সর্বশেষ আপডেট : ১৫ মিনিট ৩ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

রোজাদার মানুষও ওদের কাছে জিম্মি!

Rujaডেইলি সিলেট ডটডকম :: বিকেল ৩ টা। অফিস টাইম শেষ, সব মানুষের গন্তব্য বাসা-বাড়ি। পল্টন মোড়ে শত শত মানুষের ভির। তাদের দৃষ্টি জিরো পয়েন্টের দিকে। এমন সময় দ্রুতগতিতে আসলো গাবতলী-সদর ঘাট (৭নং) পরিবহনের একটি বাস। মোড়ে আসামাত্রই হুমড়ি খেয়ে পড়লো যাত্রীরা। কে কার আগে উঠবে তা নিয়ে শুরু হলো প্রতিযোগিতা।

ওঠার পর কিছু লোক বাদে অনেককেই নেমে যেতে হলো বাস থেকে, কারণ হেল্পার বলে দিলেন- ডায়রেক্ট গাবতলী, গাবতলী ছাড়া বাকিরা নামেন, লোকাল যাত্রী নেই না। শুরু হলো তর্কবিতর্ক, এক পর‌্যায়ে কিছু যাত্রীকে ধাক্কা দিয়ে নামিয়ে দিলো হেল্পার।

গাড়ি থেকে নেমে প্রায় অসুস্থ হয়ে পড়েন ২/১ জন মধ্যবয়সী ব্যক্তি। কারণ এমনিতেই রোজা তার ওপর এত ঝক্কি-ঝামেলা। কেউ কেউ গালি দিতে শুরু করলো, আর বলতে লাগলো ওদের কাছে রোজাদার মানুষও জিম্মি।

যাত্রীরা জানায়, রমজান মাসে অফিস ৩ টায় ছুটি। এসময় যাত্রীদের বাসায় যাওয়ার তাড়া থাকে। তাই রমজান মাস শুরু হলেই ঢাকা শহরে বিভিন্ন রুটের লোকাল বাসগুলো অফিস সময় শুরু ও শেষ হলে সিটিং করে ফেলে। ফলে দুর্ভোগ পোহান হাজার হাজার রোজাদার ব্যক্তি। তাদের এই অনিয়ম রাস্তায় থাকা পুলিশ সার্জেন্ট ও কনস্টেবলরা দেখলেও কিছুই বলেন না। অভিযোগ করেও পাওয়া যায় না কোনো প্রতিকার।

একারণে বিকেল হলেই রাজধানীর নিউমার্কেট, সাইন্সল্যাব, শাহবাগ, কাকরাইল মোড়, নয়া পল্টন, পুরানা পল্টন এবং গুলিস্তান এলাকার রাস্তার বাসস্ট্যান্ডে যাত্রীদের পরিহনের জন্য দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। সকালে অফিসে আসার সময় এবং বিকেলে ঘরে ফেরার সময় বাসের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকা লোকজন দেখলে যে কারোরই মনে হতে পারে কোনো মিছিল কিংবা সমাবেশ ঘটেছে।

জানা গেছে, লোকাল বাস সিটিং করার এই প্রতিযোগিতায় গাবতলী থেকে সায়দাবাদগামী ৮ নম্বর বাস ও মিরপুর-পল্লবী থেকে গুলিস্তান-মতিঝিলগামী রুটে চলাচলকারী লোকাল বাসগুলোর দৌরাত্ম্য সর্বাধিক। এরা অফিস সময় শুরু এবং অফিস সময় শেষে ইচ্ছেমতো সিটিং করে বীরের বেশে চলতে থাকে। মূলত মিরপুর-পল্লবী থেকে গুলিস্তান-মতিঝিলগামী রুটের বাসগুলোর ড্রাইভার, কন্ডাক্টর, হেলপাররা যাত্রীদের জিম্মি করে যখন যেভাবে খুশি সেভাবে গাড়ি চালানোর ফলে যাত্রীদুর্ভোগ কিছুতেই কমছে না। লোকাল বাসগুলো অফিস সময় এবং অফিস শেষে সিটিং হিসেবে চালানো করা হয়।

ঢাকা শহরে চলাচলকারী বাসগুলোর রুট পারমিট যেভাবে নেয়া সেভাবেই চালানোর ব্যবস্থা হয়। পবিত্র রমজান মাসে কোনোভাবেই যেন এর ব্যত্যয় না ঘটে। সেসঙ্গে রাস্তায় নিয়োজিত ট্রাফিক পুলিশ ও সার্জেন্টদের এ বিষয়ে কঠোর নির্দেশ ও তা বাস্তবায়নে বাধ্য করা হোক এবং এই লোকাল-সিটিং বাস চালনা প্রতিরোধে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হোক-এমন দাবি জানিয়েছেন সাধারণ মানুষ।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: