সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গুলশান-২ এর হলি আর্টিসান রেস্টুরেন্টে যা ঘটেছিলো

wwwww192053ডেইলি সিলেট ডেস্ক ::
গুলশান-২ এর ৭৯ রোডস্থ হলি আর্টিসান রেস্টুরেন্টে জিম্মিদের রাত ১টার পর হত্যা করতে শুরু করে হামলাকারীরা। ফলে রাত সাড়ে ১২টার দিকেই পুরো রেস্টুরেন্টে কান্নার রোল পড়ে যায়।

পুলিশের অপারেশেনে অংশ নেয়া কর্মকর্তারাও ধারণা করছেন ওই সময়ই জিম্মিদের গলা কেটে হত্যা করা হয়।

শুক্রবার রাতে হলি আর্টিসেন রেস্টুরেন্টে হামলা ও জিম্মি করা দেশি-বিদেশি নাগরিকদের উদ্ধারে অংশ নেয়া ডিএমপির এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাও এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, সোয়াট টিম ও গুলশান থানা পুলিশ রেস্টুরেন্টের গণ্ডির ভেতরে প্রবেশের পর গ্রেনেড বিস্ফোরিত হয়। এরপর সেখান থেকে বেরিয়ে আসে পুলিশের অপারেশনাল টিম।

ওই সময়ই দেখা যায় ঊর্ধ্বতন কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত অবস্থায় পড়ে আছেন। তাদের সরিয়ে নেয়া হয়। ওই সময়ই বনানী থানার ওসি সালাহউদ্দিন ও ডিবির সহকারী কমিশনার রবিউল ইসলাম গ্রেনেডের স্প্রিন্টারে বিদ্ধ হন।

এরপরই ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া, বেনজীর আহমেদ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। তারা বাইরে থেকে রেস্টুরেন্টের টেলিফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেন। টেলিফোন রিসিভ হলে সমঝোতার চেষ্টা চলে। কথা বলা হয়। কিন্তু ভেতর থেকে কোনো হামলাকারী কথা বলেনি। বরং ভুক্তভোগীদের কান্নার শব্দ শোনা যায়।

ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘মূলত ওই সময়ই জিম্মি দেশি-বিদেশি নাগরিকদের হত্যার মিশন শুরু করে দেয় হামলাকারীরা।

এরপরই শুক্রবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ একটি টুইট পোস্ট করে। যাতে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) জঙ্গিরা ওই হামলা চালিয়েছে বলে দাবি করা হয়। আইএসের কথিত বার্তা সংস্থা ‘আমাক নিউজ’ এই তথ্য জানিয়েছে বলে টুইটে উল্লেখ করে সাইট ইন্টেলিজেন্স।

জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসের সংবাদমাধ্যম আমাক জানায়, আইএস যোদ্ধারা বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার একটি রেস্তোরাঁয় হামলা চালিয়েছে। সেখানে বিদেশি ২০ নাগরিককে হত্যা করা হয়েছে।

পরে রাতভর অপারেশন চালানোর সব ধরণের চেষ্টা চলে। মোতায়েন করা হয় বিপুল সংখ্যক সেনাবাহিনী, পুলিশ, র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব), বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি), নৌবাহিনীর কমান্ডো এবং বিশেষ বাহিনী সোয়াট।

ভোর ৪টার দিকে পুলিশ এক তরুণকে আটক করে। গ্রেফতার এড়াতে পালানোর সময় তার পায়ে গুলি করে পুলিশ।

শনিবার সকাল ৭টা ৪০ মিনিটের দিকে জিম্মিদের উদ্ধারে যৌথ কমান্ডো অভিযান শুরু হয়। বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী, পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি, সোয়াট সদস্যদের নিয়ে এই কমান্ডো অভিযান চালানো হয়।

সকাল সোয়া আটটার দিকে কমান্ডোরা পরিস্থিতি নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেন। এতে তারা সময় নেন মাত্র ৪৫ মিনিট। বেলা ১১টার দিকে যৌথ কমান্ডো অভিযান শেষ করা হয়। আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতর (আইএসপিআর) জানায়, অভিযান শেষ হয়েছে। পরিস্থিতি এখন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে।

গুলশান জিম্মিদশা ও হামলার ঘটনার পর সেনাবাহিনী সংবাদ সম্মেলনে জানায়, ২০ বিদেশি নাগরিক নিহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৯ ইতালি ৭ জাপানি, ১ ভারতীয় ও বাংলাদেশি ৩ জন রয়েছেন। কমান্ডো অপারেশনে নিহত হয় ৬ জন হামলাকারীও। একজনকে হামলাকারী সন্দেহে জীবিত উদ্ধার করা হয়।

সূত্র : জাগো নিউজ

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: