সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আমেরিকায় নীরব যুদ্ধ চলছে,বছরে ৩৩ হাজার বন্ধুকের গুলিতে মৃত্যু : আতঙ্ক উ্ৎকন্ঠায় ইমিগ্রান্টরা

download (2)গোলাম সাদত জুয়েল, ফ্লোরিডা থেকে:: গত ১২ জুন সেন্ট্রাল ফ্লোরিডার ওরলান্ডোয় গে ক্লাবে টেরর এ্যাটাকে ৫০ জন মারা যাওয়ায় পুরো আমেরিকায় নাগরিকদের মধ্যে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে । ওমর মতিন ( ৩০ ) যে এসল্ট মেশিন গান দিয়ে এলোপাথারি গুলি করে এবং যে ভাবে মানুষ মেরেছে তার ভয়াবহতা কাটিয়ে ওঠতে অনেক দিন লাগবে ।

গত এক বছরে পুরো আমেরিকায় বন্দুকের গুলিতে ৩৩ হাজার নাগরিক মারা যান । অপর এক হিসাবে দেখা যায় পুরো আমেরিকায় বৈধ অগ্নেয়াস্ত্রের সংখ্যা ৩০ কোটি যা আমেরিকার ৩৭ কোটি জনসংখ্যার প্রায় সমান । অর্থাৎ প্রতি একজনে একটি আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে। ওরলান্ডো নাইট ক্লাবে এট্যাক হবার পর আবার আমেরেরিকার আগ্নেয়াস্ত্র নীতি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

সারা পৃথিবীর মধ্যে একমাত্র আমেরিকায় অস্ত্র সবচেয়ে সহজলভ্য । ওমর মতিন (৩০ ) নামের আততায়ী সিকিউরিটি কম্পোনীতে কাজ করতেন ,তার ফায়ার আরমস এর বৈধ লাইসেন্স ছিল।ওমর মতিন সে বৈধ লা্ইসেন্স দিয়ে ঘটনার এক সপ্তাহ আগে একটি এ্সল্ট অত্যধুনিক গান ও হ্যান্ড গান কিনেছিল যা দিয়ে নাইট ক্লাবে মাস শুটিং করে ৫০ জনকে হত্যা করে এবং ৫৩ জনকে আহত করে ।

যুক্তরাষ্ট্রের সব পন শপ ( পুরোরো জিনিস বিক্রিয় করে ) দোকানে নতুন ও পুরোনো অস্ত্র সহজে কিনতে পাওয়া যায় । তাছাড়া অস্ত্র বিক্রীর দোকান গুলোতে খুব সহজে আগ্নেয়াস্ত্র কিনতে পাওয়া যায় । গত এক বছরে পুরো আমেরিকা জুড়ে বন্দুকের গুলিতে ৩৩ হাজার নাগরিক মারা যায় , আহত হন লক্ষাধিক ।

গত এক দশকে আগ্নেয়াস্ত্র এর মাধ্যমে মারা যায় মিলিয়ন এর উপর সাধারন নাগরিক ।যা কোন যুদ্বেও এত মানুষ মারা যায় না।এক ভয়াবহ নীরব ঘাতক রুপে লাভ করেছে । ব্যাক্তিগত নিরাপত্তার অজুহাতে সারা আমেরিকায় অস্ত্র সহজ লভ্য করা হয়েছিল যার খেসারত দিতে হচেছ আমেরিকার নাগরিকদের ।

ওরলান্ডোয় বছরে ,ঢাক ঢোল বাজিয়ে বৃহত আকারে সপ্তাহ ব্যাপি গান শো র আয়োজন করা হয় । গান শোকে আকৃষ্ট করার চেষ্টা চলে । আমেরিকায় গান ( অস্ত্র ) অনেকের কাছে অত্যাবশকীয় হিসাবে পরিগনিত । অস্ত্র নীতি বার বার বলার পরও কোন পরিবর্তন করা হয় না । গত বছর ওরলান্ডোয় বাংলাদেশী নাগরিকা শহিদুল আহমদ তার কনভিনিয়েন্স দোকান বন্ধ করে বাসায় ফিরছিলেন , যখন তিনি তার বাসার ড্রা্‌ইভ ও্য়েতে তার গাড়ী থেকে নামছিলেন তখন পিছন থেকে তাকে গুলি করে আততায়ীরা চলে যায় ।

আজ পযর্ন্ত পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করতে পারে নি । ফ্লোরিডার বাংলাদেশীদের বেশীর ভাগ কনভিনিয়েন্স ও গ্যাস ষ্টেশন এর জড়িত , প্রায়ই কনভিনিয়েন্স ষ্টোর ও গ্যাস ষ্টেশনে আততায়ীরা এসে গুলি গুলি করে । গত ৩ বছরে ১০ জন বাংলাদেশী মারা গেছেন, আহত হযেছেন ৪০ জন । অনেকে আত্বরক্ষায় সব সময় সব সময় অস্ত্র বহন করেন ।

আমেরিকার ফ্লোরিডায় জি লা্ইসেন্স যা দিয়ে অনায়াসে অস্ত্র কেনা যায় বা অস্ত্র বহন করা যায় তার নীতিমালা পরিবতনের সময় এসেছে । ও্মর মতিন ( ৩০ ) আমেরিকায় জন্ম নেয়া আফগান নাইট ক্লাবে হামলা করায় আমেরিকায় জন্ম নেয়া প্রবাসী মুসলিম দ্বিতীয় প্রজন্ম এর ভবিষ্যত অনেকটা শংকায় ।

যদি রিপাবলিকান ডোলান্ট ট্রাম্প ক্ষমতায় আসে তাহলে আমেরিকার ইমিগ্রান্ট ও মুসলিম সম্প্রদায়ের উপর নানা হয়রানি বেড়ে যাবে । কোটি কোটি মুসলিম সম্প্রদায় গভীর শংকায় পাশাপাশি যদি অস্ত্র নিয়ন্ত্রনে নতুন নীতিমালা না আসে তাহলে ডেমষ্টিক ভায়োলেন্স মারাত্বক বেড়ে যাবে । বিমান বন্দরের নিরাপত্তা নিশ্চিত করলেও আভ্যন্তরীন অস্ত্র সহজলভ্যতায় ৩৩ হাজার থেকে বন্দুকের ব্যবহারে মৃতের সংখ্যা ৫০ হাজারে চলে যাবে । যা একটা আফগান বা ইরাক যুদ্বের চেয়ে ভয়াবহ ।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: