সর্বশেষ আপডেট : ৪০ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষায় আসছে বড় পরিবর্তন!

1442585713নিউজ ডেস্ক:
প্রশ্নপত্র ফাঁস রুখতে মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজের আগামী ভর্তি পরীক্ষায় বড় ধরনের পরিবর্তন আসছে। আগের বছরগুলোতে অভিন্ন প্রশ্নপত্রে একই দিন একই সময়ে পরীক্ষা নেয়া হলেও চলতি বছর পৃথকভাবে গ্রহণের নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। আগামী ১৯ জুন সচিবালয়ে ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত মন্ত্রণালয়ের এক সভায় এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হতে পারে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, গত কয়েক বছর ধরে নিয়মিতই প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ করে আসছে শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা। এই পরিস্থিতিতে চলতি বছর প্রশ্নপত্র ফাঁসের কোনো অভিযোগ ছাড়াই সুষ্ঠুভাবে ভর্তি পরীক্ষা নিতে আগেভাগেই তৎপরতা শুরু করেছে মন্ত্রণালয়। এজন্য প্রয়োজনীয় সকলের সাথে বৈঠক করছেন দায়িত্বপ্রাপ্তরা।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে নয়, মূলত বেসরকারি মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজের শূন্য আসন পূরণ করতেই এই পরিবর্তন আনা হচ্ছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, দেশে মোট ১০০টি মেডিকেল কলেজে আসন সংখ্যা ৯ হাজার ৬শ ৭৯। এর মধ্যে সরকারি ৩ হাজার ৭শ ২৯ ও বেসরকারি ৫ হাজার ৯শ ৫০ আসন। এছাড় মোট ২৪টি বেসরকারিসহ ৩৩টি ডেন্টাল কলেজ/ইউনিটে আসন প্রায় ছ’হাজার।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস ও বিডিএস কোর্সে ভর্তির জন্য পর্যাপ্ত শিক্ষার্থী পায়নি বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলো। রাজধানীর অনেক কলেজেই মাত্র ২০ থেকে ২৫ জন করে শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছেন। আর ঢাকার বাইরের কলেজগুলোর পরিস্থিতি আরো খারাপ। কোনো কোনো মেডিকেল কলেজে গত শিক্ষাবর্ষে একজনও শিক্ষার্থী পায়নি। ভর্তি পরীক্ষায় পাস নম্বর ২০ থেকে ৪০ করায় এরকম শিক্ষার্থী সংকটে পড়ে বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলো। শেষ পর্যন্ত আসন ফাঁকা রেখেই ভর্তি প্রক্রিয়া শেষ হয়।

সূত্র জানায়, এ অবস্থায় সংকটে পড়ে বেসরকারি মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজগুলো। কলেজগুলো নিজেরা ভর্তি পরীক্ষা নিলে খাতা মূল্যায়ন ও ভর্তি প্রক্রিয়া সহজ হবে। সে কারণেই বেসরকারি মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজ এসোসিয়েশনের নেতারা পৃথক পৃথক পরীক্ষার পক্ষে মত দিয়েছেন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক ডা: দীন মোহাম্মদ নুরুল হক জানান, “প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতেই পরীক্ষা পদ্ধতিতে পরিবর্তন হতে পারে। এজন্য প্রশ্নপত্র প্রণয়ণ থেকে শুরু করে প্রয়োজনীয় সবকিছু খুব সতর্কভাবে করা হবে। শিগগিরই স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সাথে আলোচনা করে আমরা পরবর্তী পদক্ষেপ নিব।”

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন-বিএমএ সভাপতি ডা: মাহামুদ হাসানও পদ্ধতি পরিবর্তনের কথা নিশ্চিত করে জানান, “চলতি বছর মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজের ভর্তিপরীক্ষা পৃথকভাবে নেয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। সামনে বৈঠক আছে। পরে বিস্তারিত জানাতে পারব।”

জানা গেছে, প্রশ্নফাঁসের অভিযোগমুক্ত পরীক্ষা চান স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্দ নাসিম। এজন্য বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যেই ভর্তি পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট বিএমএ, শিক্ষক, গণমাধ্যমকর্মী ও মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আলাপ করেছেন তিনি। আগামী ১৯ জুন মন্ত্রণালয়ের আরেকটি বৈঠকে এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হতে পারে। তবে এর ফায়দা বিবেচনায় বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মালিকেরা উস্কে দিচ্ছেন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (চিকিৎসা শিক্ষা ও জনশক্তি উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. আবদুর রশীদ আসন শূণ্য থাকার কথা স্বীকার করে বলেন, “একসঙ্গে পরীক্ষা নেয়ার ফলে ডেন্টাল কলেজ, বিশেষ করে বেসরকারি ডেন্টাল কলেজগুলোতে প্রতিবছর বিপুল সংখ্যক আসন শূন্য থাকায় ডেন্টাল কলেজ অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা আলাদাভাবে পরীক্ষা নেয়ার দাবি জানিয়ে আসছেন। তাদের দাবি যুক্তিসঙ্গত বিবেচনায় পৃথকভাবে পরীক্ষা নেয়ার বিষয়টি ভাবনার মধ্যে রয়েছে।”পূর্বপশ্চিম

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: