সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ৪৯ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বায়তুল মোকাররমে খতিব হওয়ার স্বপ্নে…

Maszid_Mukarramজাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের খতিব হওয়ার জন্য গোপনে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন দেশের কয়েকজন বিশিষ্ট আলেম। তারা সরকারের বিভিন্ন প্রভাবশালী সংস্থা ও আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে চলছেন। ইসলামিক ফাউন্ডেশন, বায়তুল মোকাররম ও আলেমদের কয়েকটি বিশ্বস্ত সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
জাতীয় মসজিদের বর্তমান খতিব অধ্যাপক মাওলানা সালাহউদ্দিন দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত রোগে শয্যাশায়ী। এ কারণে তিনি আর ইমামতি করবেন না বলে জানিয়েছেন, পরিবারের সদস্যরাও তা চান না। এ কারণেই আলেমরা খতিব হওয়ার জন্য চেষ্টা তদবির শুরু করেছেন।
এ ব্যাপারে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক সামীম মোহাম্মদ আফজালের কোনও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তিনি চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে অবস্থান করছেন। তবে ফাউন্ডেশনের এক উপ-পরিচালক বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, খতিব নিয়োগের বিষয়টি সরাসরি ধর্ম মন্ত্রণালয় দেখে।
জানা গেছে, খতিব হতে আগ্রহীদের মধ্যে মজলিসে দাওয়াতুল হক্বের আমির আল্লামা মাহমুদুল হাসান ও চট্টগ্রাম জমিয়তুল ফালাহ জামে মসজিদের খতিব অধ্যক্ষ মাওলানা মুহাম্মদ জালাল উদ্দিন আল ক্বাদরী অন্যতম। এর বাইরে গহরডাঙ্গা মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল আল্লামা রুহুল আমিন ও কিশোরগঞ্জ জামিয়া ইমদাদিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা আনোয়ার শাহের নামও উচ্চারিত হচ্ছে। তবে তারা ব্যক্তিগতভাবে কোনও তৎপরতা শুরু করেননি।
ইসলামিক ফাউন্ডেশন সূত্রে জানা গেছে, যেহেতু খতিব হওয়ার পর তার আমৃত্যু এই পদে থাকার নিয়ম রয়েছে, সেহেতু সরকার চাইলেই মাওলানা সালাহউদ্দিনকে বাদ দিতে পারবেন না। জীবিত থাকা অবস্থায় তার সম্মতি থাকলেও অন্য কাউকে নিয়োগে বাধা রয়েছে। সে ক্ষেত্রে সরকার চাইলে ভারপ্রাপ্ত খতিব বা বিকল্প খতিব হিসেবে কাউকে নিয়োগ দিতে পারে। তবে নতুন নিয়োগকৃত ব্যক্তিকে পূর্ণ খতিব হিসেবে ঘোষণা কো যাবে না।

সূত্রের দাবি, এই নিয়মের সুযোগ নিতেই নিজেদের সবগুলো সম্ভাব্য রাস্তা খুঁজে বের করছেন দুই আলেম। গুলশান আজাদ মসজিদের খতিব আল্লামা মাহমুদুল হাসান খতিব হতে আগ্রহী। তার ঘনিষ্ঠ এক আলেম বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, মাওলানা মাহমুদুল হাসান খতিব হতে চান। তিনি আজাদ মসজিদের মুসল্লি সরকারের প্রভাবশালী কয়েকজনকে নিয়মিত ধরছেন। দুই বছর আগে তিনি কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানও হতে চেয়েছিলেন।

মাওলানা মাহমুদুল হাসানের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও পাওয়া যায়নি। এমনকি তার ছেলে মাদ্রাসার ভাইস প্রিন্সিপাল মাওলানা মাসরুরকেও পাওয়া যায়নি। তাদের সেলফোন বন্ধ পাওয়া গেছে।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন সূত্র জানায়, প্রতিষ্ঠানটির মহাপরিচালক সামীম আফজাল বায়তুল মোকাররমের নতুন খতিব হিসেবে চট্টগ্রাম জমিয়াতুল ফালাহ জামে মসজিদের খতিব অধ্যক্ষ মুহাম্মদ জালাল উদ্দিন আল ক্বাদরীকে নিয়োগ দিতে আগ্রহী। এ কারণে সরকারের প্রভাবশালী একজনের কাছে সম্মানের সঙ্গে তাকে প্রদর্শন ও দোয়া করার কাজে ডেকে আনেন।

তবে সরকারপন্থী এক প্রভাবশালী কওমি আলেম বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, ‘তিনি কড়া মাজারপন্থী’। জাতীয় মসজিদের খতিব হিসেবে নিয়োগ পেলে বিষয়টি সামগ্রিক অর্থে ভালো হবে না।

জানতে চেয়ে অধ্যক্ষ মুহাম্মদ জালাল উদ্দিন আল ক্বাদরীকে কল করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

এই দুজনের বাইরে মাওলানা রুহুল আমিন ও মাওলানা আনোয়ার শাহ আছেন, যাদের দুজনেই কওমি মাদ্রাসায় গ্রহণযোগ্য ও বিজ্ঞ আলেম হিসেবে পরিচিত। প্রথমজনের পিতা মাওলানা শামসুল হক ফরীদপুরী রহ. জামায়াতবিরোধী কওমি আলেম হিসেবে পরিচিত ছিলেন। এক্ষেত্রে সরকারের পছন্দে তিনিও থাকতে পারেন। দ্বিতীয়জন মাওলানা আনোয়ার শাহ। সুমধুর কোরআন তেলাওয়াতের কারণে তিনি সুপরিচিত। ব্যক্তিগতভাবে তিনি কোনও রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত নন।

হেফাজত সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের শুরুর দিকে ধর্মমন্ত্রণালয় থেকে খতিব পদে নাম দেওয়ার প্রস্তাবনা দেওয়া হয়েছিল। ওই সময় হেফাজত কয়েকজন আলেমের নাম প্রস্তাব করে। এর মধ্যে ইসলামী ঐক্যজোটের কেন্দ্রীয় নেতা, দারুল আরকাম ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা সাজিদুল রহমান, হবিগঞ্জের মাওলানা ইমদাদুল হক, মাওলানা আনোয়ার শাহ, চট্টগ্রামের এম ই এস কলেজের শিক্ষক ড. আফম খালিদ হোসাইনের নাম রয়েছে।

হেফাজতের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামবাদী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আমরা চাই যোগ্য, সৎ ও জ্ঞানী খতিব, যিনি সরকারের তল্পিবাহক হবেন না। যিনি স্বাধীন চিন্তা ও চেতনা নিয়ে খতিবের দায়িত্ব পালন করবেন।

তালিকা প্রসঙ্গে ইসলাবাদী জানান, আমাদের কাছে মৌখিকভাবে জানতে চেয়েছিল, আমরা নামগুলো দিয়েছিলাম।

ধর্ম মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান ময়মনসিংহের এক আলেমকে বায়তুল মোকাররমের খতিব করতে চাচ্ছেন। ওই আলেম মালিবাগ জামিয়া শরইয়্যাহ মাদ্রাসার হাদিসের শিক্ষক ছিলেন। যোগাযোগ করলে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের নম্বর বন্ধ পাওয়া গেছে।

বর্তমান খতিব সালাহউদ্দিনের অসুস্থতা ও ইমামতি না করানোর সিদ্ধান্ত
খতিবের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, প্রায় এক বছর ধরে বাধ্যক্যজনিত রোগে আক্রান্ত মাওলানা সালাহউদ্দিন। হার্টে রিং পরানোর পর থেকে সোডিয়াম কমে যাওয়ায় তার শরীর দুর্বল হয়ে পড়েছে। এ পরিস্থিতিতে কয়েকমাস আগেই ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক সামীম মোহাম্মদ আফজালকে জানিয়ে দেওয়া হয়, মাওলানা সালাহউদ্দিন বায়তুল মোকাররমে আর ইমামতি করাবেন না।

মঙ্গলবার দুপুরে অধ্যাপক সালাহউদ্দিনের স্ত্রী সুফিয়া আখতার বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, ওনার শরীর খুব দুর্বল। বাইরে যান না। সব সময় শুয়ে থাকেন। ইমামতি করার ইচ্ছা তার আর নেই। আমরাও চাই না। বিষয়টি আমরা ফাউন্ডেশনের ডিজিকে জানিয়ে দিয়েছি।

পারিবারিক সূত্র মতে, প্রায় এক বছর ধরেই বায়তুল মোকাররমে জুমার নামাজের ইমামতি করেন না মাওলানা সালাহউদ্দিন। তার অনুপস্থিতিতে পেশ ইমাম মুহিব্বুল্লাহ বাকী, কখনও মাওলানা মিজানুর রহমান বা মাওলানা এহসানুল হক জুমার নামাজের ইমামতি করছেন।

২০০৯ সালের ১ জানুয়ারি বায়তুল মোকাররমের খতিব হিসেবে সালাহউদ্দিনকে নিয়োগ দেয় ধর্ম মন্ত্রণালয়।

জানা যায়, মাদ্রাসা-ই-আলিয়া ঢাকার সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল, মহাখালী মসজিদে গাউসুল আজমের খতিব প্রফেসর মাওলানা মোহাম্মদ সালাহউদ্দিনের নিয়োগ সবশেষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উচ্চপর্যায় থেকে চূড়ান্ত করা হয়। মাওলানা সালাহউদ্দিন ১৯৯৯ সালের শেষের দিকে মাদ্রাসা-ই-আলিয়ার ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপালের দায়িত্ব পালন করেন। ২০০১ সালে একই মাদ্রাসার হেড মাওলানা হিসেবে তিনি বিদায় নেন।

২০০৭ সালের রমজান মাসে খতিব মাওলানা উবায়দুল হকের আকস্মিক ইন্তেকালের পর থেকে সিনিয়র পেশ ইমাম মুফতি মাওলানা নূরুদ্দিন বায়তুল মোকাররমের ভারপ্রাপ্ত খতিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।-সংবাদ সূত্র : বাংলা ট্রিবিউন

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: