে বিদেশি জীবিত নাগরিকদের তাদের দেশের প্রতিনিধির কাছে বুঝিয়ে দিয়েছেন। তবে তাদের কাছ থেকেও ঘটনার বিস্তারিত জেনেছেন।

এদিকে সূত্র জানায়, এই ঘটনায় একটি নয় একাধিক মামলা হবে। ওই মামলায় আসবে বিভিন্ন বিষয়। যেমন হামলার ঘটনায় আলাদা মামলা হবে, সেই সঙ্গে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহীতার অভিযোগ আনা হবে। এছাড়া হত্যার ঘটনায়ও আলাদা করে মামলা হতে পারে।

এই ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, এই ঘটনায় একাধিক মামলা করা হবে। আর এই জন্য বিভিন্ন তথ্য প্রমাণও সংগ্রহ করা হচ্ছে। এই সব তথ্য সংগ্রহ করার পর ও যাদেরকে জীবতি উদ্ধার করা হয়েছে তাদের সকলের স্বাক্ষ্য গ্রহণ করা হচ্ছে। ওই সব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে মামলায় অভিযোগ আনা হবে। এছাড়াও তদন্ত কর্মকর্তারা ঘটনার বিভিন্ন দিক বিবেচনা করছেন ও ঘটনার তদন্ত করছেন।

সূত্র জানায়, ছবিতে একজন ব্যক্তির দিকে সন্দেহের তীর ছিলো। তিনি হলেন ইঞ্জিনিয়ার হাসনাত করিম। তিনি ঘটনার দিন ওই রেস্টেুরেন্ট স্ব পরিবারে  ছিলেন। তিনিই প্রথম তার চাচাকে ফোন করে জানান তাদেরকে জিম্মি করার কথা। এরপর তিনি রেস্টুরেন্টের ভেতরে বিভিন্ন স্থানে ঘুরাফেরা করেছেন।  তাকে জঙ্গিদের পাশেও দেখা গেছে নিরাপদে থাকতে। কথা বলতে। অভিযান পরিচালনার পর যখন জীবিতদের উদ্ধার করা হয়েছে সেখানে হাসনাত করিম তার পুরো পরিবারের সদস্যদের নিয়ে নিরাপদে বেরিয়ে আসেন।

তার ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ও তদন্ত কর্মকর্তাদের সন্দেহের তীর রয়েছে। তাকে ও তার স্ত্রীকে সন্দেহ করা হচ্ছে। ওই ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার প্রমান পেলে মামলা হতে পারে। তবে এখনই এই ব্যাপারে তারা নিশ্চিত হতে পারছে না। ঘটনার আরো তদন্তর পর এই ব্যাপারে ব্যবস্থা নিবেন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সূত্রে জানা গেছে, জীবিতদের যাদের ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই তাদেরকে স্বজন ও পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। আর যাদের ব্যাপারে সন্দেহ দেখা দিয়েছে, তাদের ব্যাপারে খোঁজ খবর করছেন। ইতোমধ্যে তদন্ত কর্মকর্তারা ইঞ্জিনিয়ার হাসনাস করিমের বাসায়ও অভিযান পরিচালনা করেছে। তার ব্যাপারে তথ্য সংগ্রহ করছে।

উল্লেখ, গুলশানে স্প্যানিশ রেস্টুরেন্টের জঙ্গি হামলার ঘটনায় ২০ জন দেশি ও বিদেশি হত্যাকান্ডের শিকার হন। এছাড়াও অভিযানের সময় নিহত হন ছয় জঙ্গি। ঘটনার পর পর পুলিশের দুইজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা হত্যাকান্ডের শিকার হন। এই ঘটনায় আইএস ঘটনার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সব তথ্য প্রকাশ করেছে ও দায় শিকার করেছে। যাদেরকে সন্দেহ করা হচ্ছে তাদের কারো সঙ্গে আইএস এর যোগসূত্র আছে কিনা সেটাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।-আমাদের সময়.কম

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: