সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ইনুকে মাইনাস করতেই ফের বিতর্ক?

enu20160428085939নিউজ ডেস্ক:
হাসানুল হক ইনুকে মাইনাস করতে চায় আওয়ামী লীগ? ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ একক ভাবে দেশ শাসন ও রাজনীতির মাঠে থাকার জন্যই কি এ বিতর্কের জন্ম? এমনটাই প্রশ্ন এখন রাজনীতি বিশ্লেষকদের।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ক্ষমতাসীন মহাজোটের শরিক দল জাসদের সভাপতি তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুকে মন্ত্রীসভা থেকে মাইনাস করতেই এই বিতর্ক। যেটা গতবছর আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ সেলিম শুরু করেছিলেন। এবার বললেন খোদ দলের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফ।

“তারা (জাসদ) যদি বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার সমস্ত পরিবেশ সৃষ্টি না করত, তবে বাংলাদেশ একটি ভিন্ন বাংলাদেশ হত। এদের একজনকে আবার মন্ত্রিত্বও দেওয়া হয়েছে, যার প্রায়শ্চিত্ত আওয়ামী লীগকে আজীবন করতে হবে।” আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের এমন বক্তব্যের পর থেকেই এসব প্রশ্ন ও বিতর্কের জন্ম। গত সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের এক সভায় এসব মন্তব্য করেন আশরাফ।

অপরদিকে পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের ক্ষেত্র তৈরির জন্য জাসদকে দায়ী করে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের বক্তব্য ‘অনভিপ্রেত, দুঃখজনক ও অপ্রাসঙ্গিক’ বলে গতকাল নিজ মন্ত্রনালয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন হাসানুল হক ইনু। তিনি উল্টো ক্ষোভ ঝেড়ে বলেছেন, ‘ইতিহাস চর্চার সময়’ এটা নয়।

এদিকে গতবছর ১৫ আগষ্ট এক অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সময় জাসদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম। জাসদ বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরিবেশ সৃষ্টি করে বলে তিনি মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, স্বাধীনতাবিরোধীরা কখনো বঙ্গবন্ধুর ওপর আঘাত হানতে পারত না, যদি ওই গণবাহিনী- জাসদ বঙ্গবন্ধুর বিরোধিতা করে বিভিন্ন জায়গায় ডাকাতি করে, মানুষ হত্যা করে, এমপি মেরে পরিবেশ সৃষ্টি না করত।
অপ্রিয় সত্যের এই পুনরাবৃত্তি এবং বছর পর ফের এই বিতর্ক রাজনীতিতে নতুন মেরুকরণের আভাস? এমনই চিন্তার মহাজজ্ঞ এখন রাজনীতি বিশ্লেষকদের মধ্যে।

অপরদিকে জাসদ সাধারণ সম্পাদকও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্যের তীব্র পতিক্রিয়া জানিয়েছেন একদিন পর। জাসদ সম্পাদক শিরিন আখতারের প্রতিক্রিয়া ছিল এমন, “শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি ঐক্যবদ্ধ হয়ে দেশকে যখন এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে, হাসানুল হক ইনু যখন জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন, ঠিক সেই মুহূর্তে সৈয়দ আশরাফের এই বক্তব্য জাতীয় ঐক্যকে বিনষ্ট করবে।” তার প্রতিক্রিয়াও মাইনাস সন্দেহের আভাস উঠে আসে। যদিও তিনি এ বিষয়ে সরাসরি মন্তব্য করেননি।

রাজনৈতিক মহলে আলোচনার তুঙ্গে থাকা বিতর্কটি নিয়ে কথা হয়। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরুল্লার সাথে। মাইনাস প্রশ্নে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি আওয়ামী লীগের এই প্রবীণ নেতা। তবে এই বিতর্ক অপ্রিয় সত্য বলেও জানান তিনি। বলেন “সৈয়দ আশরাফের বক্তব্যের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী কথা বলেছেন। এখন আর আমাদের কি বলার থাকে। তবে মহাজোটের ঐক্য সুসংহতই থাকবে”।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের সমালোচনামূলক বক্তব্যকে তার ব্যক্তিগত বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার (১৪ জুন) সংসদ অধিবেশন চলাকালীন তিনি বলেন, ‘এখন তো এসব কাদা ছোড়াছুড়ির সময় নয়।’ সভাপতির ভূমিকাও কি আমাকে পালন করতে হবে, ‘সেক্রেটারিশিপ’ও আমি চালাব নাকি?

উল্লেখ, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটে রয়েছে জাসদ। ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়েই এমপি নির্বাচিত হন পঁচাত্তরপূর্ব জাসদের সামরিক শাখার উপ-প্রধান হাসানুল হক ইনু। ২০১২ সালে তাকে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের তথ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির ভোটের পর আওয়ামী লীগ টানা দ্বিতীয় মেয়াদে সরকার গঠন করলে ইনুকে আগের দপ্তরেই রাখেন প্রধানমন্ত্রী।বিডি২৪লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: