সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ৪৯ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ১০ মসজিদ

kaba sharif

ডেইলি সিলেট ডেস্ক: মুসলমানদের কাছে মসজিদ মানে হল সৃষ্টিকর্তার ঘর। শুধু নামাজ নয়, ইসলামী শাসনামলে মসজিদ থেকেই চালিত হত রাষ্ট্রের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড।

ইসলামের বিস্তৃতির সঙ্গে পৃথিবীতে নির্মিত হয়েছে বহু মসজিদ। বেড়েছে এর পরিধিও। এ ছাড়া একেক দেশের একেক রকমের সংস্কৃতির ছাপ পৃথিবীর একাধিক মসজিদের নির্মাণশৈলীতে ঠায় পেয়েছে স্থাপত্য শিল্প। আর হয়েছে এ শিল্প সমৃদ্ধও।

পৃথিবীর সেরা মসজিদগুলোর নির্মাণশৈলী এবং ইতিহাস নিয়ে কৌতূহলের শেষ নেই। উইকিপিডিয়ার করা তালিকায় আয়তনের দিক থেকে সেরা দশে রয়েছে বাংলাদেশের জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম।

চলুন জেনে নেওয়া যাক, আয়তনের দিক থেকে পৃথিবীর সেরা দশ মসজিদ সম্পর্কে।

মসজিদ-উল-হারাম : পৃথিবীর সবথেকে বড় মসজিদ হল মসজিদ-উল-হারাম। ইসলাম ধর্মের সবথেকে পবিত্র স্থান ‘কাবা’কে ঘিরে সৌদি আরবের মক্কা নগরীরতে এর অবস্থান। ৮৮.২ একর বা ৩,৫৬,৮০০ বর্গমিটার জমির ওপরে মসজিদটির অবস্থান। পৃথিবীর সর্ববৃহৎ এই মসজিদটির সাধারণ প্রায় ৯ লাখ মুসলিম একসঙ্গে নামাজ পড়ে। তবে হজের সময় এর পরিমাণ বেড়ে কখনো কখনো ৪০ লাখে পৌঁছায়। বর্তমানে মসজিদটির সংষ্কারের কাজ করে যাচ্ছে সৌদি সরকার।

মসজিদে নববী :  হযরত মুহাম্মাদ (স.) এর হাতে ৬২২ খ্রিস্তাব্দে নির্মিত হয় মসজিদে নববী কিংবা আল-মাসজিদুন-নাবী। অর্থাৎ নবীর মসজিদ। সৌদি আরবের মদিনা শহরে এই মসজিদটি অবস্থিত। মসজিদটিতে ৬ লাখ মুসল্লি একসঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারে।

তবে মসজিদটি হযরত মুহাম্মাদ (স.)- এর রওজা সংলগ্ন হওয়ায় হজের সময় প্রায় ১০ লাখ মুসল্লি একত্রে নামাজ আদায় করার রেকর্ড রয়েছে। মসজিদের ১০টি মিনারের মধ্যে সবথেকে উঁচু মিনারটির উচ্চতা ১০৫ মিটার।

হারামে ইমাম রেজা : শিয়া সম্প্রদায়ের ১২ ইমামের অষ্টম ইমাম, ইমাম রেজার এই মসজিদটি নির্মাণ করেন বলে ‘হারামে ইমাম রেজা’ মসজিদটি ‘ইমাম রেজা মসজিদ’ নামেই সর্বাধিক পরিচিত।

ইরানের খোরসান প্রদেশের রাজধানী মসনদে অবস্থিত পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তম এই মসজিদটি। প্রায় ৩,৩১,৫৭৮ বর্গমিটার জমির ওপরে অবস্থিত এই মসজিদটিতে প্রায় ৫ লাখ মুসল্লি একসঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারে। ৮১৮ খ্রিস্টাব্দে নির্মিত এই মসজিদটির আটটি মিনার রয়েছে। এর মধ্যে সর্বোচ্চ মিনারের উচ্চতা ৪১ মিটার।

ইস্তিকলাল মসজিদ : জনসংখ্যার দিক থেকে অন্যতম বৃহত্তম মুসলিম দেশ ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তায় অবস্থিত ইস্তিকলাল মসজিদটি। এটিই ইন্দোনেশিয়ার জাতীয় মসজিদ। ইন্দোনেশিয়ার স্বাধীনতার স্মৃতিস্বরুপ মসজিদটি নির্মিত করা হয়েছিল বলে এর নাম ‘ইস্তিকলাল মসজিদ’।

ইন্দোনেশিয়ান ভাষায় শব্দটির অর্থ স্বাধীনতা। মসজিদটি সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয় ১৯৭৮ সালে । ৯৫,০০০ বর্গমিটার জায়গা নিয়ে অবস্থিত পৃথিবীর চতুর্থ বৃহৎ এই মসজিদটিতে প্রায় ১,২০,০০০ মুসল্লি একত্রে নামাজ আদায় করতে পারে।

মসজিদুল হাসান-আল শানী : মসজিদুল হাসান-আল শানী স্থানীয়দের কাছে ক্যাসাবালাঙ্কা হাজ কিংবা হাসান মসজিদ নামে বহুল পরিচিত। মরক্কোর সবথেকে বড় শহর ক্যাসাবালাঙ্কায় আটলান্টিক মহাসাগরের তিরে অবস্থিত মসজিদটি।

১৯৯৩ সালে সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয় মসজিদটি। প্রায় ২২ একর জমির ওপর নির্মিত এই মসজিদটিতে একত্রে ১,০৫,০০০ মুসল্লি একত্রে নামাজ আদায় করতে পারে। মসজিদটিতে একটি মাত্র মিনার রয়েছে, যার উচ্চতা প্রায় ২১০ মিটার।

ফয়সাল মসজিদ : পাকিস্তানের সবথেকে বড় মসজিদ ‘ফয়সাল মসজিদ’ পাকিস্থানের ইসলামাবাদে অবস্থিত। আয়তনের দিক থেকে এটি পৃথিবীর ষষ্ঠ বৃহৎ মসজিদ। মসজিদটির নকশা করেন বিখ্যাত তুর্কি স্থপতি ভেদাত দালোকে।

প্রায় ৪৩,০০০ বর্গমিটার জায়গার উপরে নির্মিত এই মসজিদটির নির্মাণকাজ শেষ হয় ১৯৮৬ সালে। এতে প্রায় ৭৪,০০০ মুসল্লি একত্রে নামাজ আদায় করতে পারে। মসজিদটির চারটি গম্বুজের প্রত্যেকটির উচ্চতা ৯০ মিটার।

জামিয়া মসজিদ : পাকিস্থানের পাঞ্জাব প্রদেশের লাহরের বাহরিয়ায় অবস্থিত পৃথিবীর সপ্তম বৃহৎ মসজিদ, মসজিদে জামিয়া কিংবা জামিয়া মসজিদ।

২০১৪ সাল থেকে এই মসজিদটির আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম চালু হয়। ২১টি গম্বুজ এবং ৪টি মিনার বিশিষ্ট এই মসজিদটি গ্রান্ড জামিয়া নামে বিশ্বব্যাপী বেশ পরিচিত। এতে একত্রে প্রায় ৭০ হাজার মুসল্লি একত্রে নামাজ আদায় করতে পারে।

শেখ জায়েদ মসজিদ : আরব আমিরাতের প্রয়াত রাষ্ট্রপতি শেখ জায়েদের নামে প্রায় ২২ হাজার বর্গমিটার জায়গা নিয়ে আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবীতে অবস্থান শেখ জায়েদ মসজিদের। পৃথিবীর অষ্টম বৃহৎ মসজিদ এটি।

১৯৯৬ সালের শেষ দিকে এর নির্মাণকাজ শুরু হয়। প্রায় ৪১ হাজার মুসল্লি একত্রে এখানে নামাজ আদায় করতে পারেন। তবে ঈদ এবং জুম্মার নামাজের সময় এর পরিমাণ বেড়ে পঞ্চাশ পেরিয়ে যায়। মসজিদটিতে  ৮২টি গম্বুজ এবং ৪টি মিনার রয়েছে ।

জামে মসজিদ : ভারতের রাজধানী দিল্লির প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত পৃথিবীর নবম বৃহৎ মসজিদ। ১৬৪৪ সাল থেকে ১৬৫৬ সালের মাঝামাঝি সময়ে মুঘল সম্রাট শাহ জাহান এটি নির্মাণ করেন বলে  মসজিদটির নাম রাখা হয় মসজিদ-ই-জাহান নুমা।

তবে জামে মসজিদ নামেই এটি বহুল পরিচিত। প্রায় ২২ হাজার বর্গমিটার জায়গায় অবস্থিত ২৫ হাজার ধারণক্ষমতা বিশিষ্ট এই মসজিদটির ৩টি গম্বুজ এবং দুইটি মিনার রয়েছে। মিনার দুইটির উচ্চতা ৪১ মিটার।

বায়তুল মোকাররম : বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় অবস্থিত বাংলাদেশের জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম বিশ্বের দশম বৃহৎ মসজিদ। ১৯৫৯ সাল থেকে শুরু হয়ে ১৯৬৮ সালে শেষ হয় মসজিদটির নির্মাণ কাজ।

অনেকটা মুঘল স্থাপত্যের ওপর ভিত্তি করে নির্মিত এই মসজিদটির অবস্থান প্রায় ২১,০০০ বর্গমিটার জমির ওপরে। প্রায় ৪০,০০০ হাজার মুসল্লি একত্রে নামাজ আদায় করতে পারে এই মসজিদটিতে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: