সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শরীফের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর

full_581123524_1466405616নিউজ ডেস্ক: পুলিশের পুরষ্কার ঘোষিত সন্ত্রাসী শরীফের লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে তার পরিবারের দাবি তার নাম শরীফ নয় তার নাম মুকুল রানা (২৫)।

আজ সোমবার বেলা ১১ টার সময়ে তার ভগ্নিপতি হেদায়তে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে এতে তার লাশ সনাক্ত করেন। পরে তার লাশ দাফনের উদ্দেশ্যে গ্রামের বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছে।

নিহতের বড় ভাই মাসুদ রানা বলেন, মুকুল রানা সাতক্ষীরা সরকারী কলেজের ইংরেজী অর্নাসের ছাত্র ছিল। গত এক বছর আগে সে ঢাকার উত্তরায় এসে বসবাস শুরু করে। সে একটি বিয়েও করেছে তার স্ত্রীর নাম মহুয়া।

দুই ভাই এক বোনেরমধ্যে সে ছিল সবার ছোট। নিহত মুকুল রান সাতক্ষীরা জেলার সদর থানার বালাইগাতি গ্রামের আবুল কালামের ছেলে। তবে পুলিশের বক্তব্য ডিবি পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধ নিহত শরীফ আনসারুল্লাহ বাংলাটিম যতগুলো হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে প্রতিটিতি হত্যাকান্ডে সে জড়িত ছিল।

গোয়েন্দা কর্মকর্তারা বলছেন, গত ফেব্রুয়ারিতে লেখক অভিজিৎ হত্যায় সরাসরি অংশ নিয়েছিলেন ৩০ বছর বয়সী এই যুবক। পুলিশ বলছে, সাকিব, শরিফ, সালেহ, আরিফ ও হাদী নাম ব্যবহার করে পরিচয় গোপন করে আসছিলেন শরিফুল। তাকে ধরিয়ে দিতে পাঁচ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছিল।

জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের দক্ষিণ বিভাগের উপ-কমিশনার মাশরুকুর রহমান খালেদ বলেন, ‘লেখক-ব্লগার হত্যার যতগুলো ঘটনা ঘটেছে তার প্রত্যেকটি শরীফের প্রত্যক্ষ ছিল। তিনি আগেই জানতেন কখন কোথায় হত্যাকান্ড সংগঠিত হবে। তিনি আরো বলেন, শরিফ ব্লগার অভিজিৎ রায় হত্যায় সরাসরি অংশ নিয়েছিল, প্রকাশক টুটুল হত্যাচেষ্টার দিন লালমাটিয়ায় বাড়ির বাইরে অবস্থান করছিল। ওয়াশিকুর বাবু হত্যা, আশুলিয়ায় রিয়াজ মোর্শেদ বাবু হত্যারও সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করেছিল, বলেও জানান তিনি।

গত শনিবার রাত দুইটার দিকে ঢাকার খিলগাঁওয়ের মেরাদিয়া বাঁশপট্টি এলাকায় গোয়েন্দা পুলিশের কথিত বন্দুকযুদ্ধে শরিফুল নিহত হন। গত বছর ফেব্রুয়ারিতে অভিজিত খুন হওয়ার পর একে একে খুন হয়েছেন অনলাইন অ্যাকটিভিস্ট ওয়াশিকুর রহমান বাবু, ব্লগার অনন্ত বিজয় দাশ, নীলাদ্রি চট্টোপাধ্যায় নীলয়, অভিজিতের বইয়ের প্রকাশক ফয়সল আরেফিন দীপন এবং গণজাগরণ মঞ্চের কর্মী ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নাজিমুদ্দিন সামাদ।

এর আগে যুদ্ধাপরাধের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবিতে ২০১৩ সালের ফেব্রয়ারিতে গণজাগরণ আন্দোলন শুরুর কয়েক দিনের মাথায় খুন হয়েছিলেন ব্লগার রাজীব হায়দার।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: