সর্বশেষ আপডেট : ৮ মিনিট ৫০ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেলো পুলিশ ! গণপিটুনি

Police

ডেইলি সিলেট ডেস্ক :: নারায়ণগঞ্জ : জেলার কালীরবাজার এলাকায় স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে ফাঁসাতে গিয়ে গণপিটুনি খেলো পুলিশের এএসআই ও তার দুই সোর্স। এই ঘটনায় বিক্ষুদ্ধ ব্যবসায়ীরা আধা বেলা দোকান বন্ধ রেখে বিক্ষোভ মিছিল ও আটক স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের মুক্তি দাবি করেছেন।

বুধবার (২২ জুন) সকাল ১১টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা দোকান বন্ধ রেখে কয়েক দফায় কালীবাজার ও শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে বিক্ষোভ মিছিল করেন।

এ বিষয়ে কালীবাজার স্বর্ণ শিল্পী শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মুকুল মজুমদার বাংলামেইলকে জানান, লিটন নামের এক ব্যক্তি সকাল ১১টায় কালীরবাজারে নওয়ার প্লাজায় পাণ্ডব রায় সুবীরের মালিকানাধীন ‘মা তারা স্বর্ণালয়’ এ যায়। তিনি স্বর্ণের একটি ছেঁড়া চেইন বিক্রি করতে চান। কিন্তু দোকান মালিক কিনতে অনীহা দেখালে লিটন চেইনটি বন্ধক রেখে দুই হাজার টাকা দেয়ার জন্য চাপ দিতে থাকেন। এতেও পাণ্ডব রায়কে রাজি করাতে না পেরে দোকানের বাইরে আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা পুলিশের অপর সোর্স ইকবাল ও নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার সহকারী উপ পরিদর্শক (এএসআই) আশরাফ হোসেন মিলে লিটনকে আটক করে। এসময় চোরাই স্বর্ণ কেনার অভিযোগে পাণ্ডব রায়কেও আটক করে তারা।

এই ঘটনা বাজারে ছড়িয়ে পড়লে কালীরবাজারের বিক্ষুব্ধ স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা পুলিশের এএসআই আশরাফসহ তার দুই সোর্সকে ঘিরে ফেলে। একপর্যায়ে উত্তেজিত ব্যবসায়ীরা তাদের গণপিটুনি দেয়।

খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল মালেকসহ অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনে তাদের উদ্ধার করেন।

ভোক্তভুগী পাণ্ডব রায় সুবীর বলেন, সকালে দোকান খোলার একটু পর এক লোক একটি প্যাকেট ক্যাশবাক্সের উপর রাখে। ওই সময়ই পুলিশ এসে জিজ্ঞাসা করে এটা স্বর্ণ কি না, ওজন কতো। এরপর আমি প্যাকেট খুলে দেখি সেখানে একটি চেইন। চেইনটি ওজন দিয়ে আট আনা দুই রত্তি পাই। কিন্তু পুলিশ চোরাই স্বর্ণ কেনার অভিযোগ করে আমাকে আটক করলে বাজারের ব্যবসায়ীরা বাধা দেয়।

এদিকে বাজারের আরেক স্বর্ণ ব্যবসায়ী সাজন কর্মকার বাংলামেইলকে বলেন, এক সপ্তাহ আগে শুক্রবার রাতে আমার মামা তপন কর্মকারকে একই অভিযোগে প্রথমে হয়রানি করে, পরে দোকানে অভিযানের নামে প্রায় ৮০ ভরি স্বর্ণ জব্দ করে নিয়ে যায় পুলিশের লোক। তিনি এখনো জেলখানায় আছেন। এভাবে ডিবি পুলিশের লোকজন স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের হয়রানি করছে। কিছু হলেই স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়। যার প্রতিবাদেই বুধবার সকল স্বর্ণ ব্যবসায়ী ও শ্রমিকেরা বিক্ষোভ মিছিল বের করে।

ওসি আবদুল মালেক বলেন, ‘এএসআই আশরাফকে তাৎক্ষণিক আড়াইহাজারের কালাপাহাড়িয়া থানায় বদলি করা হয়েছে। লিটন ও ইকবালকে থানায় আটক করা হয়েছে। দুইজনের বিষয়ে তদন্ত চলছে।’

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: