সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নবীগঞ্জে নির্বাচনী সহিংসতার জের ধরে সংঘর্ষ,মেম্বারকে কুপিয়ে জখম : আহত ৩০

10 নবীগঞ্জ সংবাদদাতা:
হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার কুর্শি গ্রামে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার জের ধরে নব-নির্বাচিত ইউপি সদস্য ও স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি আল আমিন খানকে কুপিয়ে ক্ষতবিক্ষত করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। এ ঘটনার প্রতিবাদে দু‘পক্ষের লোকজনের মধ্যে ভয়াবহ সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষ চলাকালে কুর্শি বাস ষ্ট্যান্ডে এক ভীতিকর পরিবেশের সৃষ্টি হলে সাধারন ব্যবসায়ীরা দোকান বন্ধ করে দেন। এবং সাধারন মানুষ আতংকে দিকবেদিক ছুটাছুটি করতে তাকে। সংঘর্ষে উভয় পরে অন্তত ৩০জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ৮ জনকে আশংকাজনক অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অপর আহতদের নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার ওসি মোঃ আব্দুল বাতেন খানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে। এ ঘটনার পর এলাকায় টানাটান উত্তেজনা বিরাজ করছে।
এলাকাবাসী সুত্রে জানাযায়, ৫ম দফায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে উপজেলার কুর্শি ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডে মেম্বার পদে প্রতিদন্ধীতা করেন ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি বর্তমান মেম্বার (পরাজিত) সৈয়দ নজমুল হোসেন হারুন ও ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি তরুন ব্যবসায়ী আল আমীন খাঁনসহ আরো ৩ জন প্রার্থী। নির্বাচনে ৩ প্রার্থী মিলে যে ভোট পায় তার চেয়ে ও বেশি ভোট পেয়ে আল আমীন খাঁন মেম্বার পদে নির্বাচিত হয়। এতে হারুন মেম্বারের লোকজন চরম ভাবে ক্ষীপ্ত হয়ে উঠেন সাধারন ভোটারদের উপর। এ রকমই একটি ঘটনা গ্রামের ইলিয়াছ মিয়ার ছেলে জিলাদ মিয়া নামে এক যুবককে গত কিছু দিন পুর্বে হারুন মেম্বারের চাচাতো ভাই সম্পর্কে লন্ডন প্রবাসী বিএনপি নেতা রানা মিয়া চৌধুরী ভোট না দেয়ার কারনে তাকে দেখে নেয়ার হুমকি দেন। এক পর্যায়ে জিলাদ নব-নির্বাচিত মেম্বারসহ গ্রামের বিশিষ্ট মুরব্বিয়ানদের বিষয়টি অবগত করে রাখে। এ দিকে এ অবগতের খবর পেয়ে লন্ডন প্রবাসী রানা চৌধুরী আরো ক্ষীপ্ত হয়ে উঠেন। এ ঘটনার পর বর্তমান মেম্বার ও পরাজিত মেম্বারের লোকজনের মধ্যে প্রকাশ্য বিরুধের রুপ নেয়।
এরই সুত্রে  রবিবার সকাল ১১ টার দিকে আল আমীন খান নবীগঞ্জে তার ব্যবসা প্রতিষ্টানে যাওয়ার উদেশ্যে কুর্শি বাস ষ্ট্যান্ডে আসা মাত্রই আগে থেকে অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ওৎ পেতে থাকা রানা চৌধুরীর নেতৃত্বে কয়েকজন লোক আল আমীন খানকে কুপিয়ে তবিত করে। ঘটনার খবর পেয়ে আল আমীন খানের লোকজন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে দু‘পরে লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। প্রায় ঘন্টা ব্যাপী সংঘর্ষে উভয় পরে অন্তত ৩০জন লোক আহত হয়। রনেেত্র পরিনত হয় কুর্শি গ্রাম। সংঘর্ষে উভয় পরে গুরুতর আহতরা হল, নব-নির্বাচিত মেম্বার আল আমীন খাঁন (৩০), নজরুল খাঁন (৩৫), গোলেমান খাঁন (৫৫), সুলেমান খাঁন (৫০), জাবরুল খাঁন (২৫), ইমরান খাঁন (২৬), লিয়াকত খাঁন (৩০), হেলাল খাঁন (৩২), দুলাল খাঁন (২৮), ইমন খাঁন (২২), বকুল খাঁন (৩০),  লন্ডন প্রবাসী বিএনপি নেতা রানা চৌধুরী (৫৫), তার ভাই মতি চৌধুরী (৫০) ও মহশিন চৌধুরী (৪৮), সবুর মিয়া (৪০), শহিদ উল্লাহ (৭০), কছির মিয়া (৬০)। এদের মধ্যে  ৮ জনকে আশংকাজনক অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এদিকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নবীগঞ্জ থানায় কোন মামলা দায়ের করা হয়নি বলে জানিয়েছে থানা পুলিশ।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: