সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ৩০ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সিলেটে নিত্যপণ্যের দাম খুচরা বাজারে তিনগুণ!

ramdhan bazar dam daily sylhetস্টাফ রিপোর্টার::
রোজার আগে হঠাৎ করেই দাম বেড়েছিল নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের। রোজা শুরুর সঙ্গে সঙ্গে সবজির বাজারও চড়া হয়। রোজা অতিক্রম করার সঙ্গে সঙ্গে দাম কমেনি, বরং বেড়েছে বেশ কিছু পণ্যের দাম। খুচরা ও পাইকারি ব্যবসায়ীরা বলছেন, যে-কোনো উৎসবেই জিনিসপত্রের চাহিদা বেড়ে যায়। আর এ সুযোগে দামও বাড়ে। যেমনটি রোজার আগে ঘটেছে, যা এখনো অব্যাহত আছে।

চলতি সপ্তাহে সিলেট নগরীর পাইকারি ও খুচরা বাজারে সবজির দামের অনেক হেরফের লক্ষ্য করা গেছে। পাইকারি বাজার থেকে বিভিন্ন খুচরা বাজারে সবজির দাম তিনগুণ পর্যন্ত বেশি। নগরীর রিকাবীবাজার, মদিনা মার্কেট, আম্বরখানা, ও বন্দর বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, প্রতিকেজি বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা থেকে ১০০ টাকায়, কাঁচামরিচ ৮০ টাকা থেকে ৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তা ছাড়া প্রতিকেজি পেঁপে ৪০ টাকা থেকে ৪৫ টাকায় (গত সপ্তাহে ছিল ৩০ টাকায়), শসা ৬০ টাকা থেকে ৭০ টাকায় (গত সপ্তাহে বিক্রি হয়েছে ৩০ টাকা), গাজর ৫০ টাকা থেকে ৬০ টাকা, টমেটো ৪৫ টাকা থেকে ৫০ টাকা (গত সপ্তাহে ছিল ৩০-৩৫ টাকা), ধনিয়া পাতা ২০০থেকে ২৫০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। শুক্রবার সরেজমিন ঘুরে এমন চিত্র দেখা যায়।

তবে গত সপ্তাহের থেকে এ সপ্তাহে খুচরা বাজারে কিছুটা দাম কমেছে সবজির। সিলেটের খুচরা বাজারে কেজি প্রতি ঢেঁড়স ৪০ টাকা, ঝিঙা ৪০ টাকা, পটল ৩০ টাকা, সব ধরনের শাক ২০ থেকে ৩০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া (ফালি) ৩০ টাকা, গাজর ৪০ টাকা, কাঁচামরিচ ৬০ টাকা, ধনেপাতা ১’শ টাকা, পেঁপে ৩০ টাকা, শসা ৪০ টাকা, টমেটো ৪০ টাকা, করলা ৪০ টাকা, বেগুন ৫০ টাকা, কাকরল ৪০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

অন্যদিকে, নগরীর সোবানিঘাট পাইকারি বাজার ভেজিট্রেবল মার্কেটে প্রতিকেজি কাঁচামরিচ ১৫ থেকে ২০ টাকা, ধনেপাতা ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, শসা ও গাজর ২০ টাকা, টমেটো ২০ থেকে ২৫ টাকা, ঢেঁড়স-পটল-করলা ৮ থেকে ১০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। রমজান উপলক্ষ্যে বেগুনের দাম বাড়তি। খুচরা বাজারে বেগুন প্রতিকেজি ৫০ টাকা। আর পাইকারি বাজারে একপাল্লা (৫ কেজি) বেগুন ১০০ টাকা। পাইকারি বাজার থেকে খুচরা বাজারে তিনগুন দামে বেশি দামে সবজি বিক্রি করছেন কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে রিকাবীবাজারের বিক্রেতা ইদ্রিস বলেন, পরিবহন খরচ অনেক বেশি পরে। এ জন্য বেশি দামে বিক্রি করতে হয়। সারা বছর পরিবহন খরচ দিতে হয়। তাহলে এখন কেন দ্বিগুণ থেকে তিনগুণ দামে সবজি বিক্রি করছেন? জবাবে তিনি বলেন, সামনে ঈদ নানা খাতে টাকা দিতে হয়। আর এই বাড়তি টাকা ক্রেতাদের থেকে নেয়া হয়।অন্যদিকে পেঁয়াজ, রসুন, আলু ও ডিম কিছুটা অপরিবর্তিত দামে বিক্রি হচ্ছে রাজধানীর খুচরা বাজারে।

বন্দরবাজারে পেঁয়াজ (দেশি) কেজিপ্রতি ৪০ থেকে ৪২ টাকা, পেঁয়াজ (আমদানি) ৩০ টাকা। রসুন (দেশি) ১৪০ টাকা, রসুন (আমদানি) ২’শ ২০ টাকা থেকে ২’শ ৩০ টাকা, আলু প্রতিকেজি ২২ থেকে ২৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। ফার্মের মুরগির ডিম খুচরা বাজারে প্রতি হালি ৩২ টাকা ও ডজন ৯৫ টাকা। এছাড়া দেশী মুরগির ডিম হালি ৪০ টাকা ও ডজন ১২০ টাকা এবং হাঁসের ডিমের হালি ৩৫ টাকা ও ডজন ১০৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এ সপ্তাহে বাজারে গত সপ্তাহের অতিরিক্ত দামেই বিক্রি হচ্ছে ব্রয়েলার মুরগি। তবে গত সপ্তাহের থেকে ২০ টাকা বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে লেয়ার মুরগি। ব্রয়লার কেজি প্রতি ১শ ৮০ টাকা, লেয়ার কেজি প্রতি ২শ ৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। দেশী মুরগির পিস ৩’শ টাকা। পাকিস্তানি মুরগির প্রতিটি ২’শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কয়েক সপ্তাহ ধরে বেড়ে যাওয়া দামেই বাজারভেদে দেশী মসুর ডাল ১’শ ৫০ টাকা, ছোলা ৯০ থেকে ৯৫ টাকা এবং চিনি ৬৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে সিলেটের বাজারে আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে মাছ। রুই মাছ (ছোট) ১শ ৫০ থেকে ১’শ ৬০ টাকা, রুই (বড়) ২’শ থেকে ২’শ ২০ টাকা কেজি, ছোট কাতলা ১’শ ৮০ টাকা ও বড় ২’শ ২০ টাকা কেজি, ছোট চিংড়ি ৪’শ টাকা কেজি, তেলাপিয়া ১’শ ৬০ থেকে ১’শ ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
বাজারে অস্ট্রেলিয়া থেকে আমদানি করা ভাল মানের ছোলা বিক্রি হচ্ছে ১১০ থেকে ১১৫ টাকা। এ ছাড়া মানভেদে প্রতিকেজি ছোলা ৯৫ থেকে ১১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

তবে সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) অস্ট্রেলিয়া থেকে আমদানি করা ছোলা খোলা বাজারে ট্রাক সেলে প্রতিকেজি ৭০ টাকায় বিক্রি করছে। খুচরা বাজারে প্রতিকেজি চিনি ৬০ টাকা থেকে ৬৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। টিসিবি প্রতিকেজি চিনি দেশি চিনি ৪৮ টাকায় বিক্রি করছে।

খুচরা বাজারে মানভেদে প্রতিকেজি মসুর ডাল ১৫০ টাকা থেকে ১৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তা ছাড়া অ্যাংকর (বুটের) ডাল ৬০-৬২ টাকায়, খেসারির ডাল ৮০ থেকে ৮৫ টাকা, বুটের ডালের বেসন ১২০ টাকা, অ্যাংকর ডালের বেসন ৮০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। টিসিবি মশুর ডাল ৮৯ টাকা ৯৫ পয়সায় বিক্রি করছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: