সর্বশেষ আপডেট : ১৩ মিনিট ৪২ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ১৭ জানুয়ারী, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৪ মাঘ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গুলশানে হলি আর্টিজান রেঁস্তোরায় এখনো জিম্মি যারা

B_A

ডেইলি সিলেট ডেস্ক :: হলি আর্টিজান বেকারিতে কতজন আটকা পড়েছেন তার নিশ্চিত সংখ্যা জানা না গেলেও উৎকণ্ঠা নিয়ে বেশ কয়েকজন স্বজন উপস্থিত
হয়েছেন ঘটনাস্থলে। তাদের মাধ্যমেই জানা গেছে কয়েকজনের নাম।

এলিগেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান রুবা আহমেদের মেয়ে অবনিতা কবীর (১৮) ও তার দুই বান্ধবী। ট্রান্সকম গ্রুপের কর্ণধার লতিফুর রহমানের নাতি ফাইয়াজ (২১)। আফতাব গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার খানের ছেলে তাহমীদ (২২) ও তার কয়েকজন বন্ধু। হলি আর্টিজান বেকারির কর্মচারী ইমাম হোসেন সবুজসহ আরও কয়েকজন।

জিম্মিদের মধ্যে অন্তত সাতজন ইতালীয় ব্যবসায়ী রয়েছেন বলে ধারণা করছে ঢাকার ইতালিয়ান দূতাবাস।

এছাড়া জিম্মিদের মধ্যে আছেন ইঞ্জিনিয়ার হাসনাত করিম, তার স্ত্রী ও দুই সন্তান। হাসনাতের চাচা হান্নান করিম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আছেন একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী মালিহা ও তার কয়েকজন বান্ধবী। শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টায় ওই ছাত্রীর বাবা বোরহান জানান, তার মেয়ে মালিহা নর্থ-সাউথ ইউনিভার্সিটির ছাত্রী। সন্ধ্যায় ৪ থেকে ৫ জন বান্ধবীকে নিয়ে সে এই রেস্টুরেন্টে যায়। ফোনে মেয়ের সাথে কথা হয়েছে। বলেছে, ‘বাবা আমরা বিপদে, আমাদের বাঁচাও!

শনিবার ভোরে তাদেরকে জিম্মিদশা থেকে উদ্ধারে অভিযানে নামছে র‍্যাব, পুলিশ, সোয়াত, নৌ কমান্ডারসহ বেশ কয়েকটি বাহিনীর সদস্যরা। তবে, সন্ত্রাসীদের হাতে তারা জিম্মি থাকায় এখনো নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না কতজন জীবিত রয়েছেন।

শুক্রবার রাত পৌনে ৯টার দিকে  গুলশান ২ নম্বরের কাছে ৭৯ নম্বর রোডের হলি আর্টিজান বেকারিতে (যার মালিক একজন স্প্যানিশ নাগরিক বলে র্যাবের তথ্য) হামলা চালায় অস্ত্রধারি সন্ত্রাসীরা।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: