সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ৪ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

প্রধানমন্ত্রী জাসদের পক্ষ নেয়া কিসের ইঙ্গিত?

ডেইলি সিলেট ডটকম :: রাজনীতিতে শেষ বলে কিছু নেই। রাজনীতিবিদদের কোন রং নেই। এমন কথা আমরা ছোট বেলা থেকেই শুনেছি এবং অনেক প্রমাণও দেখেছি। তবে রাজনৈতিক নেতারা প্রায়ই একটি কথা বলেন, আমরা জনগণের জন্য রাজনীতি করি, ক্ষমতার জন্য নয়। এটা নিছক তাদের মিথ্যে কথা ছাড়া কিছু নয়।

বাংলাদেশ নামক দেশটি প্রতিষ্ঠার সবচেয়ে বড় নায়ক নিঃসন্দেহে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। একজন নেতা হিসেবে যাকে আমি শ্রদ্ধা করি। শুধু আমি কেন? পুরো বাংলাদেশের মানুষই তাকে নিয়ে গর্বিত।

file (1)তবে সম্প্রতি বঙ্গবন্ধুর দল আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধরণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) সম্পর্কে ইতিহাসের চিরন্তন একটি সত্য মিডিয়ার সামনে তুলে ধরেছেন। গণমাধ্যমের বদৌলতে জানতে পেরেছি; আশরাফ বলেছেন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) বঙ্গবন্ধুর হত্যার পরিবেশ তৈরি না করলে দেশ অনেক আগেই উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হত। আর সেই দল থেকে একজনকে মন্ত্রী করার জন্য ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে প্রায়শ্চিত্ত করতে হবে।

সৈয়দ আশরাফের বাবা সৈয়দ নজরুল ইসলাম বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে রাজনীতি করেছেন। বাবার পথ ধরে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রণিত হয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে এসেছেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। বাংলাদেশের রাজনীতেত একজন পরিছন্ন ব্যক্তি তিনি। বঙ্গবন্ধুর প্রেমিক হওয়ার কারণেই তিনি প্রকৃত ইতিহাস তুলে ধরেছেন। এটাই স্বাভাবিক।

তবে একটি মজার ব্যাপার হলো আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার দলের সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্যকে সমর্থন না করে উল্টো তিনি জাসদের পক্ষ নিলেন কেন? এ প্রশ্ন আসলে আমার একার নয়। এটা বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষের মনেই জেগেছে।

এই প্রশ্নর উত্তর খুঁজতে গিয়ে অনেক কিছুই পেয়েছি। হয়তো আমার মতো দেশের অন্য মানুষরাও অঙ্ক কষে অনেক উত্তর পেয়েছেন কিন্তু সঠিক উত্তরটা জানলেও অনেকে বলতে পারছেন না। কারণ যদি আপনার উত্তরের কোন প্রমাণ না থাকে তাহলে আপনি গোল্লায় গেলেন…!

তবে আমি মানণীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই। কারণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাসদকে সমর্থন দেয়ার বিষয়ে উত্তর খুঁজতে গিয়ে আমি যেসব উত্তর পেয়েছি। তার মধ্যে দুই একটা উত্তর প্রধানমন্ত্রী নিজেই দিয়ে দিয়েছেন। যেটা আজ সকালে আমি গণমাধ্যমে দেখলাম, জাসদকে নিয়ে সৈয়দ আশরাফের সমালোচনা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী গতকাল সংসদ অধিবেশন চলাকালীন দলের কেন্দ্রীয় নেতা ও সংসদ সদস্যদের সামনে বলেন, “এখন তো এসব কাদা ছোঁড়াছুঁড়ির সময় নয়। আশরাফের এমন বক্তব্যে আমার সমর্থন নেই।”

উপস্থিত নেতারা জানান, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলতে গেলে প্রসঙ্গক্রমে জাসদকে নিয়ে করা সৈয়দ আশরাফের বক্তব্যের বিষয়টি উঠে আসলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “সভাপতির ভূমিকাও কি আমাকে পালন করতে হবে; সেক্রেটারিশিপও আমি চালাব নাকি?” তাহলে অন্য কারো দরকার নাই বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, “অনেক ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে সরকার পরিচালনা করছি। অনেক কষ্টে সবাইকে এক রাখার চেষ্টা করছি। এ সময়ে এগুলো বলার কী প্রয়োজন ছিল আমি বুঝতে পারছি না। আশরাফের এসব বক্তব্যে আমার সমর্থন নাই। এগুলো তার একান্তই ব্যক্তিগত।”

তাহলে এটা বলা ভুল হবে না, প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতা ধরে রাখার জন্যই আশরাফের বক্তব্যকে সমর্থন না করে জাসদের পক্ষ নিয়েছেন। তবে অবাক লাগছে যে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর আদর্শের ধারক-বাহক হয়েও ক্ষমতার জন্য প্রকৃত ইতিহাসকে এখন ভুলে থাকতে চাইছেন? যদি তাই হয়, তাহলে উপরের লেখাটা আরেক বার লিখতেই হচ্ছে। রাজনীতিতে শেষ বলে কিছু নেই। রাজনীতিবিদদের কোন রং নেই। রাজনৈতিক নেতারা বলেন, আমরা জনগণের জন্য রাজনীতি করি, ক্ষমতার জন্য নয়। এটা নিছক তাদের মিথ্যে কথা ছাড়া কিছু নয়।

লেখক: সাংবাদিক।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: