সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ৩৫ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জিম্মি উদ্ধারের পরিকল্পনার কথা জানালেন প্রধানমন্ত্রী

32d3250faeea49bdd2846f9f9aadf4be-Pmনিউজ ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে প্রথমবারের মতো সংঘটিত রুদ্ধশ্বাস জিম্মি পরিস্থিতির বর্ণনা করতে গিয়ে কীভাবে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার পরিকল্পনা করেন, সে বিষয়ে কথা বলেছেন। তিনি আজ শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে চারলেনে উন্নীত করা ঢাকা-চট্টগ্রাম জাতীয় মহাসড়ক এবং জয়দেবপুর-ময়মনসিংহ জাতীয় মহাসড়ক নির্মাণ উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারি রেস্তোরাঁয় গতকাল শুক্রবার রাতের রুদ্ধশ্বাস জিম্মি পরিস্থিতি সম্পর্কে বলেন, ‘আমাদের দুর্ভাগ্য হলো—দেশ যখন এগিয়ে যায়, মানুষ যখন খুব আনন্দে উচ্ছ্বসিত হয়, ঠিক সেই সময় জানি না কেন যেন আমাদের ওপর এক একটা আঘাত চলে আসে। আমি জানি আপনারা খুব উদ্বেগের সঙ্গে রয়েছেন। গত রাতে এশার নামাজের পর পর কিছু সন্ত্রাসী গুলশানের হলি আর্টিজানে ঢুকে সেখানে যারা ছিল তাদের জিম্মি করে ফেলে। আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা অত্যন্ত তৎপর ছিল। যে মুহূর্তেই ঘটনাটি ঘটেছে টহল পুলিশ তৎক্ষণাৎ সেখানে চলে যায় এবং আমাদের থানা-পুলিশও চলে আসে। তারা যখনই অ্যাকশন নিতে চায় তখনই সন্ত্রাসীদের বোমা হামলায় দুজন পুলিশ কর্মকর্তা মারা যায় এবং প্রায় ৩০ জনের মতো আহত হয়।’

প্রধানমন্ত্রী এরপর বলেন, ‘যা হোক আমরা সেখানেই থেমে থাকিনি। তাদের (পুলিশ) উপস্থিতির জন্যই সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়নি। তারা সেখানেই আটকা থাকে। এর মাঝেই আমরা সেনাবাহিনীকে ডাকি এবং সেনাবাহিনীর যে প্রথম প্যারা কমান্ডো ব্যাটালিয়ন, সিলেট থেকে সে ব্যাটালিয়ন আনা হয়। সাভার থেকে কমান্ডো, ক্যান্টনমেন্ট থেকে কমান্ডো নিয়ে আসা হয়। সেই বাহিনীর সঙ্গে সঙ্গে আমাদের পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি—তারাও সেখানে প্রস্তুত থাকে এবং এই সন্ত্রাসীদের দমন করার, এদের হাত থেকে মানুষকে বাঁচানোর পরিকল্পনা আমরা নিই। এগুলো করতে করতে রাত যখন চারটা, তখন সকলে মিলে সমগ্র পরিকল্পনা গণভবনে বসেই নিই, কীভাবে অপারেশনটা চালানো হবে।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘১০ ঘণ্টার বেশি সময় লাগেনি। তার আগেই আমরা জিম্মি করে রাখা সন্ত্রাসীদের ওপর আক্রমণ চালাতে সক্ষম হই এবং যারা জিম্মি ছিল এমন ১৩ জনকে বাঁচাতে পেরেছি। বাকি কয়েকজনকে হয়তো বাঁচাতে পারিনি। কয়েকজন আহতাবস্থায় সিএমএইচে চিকিৎসাধীন আছে। যারা সন্ত্রাসী, তাদের ছয়জনই ঘটনাস্থলে মারা গেছে, একজন ধরা পড়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একটা সফল অপারেশন করার জন্য আমি আমাদের প্রথম প্যারা কমান্ডো ব্যাটালিয়নকে অভিনন্দন জানাই। সেই সঙ্গে অভিনন্দন জানাই আমাদের সেনাবাহিনী, নেভি, পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি, বিমানবাহিনী-সবাইকে। কারণ সকলে একত্র হয়ে সারা রাত কষ্ট করে এই অপারেশনটা সফল করেছে। সকলে মিলে অপারেশন চালানোর ফলেই আমরা এই স্বল্প সময়ের মধ্যে সন্ত্রাসীদের খতম করতে সমর্থ হয়েছি।’-প্রথম আলো

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: